Azhar Mahmud Azhar Mahmud
teletalk.com.bd
thecitybank.com
livecampus24@gmail.com ঢাকা | সোমবার, ৫ই জুন ২০২৩, ২২শে জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০
teletalk.com.bd
thecitybank.com

''শিক্ষকদের আরও উদ্ভাবনমুখী হতে হবে''

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বার ২০২২, ১৭:৪০

সেমিনার

চট্টগ্রাম লাইভ: ‘প্রান্তিক পর্যায়ে শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার’ প্রকল্পের আওতায় এর অর্জন, প্রভাব, সার্বিক অভিজ্ঞতা এবং গবেষণার ফলাফল নিয়ে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রান্তিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মানোন্নয়ন নিয়ে ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে বান্দরবানের ৫টি উপজেলায় এ প্রকল্পটি চলমান রয়েছে।

সম্প্রতি চট্রগ্রামের হোটেল আগ্রাবাদে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে শিক্ষক বিশেষজ্ঞগণ, ইউনিসেফ বাংলাদেশের শিক্ষাবিষয়ক কর্মকর্তাবৃন্দ, অংশীদার, অন্যান্য এনজিওর প্রতিনিধিদের পাশাপাশি প্রকল্পের বাইরে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ এবং প্রকল্পের আওতাধীন বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকরা সেমিনারে অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর দেবব্রত দাস বলেন, পাহাড়ের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট সমতলের থেকে ভিন্ন। এই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে শিক্ষা নিয়ে এখনো অনাগ্রহ কাজ করে। এছাড়াও এখানে শ্রেণিকক্ষের অপ্রতুলতা, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের অভাব, শিক্ষা নিয়ে সচেতনতার অভাবসহ নানাবিধ চ্যালেঞ্জ রয়েছে। তবে এই প্রকল্প শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি করবে। নতুন যে শিক্ষাক্রম চালু হতে যাচ্ছে, তাতে এই প্রকল্পের আওতাধীন ডিজিটাল কন্টেন্টগুলো আরও কাজে লাগবে।

ইউনিসেফ বাংলাদেশের চিফ অব এডুকেশন দীপা শংকর বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রে আমরা এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটের কথা মাথায় রেখে কাজ করছি। এই প্রকল্পের আওতাধীন কন্টেন্টগুলোতেও তার প্রতিফলন পাওয়া যায়। নতুন যে শিক্ষাক্রম বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে, সেখানেও এই কন্টেন্টগুলো একইভাবে প্রাসঙ্গিক থাকবে এবং ভবিষ্যতে শিক্ষার্থীদের কাজে লাগবে। সেই সঙ্গে আমাদের শিক্ষকদের আরও উদ্ভাবনমুখী হতে হবে।

দীপা শংকর বলেন, শিক্ষার্থীদের শ্রেণিকক্ষে ব্যবহারের জন্য ডিভাইস সরবরাহের পাশাপাশি প্রকল্প চলাকালীন আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশন শিক্ষক প্রশিক্ষণ, কন্টেন্ট ভ্যালিডেশন, অভিভাবক সমাবেশ, এবং পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়নের কাজ করেছে। সেই সঙ্গে শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবককে প্রকল্প সম্পর্কে এবং ইন্টারেন্ট সুরক্ষা সম্পর্কে অবহিত করার জন্য প্রকল্পের আওতাধীন সকল স্কুলেই অভিভাবক সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

ইউনিসেফ চট্টগ্রামের চিফ অব ফিল্ড অফিস মাধুরী ব্যানার্জি বলেন, নয় মাসের এই প্রকল্প থেকে আমরা অনেক কিছু অর্জন করেছি। এই অর্জনকে আমাদের এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের সামগ্রিক সুস্থতা, বিকাশ এবং সুরক্ষার দিকেও আমাদের নজর দিতে হবে।

আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশনের এডটেক টিমের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার বি. এম. ফজলে রাব্বি প্রকল্প বাস্তবায়নের বিভিন্ন কার্যক্রম, চ্যালেঞ্জ, এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন। গবেষণা সহযোগী প্রতিষ্ঠান এডটেক হাবের কান্ট্রি লিড শাকিল আহমেদ প্রকল্পবিষয়ক গবেষণার বিভিন্ন দিক এবং ফলাফল তুলে ধরেন।

জানা গেছে, বান্দরবানের ৫টি উপজেলার (সদর, রোয়াংছড়ি, থানচি, আলীকদম, এবং রুমা) শিক্ষার্থীদের গাণিতিক সাক্ষরতার হার শিক্ষার সূচকে দেশের অন্যান্য জেলার তুলনায় সবচেয়ে পিছিয়ে আছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর, ইউনিসেফ বাংলাদেশের সহায়তায়- ‘প্রান্তিক পর্যায়ে শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নেয়। প্রকল্পটি বান্দরবানের এই উপজেলাগুলোর ৩০টি স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের গাণিতিক সাক্ষরতা বৃদ্ধি ও ভাষাগত দক্ষতা উন্নয়নে বিভিন্ন প্রযুক্তি যেমন মাল্টিমিডিয়া, ট্যাব, স্মার্টফোন ব্যবহারের মাধ্যমে শিখন দক্ষতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশন এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করেছে গবেষণা প্রতিষ্ঠান এডটেক হাব।

ঢাকা, ২৪ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

সম্পর্কিত খবর


আজকের সর্বশেষ