ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টকে চড় মারায় ৪ মাসের কারাদণ্ড


Published: 2021-06-11 16:32:39 BdST, Updated: 2021-06-16 23:04:46 BdST

লাইভ ডেস্ক: শেষ রক্ষা হয়নি। অবশেষে ধরা খেয়ে যেতে হলো শ্রীঘরে। তবে ওই একজন প্রেসিডেন্টকে চড় মারার দৃশ্য দুনিয়াবাসী দেখেছে। এর পক্ষে বিপক্ষে নানান যুক্তি তর্ক করতে দেখা যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তবে এভাবে ঠিক হয়নি এমনটি বলেছেন অনেকেই। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁকে চড় মারার অভিযোগে আটক ব্যক্তিকে চার মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির একটি আদালত। কাতার ভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে এই তথ্য মিলেছে।

আদালত অভিযুক্ত দামিয়েন তেরেলের বিরুদ্ধে ১৮ মাসের সাজা ঘোষণা করেন গত বৃহস্পতিবার। পরে ১৪ মাসের সাজা স্থগিত করা হয়েছে। ফলে তাকে চার মাস কারাগারে থাকতেই হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিস্টরা। সরকারি কৌঁসুলিরা আদালতে দামিয়েনের বিরুদ্ধে ‘সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃতভাবে সহিংস কাজ’ সংঘটনের অভিযোগ আনেন।

তিনি বলেন, এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এর দায়ে দামিয়েনের সর্বোচ্চ তিন বছরের কারাদণ্ড ও ৪৫ হাজার ইউরো জরিমানা হতে পারত। অভিযুক্ত দামিয়েন ডানপন্থী রাজনীতির সমর্থক ও ফ্রান্সের ইয়েলো-ভেস্ট আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। মঙ্গলবার ফ্রান্সের দক্ষিণাঞ্চলের দ্রোমে এলাকা পরিদর্শনে যান মাক্রোঁ।

এ সময় তিনি করোনার ধাক্কা কাটিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে শুরু করা ফ্রান্সের একদল বাসিন্দার সঙ্গে কুশল বিনিময় করতে যান। ওই সময় দর্শন প্রত্যাশীদের কাতারে দাঁড়িয়ে থাকা ২৮ বছর বয়সী দামিয়েন মাক্রোঁ গালে সপাটে চড় মারেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ঘটনার একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কোমরসমান উচ্চতার ব্যারিকেডের এক পাশে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা শুভানুধ্যায়ীদের দিকে এগিয়ে যান মাক্রোঁ।

সবুজ রঙের টি-শার্ট, সানগ্লাস ও মাস্ক পরা একজনের দিকে হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। এ সময় লোকটিকে বলতে শোনা যায়, ‘মাক্রোঁর পতন হোক’। এরপরই ডান হাত দিয়ে মুখোমুখি দাঁড়ানো মাখোঁর মুখে সজোরে চড় মারেন তিনি। ভিডিওতে সবুজ টি-শার্ট পরা ওই ব্যক্তিই দামিয়েন। তাৎক্ষণিকভাবে ফরাসি প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তায় নিয়োজিতদের দুজন এগিয়ে গিয়ে দামিয়েনকে মাটিতে ফেলে দেন।

আরেকজন মাক্রোঁকে সরিয়ে নেন। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই মাক্রোঁকে আবার সেখানে এসে ব্যারিকেডের অপর পাশের কারও সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায়। ওই ঘটনায় আটক করা হয় দামিয়েনসহ মোট দুজনকে।

যে কারণে চড় দেন :

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করতে গিয়েছিলেন । সেখানে নাগরিকদের সঙ্গে কুশল বিনিময়কালে হঠাৎ ম্যাক্রোঁর মুখে চড় বসিয়ে দেন এক যুবক। এ ঘটনায় সারা বিশ্বে আলোচনার ঝড় উঠে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত তরুণের নাম ড্যামিয়েন টারেল (২৮)। ছয় সপ্তাহের রাজনৈতিক সফরের শুরুতেই এ কাণ্ডে হতভম্ব ম্যাঁক্রো। এরই মধ্যে বিষয়টি আইন-আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে।

পুলিশের কাছে এরই মধ্যে ড্যামিয়েন ট্যারেল ম্যাক্রোঁকে থাপ্পড় মারার কথা স্বীকার করেছেন। তবে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তিনি থাপ্পড় দেননি বলে দাবি করেন। মূলত নিজের অসন্তুষ্টি প্রকাশে প্ররোচিত হয়ে হঠাৎ তিনি এই কাজ করেছেন।

পুলিশ জানায, দ্রুত বিচার আদালতে ওই যুবককে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিচারকের কাছে হাজির করা হয়। উল্লেখ্য, এ নিয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ তৃতীয়বারের মতো জনসম্মুখে হামলার স্বীকার হলেন। ২০১৭ সালের মার্চে প্যারিসে আয়োজিত একটি কৃষি প্রদর্শনীতে এক বিক্ষোভকারীর হাতে ডিম হামলার শিকার হয়েছিলেন এমান্যুয়েল ম্যাক্রোঁ। ২০১৬ সালেও প্যারিসে একদল বিক্ষুব্ধ জনতা তার দিকে ডিম ছুঁড়েছিল। সব মিলিয়ে তিনি দমে যাননি। থেমে থাকেন নি।

ঢাকা, ১১ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।