ময়ূর ও চিত্রাহরিণ কিনতে পারবেন আপনিও


Published: 2021-05-14 19:13:06 BdST, Updated: 2021-06-14 00:18:38 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: কে না চায় হরিণ আর ময়ূর কিনতে। যারই সাধ্য আছে তিনিই চান এই দুই ধরনের প্রাণী কিনতে শখ করেন। কিন্তু সবসময় এই সুযোগ থাকে না। এবার সেই সুযোগ এসেছে। তাও আবার ঢাকা চিড়িয়াখানায়। জোড়া ময়ূর ৫০ হাজার আর চিত্রা হরিণ ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় কিনতে পারবেন আপনিও। লকডাউনের বন্ধে প্রাণীর বংশ বিস্তার বেড়ে যাওয়ায় অতিরিক্ত পশু বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

তবে কিনতে হলে বেশ কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। যদিও পশুপ্রেমীদের জন্য বিষাদের খবর হচ্ছে এবারের ঈদেও বন্ধ থাকছে চিড়িয়াখানা। চিত্রা হরিণের খুনসুটি চিড়িয়াখানায় নিত্যদিনের দৃশ্য। সঙ্গী ভাগাভাগি নিয়ে হরিণদের বিরোধ মাঝে মধ্যেই হয়। তিনটি সেডে দেড়শ হরিণের থাকার জায়গা থাকলেও বংশ বৃদ্ধির ফলে বর্তমানে হরিণ রয়েছে তিনশ’র বেশি। তাই বাড়তি হরিণ বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

শখের বশে কিংবা খামার করতে চাইলে বন বিভাগের অনুমতি নিয়ে যে কেউ হরিণ কিনতে পারবেন যে কেউ। ওদিকে স্ত্রী ময়ূরকে আকৃষ্ট করে প্রজননে আমন্ত্রণ জানাতে পেখম মেলেছে সবুজ পুরুষ ময়ূর। ময়ূরের দৃষ্টিনন্দন এই পেখম তোলা দ্যুতি ছড়িয়ে দৃষ্টি কাড়ে সবার। সবুজ ময়ূরের পাশাপাশি মেঘ সাদা পেখম মেলেছে সাদা ময়ূরও।

ময়ূরের দৃষ্টিনন্দন

 

ঈদের দিন সকালে চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা যায়, দর্শনার্থী প্রবেশ বন্ধ থাকায় চিড়িয়াখানায় কোলাহল নেই। মুক্ত অরণ্যে খেয়াল খুশি মতো ছুটোছুটি করছে কাঠবিড়ালী। কোকিল ঘুঘুসহ নানা পাখির কলতানে মুখর পুরো চিড়িয়াখানা। শেষ বৈশাখের দাবদাহে মনের সুখে জলকেলিতে ব্যস্ত রয়েল বেঙ্গল টাইগার। কদম যখন গোসলে ব্যস্ত উদাস দুপুরে তখন অন্য খাঁচায় হাঁসফাঁস গরমে গা ছেড়ে বিভোর ঘুমে বাঘ দম্পতি।

টিভি ক্যামেরার শব্দ পেয়ে ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলেও পাত্তা না দিয়ে আবারও ঘুমিয়ে পড়লো। ছুটির লম্বা বিরতিতে মানুষের উৎপাত নেই। খাওয়ায় সময় ছবি তুলতে গেলে, তাই রাগে গজগজ করে ওঠে বনের রাজা সিংহও। জলের হাতি জলহস্তীর সংসারেও এসেছে নতুন অতিথি। জলে ডুবে থাকা হস্তীকে খাবারের লোভ দেখিয়ে তুলে আনা হয় ডাঙ্গায়। তবে অন্যরা উঠতে নারাজ।

চিড়িয়াখানার সবচেয়ে লম্বা গলার প্রাণী জিরাফ। মধ্যাহ্নভোজ সারছিলেন ডাইনিং টেবিলে। অনেকদিন পর বাইরের মানুষ দেখে কৌতূহল নিয়ে এগিয়ে এলেও খুব একটা পাত্তা না দিয়ে চলে গেলেন নিজের কাজে। চিড়িয়াখানার হৈ হুল্লোর না থাকায় মনের আনন্দে নিজ নিজ খাঁচায় একান্তে সময় কাটাতে পেরে খুশি প্রাণীরা।

জাতীয় চিড়িয়াখানার পরিচালক ড. মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ  নিউজকে বলেন, লকডাউনের বন্ধে প্রাণীর বংশ বিস্তার বেড়ে যাওয়ায় আমরা অতিরিক্ত পশু ও প্রাণী বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। জোড়া ময়ূর ৫০ হাজার আর চিত্রা হরিণ ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় কিনতে পারবেন যে কেউ। তবে বন বিভাগের অনুমতি নিতে হবে।

ঢাকা, ১৪ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।