দেশের প্রথম কর্পোরেট সিমুলেশন প্রোগ্রাম


Published: 2020-07-30 23:14:08 BdST, Updated: 2020-08-11 07:19:49 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: কেমন হতো, যদি ছাত্রবস্থায় কর্পোরেট লাইফের একটা অনুভূতি পাওয়া যেত? অবশ্যই দারুণ হতো, তাই না! ব্ল্যাক ব্রেইনস হাজির হয়েছে এরকমই একটি চমকপ্রদ সুযোগ নিয়ে।

কর্পোরেট সিমুলেশন প্রোগ্রাম নামের তিন সপ্তাহব্যাপী এই ইন্টার্নশীপে কর্পোরেট জীবনের প্রতিটি পদচিহ্ন অনুসরণ করা। ইন্টার্নদের কিভাবে এবং কি উপায়ে আরও বেশি পেশাদার হিসেবে গড়ে তোলা যায়। সে বিষয়ে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কর্পোরেট ব্যক্তিবর্গ দ্বারা প্রশিক্ষণ দেওয়া।

এই কর্পোরেট সিমুলেশন প্রোগ্রামটি বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একেবারেই নতুন সংযোজন। ব্ল্যাক ব্রেইনসই প্রথম এমন একটি প্লাটফর্মের গুরুত্ব অনুভব করে। যাতে আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরা করোনা পরবর্তী সময়ে চাকরি বাজারে প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে গিয়ে হতাশায় নিমজ্জিত না হয়। তারা যেন নিজেদের কে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসের সাথে উপস্থাপন করতে পারে।

কর্পোরেট অফিসের সংস্কৃতি, পরিবেশ এবং কাজের সম্যক ধারণা দেওয়া প্রদান এবং ইন্টার্নদের পেশাদারিত্বকে শানিত করাই ছিল তাদের মূল লক্ষ্য।

এই প্লাটফর্মের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছিলো ৯ জুলাই, ২০২০ তারিখে। ব্ল্যাক ব্রেনস কর্তৃক কর্পোরেট সিমুলেশন প্রোগ্রাম এর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। আগ্রহীপ্রার্থীদের কাছ থেকে জীবন বৃত্তান্ত চাওয়া হয়।

একেবারে নতুন প্রোগ্রাম হওয়ার পরেও Black Brains কর্তৃপক্ষের কাছে প্রায় ৩০০ জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়ে, সেখান থেকে যাচাই করে ১০০ জনকে বাছাই করা হয় এবং ইমেইল করে ইন্টারভিউ এর জন্য ডাকা করা হয়। ইন্টারভিউটি পরিচালনা করেন কর্পোরেট ক্ষেত্রের অভিজ্ঞতাসম্পূর্ন কয়েকজন ব্যক্তি, তাদের চৌকস প্রশ্ন-উত্তর পর্ব শেষে সবচেয়ে আগ্রহী সেরা-১৬ জন প্রার্থীকে প্রথম ব্যাচে ইন্ট্রার্নশীপের সুযোগ দেওয়া হয়।

১৫ জুলাই থেকে ব্ল্যাক ব্রেইনস নতুন নির্বাচিত সেরা-১৬ জন নিয়ে কর্পোরেট সিমুল্যাশনের প্রোগ্রামের অফিসিয়াল কার্যক্রম শুরু করে।

তাদেরকে প্রথমে ৪টি দলে ভাগ করে দেওয়া হয়। প্রত্যোকটি দলে একজন করে মেন্টর যারা কর্পোরেট ক্ষেত্রে অভিজ্ঞ, মেন্টরসহ দলের সকল সদস্যদের সহযোগিতা করার জন্য একজন করে কলাবরেটর মনোনিত করা হয়।

অফিসের সময়সূচি বেধে দেওয়া হয় সকাল ১০টায় থেকে বিকাল ৫টায় পর্যন্ত। এর মধ্যে দুপুর ১টায় থেকে ২টায় লাঞ্চ ব্রেক দেয়া হয়।

যেহেতু ভার্চুয়াল অফিস তাই সকল কার্যক্রম অনলাইনে পরিচালিত হয়েছে। দলীয় কাজ, উপস্থাপনা , প্রজেক্ট তৈরি এবং জমা দেওয়া, জীবনবৃত্তান্ত লেখনী, পেশাদার ইমেইল লেখা, আসানা ব্যবস্থাপনা, আউটলুকের পেশাদার ব্যবহার, লিড জেনারেশন, স্ট্রেস ম্যানেজম্যান্ট সহ আরও অনেক বিষয়ে খুটিনাটি গাইড লাইন দেওয়া হয়।

এছাড়াও দেশবরেণ্য কয়েকজন গণ্য মান্য করপোরেট ব্যক্তিবর্গ ব্ল্যাক ব্রেইনস আয়োজিত সিমুল্যাশন প্রোগ্রামে এসেছেন। তাদের অভিজ্ঞতার ঝুলি থেকে তাদের অভিজ্ঞতা সরাসরি ইন্টার্নদের সাথে বিনিময় করেছেন।

একটা প্রচলিত ব্যাক্য আছে কর্পোরেট জীবন ছাত্রজীবনের চেয়ে বেশি আনন্দের এটি আমাদের ১৬ জন পার্টিশিপেন্ট খুব ভালোভাবে অনুভব করেছেন। কারণ একদিকে যেমন তাদের উপর দিয়ে কাজের খুব চাপ গিয়েছে অফিস টাইমের বাইরেও তাদের কাজ করতে হয়েছে, তেমনি অন্যদিকে হঠাৎ হঠাৎ গল্পে, আড্ডায়, আনন্দে মেতে উঠেছেন।

আবার মাঝে মাঝে Boss is always right কর্পোরেট লাইফের এই বিষয়টাও কর্পোরেট সিমুল্যাশন প্রোগ্রামে ব্যাপক প্রতিফলন হয়েছে।

ঢাকা, ৩০ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।