আলোর পথ: কোরআনের তাফসীর পর্ব-০১


Published: 2021-05-10 16:09:51 BdST, Updated: 2021-06-14 00:04:14 BdST

মোঃ আমিনুল ইসলাম: সুরা নিসা আয়াত নং ৩১- "তোমরা যদি সেই মহাপাপ হতে বিরত হও যা তোমাদেরকে নিষেধ করা হয়েছে, তাহলেই আমি তোমাদের ত্রুটি বিচ্যুতিগুলি ক্ষমা করে দিবো এবং তোমাদেরকে সম্মানজনক স্থানে প্রবিষ্ট করাবো"

তাফসীরঃ
মহান রাব্বুল আলামীন বলেনঃ তোমরা যদি বড় বড় পাপ হতে বেঁচে থাক তাহলে আমি তোমাদের ছোট ছোট পাপগুলো ক্ষমা করে দিবো এবং তোমাদেরকে জান্নাতে প্রবেশ করাব। এই আয়াতের পরিপেক্ষিতে কিছু গুরুত্বপুর্ন হাদিস তুলে ধরা হলো।

১. হাদিসঃ
সহীহ বুখারী ও মুসলিমে আবু হুরাইরাহ (রাঃ) হতে নিম্ন রুপ বর্ননা এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ "ধ্বংসকারী সাতটি পাপ হতে তোমরা বেঁচে থাকো। জিজ্ঞেস করা হয়, হে আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাল্লাম! ঐপাপগুলো কি? তিনি বলেনঃ

১. আল্লাহর সাথে অংশী স্থাপন করা।

২. যাকে হত্যা করা নিষিদ্ধ তাকে হত্যা করা, তবে শরিয়াতের কোন কারনে যদি তার রক্ত হালাল হয় সেটা অন্য কথা।

৩.যাদু করা

৪. সুদ খাওয়া

৫.পিতৃহীনের সম্পদ ভক্ষণ করা।

৬. কাফিরদের প্রতিদ্বন্দিতায় যুদ্ধক্ষেত্র হতে পলায়ন করা।

৭. সতীসাধ্বী মুসলিম নারীদেরকে অপবাদ দেয়া।

সুত্রঃ (ফাতহুল বারী ৫/৪৬২, মুসলিম ১/৯২)

ব্যাখ্যাঃ
উপরোক্ত পাপগুলি আমরা করছি কিনা? আমাদের ব্যাপারটা কিন্তু ভেবে দেখতে হবে ভাই। এইসব পাপ থেকে মুক্ত থাকতে পারলে আমরা দুনিয়াতেই ফিতনা ফাসাদ থেকে মুক্তি পাবো সাথে সাথে আখিরাতেও মুক্তির পথ আমাদের জন্য সহজ হয়ে যাবে।

২. হাদিসঃ
সহী বুখারী ও মুসলিমে আব্দুর রাহমান ইবনে আবী বাকরাহ (রহঃ) বর্ননা করেন যে, তার পিতা বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম বলেছেনঃ

আমি কি তোমাদের বড় পাপের (কাবীরা গুনাহ) মধ্যে সবচেয়ে বড় পাপ কোনটি তা বলে দিবো? আমরা বললাম হাঁ, আল্লাহর রাসুল সাল্লল্লাহু আলাইহি সাল্লাম!
তিনি বলেনঃ ইবাদাতের ব্যাপারে আল্লাহর সাথে অন্য কেহকে শরিক করা এবং মাতাপিতার প্রতি দায়িত্ব পালন না করা। অতপর তিনি হেলান দেয়া থেকে সোজা হয়ে বসলেন এবং বললেনঃ আমি তোমাদেরকে মিথ্যা কথন এবং মিথ্যা সাক্ষী দেয়া থেকে সাবধান করে দিচ্ছি। এ কথা তিনি বার বার বলছিলেন এবং আমরা মনে মনে বলছিলাম, তিনি যদি থামতেন!
সুত্রঃ (ফাতহুল বারী ৫/৩০৯, মুসলিম ১/৯১)

ব্যাখ্যঃ
তাই ভেবে দেখুন ভাই যে আমরা আল্লাহর সাথে কাউকে শিরক করছি কিনা? পিতামাতার সাথে উত্তম আচরন করছি কিনা। না করে থাকলে এখনই আমি আপনি আমাদের ভুলগুলি সংশোধন করে নেয়। মিথ্যা বলা যে মহাপাপ তা আমরা ভুলেই যাই আর মিথ্যা সাক্ষ্য দেই হরহামেশাই।

৩. হাদিসঃ
সহী বুখারী ও মুসলিমে রয়েছে যে, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসুদ (রাঃ) বলেনঃ আমি রাসুলুল্লাহ , রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম কে জিজ্ঞেস করি, হে আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম! সবচেয়ে বড় পাপ কোনটি? তিনি বলেনঃ তা এই যে, তোমার সন্তান তোমার সাথে আহার করবে এ ভয়ে তুমি তাকে হত্যা করে ফেল।' আমি জিজ্ঞেস করলাম তারপর কোনটি? তিনি বললেনঃ তারপরে বললেনঃ তারপরে এই যে, তুমি তোমার প্রতিবেশির স্ত্রীর সাথে ব্যভিচারে লিপ্ত হয়ে পড়'
সুত্রঃ (ফাতহুল বারী ৮/৩৫০,মুসলিম ১/৯০)

ব্যাখ্যাঃ
ইদানিং দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ডাস্টবিনে নবজাতক শিশু পাওয়া যাচ্ছে। এইগুলা কিন্তু সব নারী পুরুষের অবৈধ সম্পর্কের ফসল। আমরা বউকে খাওয়ানোর ভয়ে বিয়ে না করে জিনা করছি। বা পরিবার বিয়েটাকে কঠিন করে ফেলছে এবং ফলে অহরহ এই ঘটনাগুলা ঘটছে। আবার কিছু বাপ মায়েরাও এই কাজ করে থাকতে পারে আর যদি তারা করেই থাকে তাহলে তারা জেনো থাকুক যে এটা সব চেয়ে বড় কবিরা গুনা। আর ব্যভিচার ত সব সময় গুনাহের কাজ কিন্তু কেউ যদি তার প্রতিবেশির স্ত্রীর সাথে ব্যভিচার করে সেটা সবচেয়ে বড় গুনা।

৪. হাদিসঃ
"ইমাম আহমাদ (রহঃ) অন্য এক হাদিসে বর্ননা করেন, আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রাঃ) বলেন যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ সবচেয়ে বড় পাপসমুহ হলো আল্লাহর সাথে ইবাদাতে অন্যকে শরিক করা, মাতাপিতার প্রতি কর্তব্য পালন না করা এবং আত্ন হত্যা করা। শু' বাহ (রহঃ) বলেন যে, এবং মিথ্যা শপথ করা' বলেছিলেন কিনা তা আমি ঠিক মনে করতে পারছি না "
সুত্রঃ বুখারী ৬৬৭৫,,তিরমিযি ৩০২১, নাসাঈ ৮/৬৩

৫. হাদিসঃ
মুসনাদ ইবনে আবী হাতিমে রয়েছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম বলেছেনঃ
"মানুষের তার পিতা মাতাকে গালি দেওয়াও কবিরা পাপ" জনগন জিজ্ঞেস করলোঃ হে আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম! মানুষ তার পিতা মাতাকে কিরুপে গালি দিবে?' তিনি বললেন এভাবে যে, সে অন্যের বাপকে গালি দেয়, অন্যলোকটি তখন তার বাপকে গালি দেয়,সে অন্যের মাকে গালি দেয়, অন্য লোক টি তখন তার মাকে গালি দেয়"
সুত্রঃ (মুসলিম ৯০)

ব্যাখ্যাঃ
তার মানে কি দাড়ালো যে কাউকে বাপ মা তুলে গালি দেওয়া যাবে না। যদি কেউ দেয় তাহলে কিন্তু সে বসে থাকবে না। সেউ আপনাকে বাপ মা তুলে গালি দিবে। তাই অন্যকে গালি দেওয়াটাই বন্ধ করতে হবে।

৬. হাদিসঃ
সহীহ হাদিসে রয়েছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ মুসলিম কে গালি দেওয়া, মানুষকে ফাসিক বানিয়ে দেয় এবং তাকে হত্যা করা হচ্ছে কুফরী"
সুত্রঃ বুখারী ৫৯৭৩, মুসলিম ৬৪

শিক্ষাঃ
তাই অনেকেই গালাগালি দেয় মজার ছলে বা আনন্দের ছলে কিন্তু তারা নিজের অজান্তেই যে বড় পাপ করে ফেলছে তা কিন্তু তারা জানছে না। এখন কিছু গালাগালি ট্রেন্ডি হয়ে গেছে যেমন কুত্তা, শয়তান, হারামী, হারামজাদা ইত্যাদি ইয়াং জেনারেশন খুব আনন্দের সাথে এই গালগুলা দিয়ে থাকেন। তাই আমাদের সবাইকে এই ব্যাপারটা নিয়ে বেশ সতর্ক থাকতে হবে যে আমাদের ছোট ভাই বোন বা ছেলেমেয়েরা এই ভুল গুলি করছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।

তাই জানতে হলে পড়তে হবে। শুনে মুসলমান না হয়ে সবাই পড়ে মুসলমান হোন।
(আমিন)

লেখক: মোঃ আমিনুল ইসলাম।
প্রিন্সিপাল অফিস,
পূবালী ব্যাংক লিমিটেড।

ঢাকা, ১০ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।