একি কাণ্ড সভাপতির: 'শিক্ষকের দাঁত ভাঙলেন ঘুষিতে'


Published: 2021-10-08 17:57:30 BdST, Updated: 2021-10-24 22:30:29 BdST

বগড়া লাইভ: একি কাণ্ড ঘটালেন স্কুল কমিটির সভাপতি। তিনি দাপুটে মানুষ বটে। তিনি সাহসিও বটে। তবে এলাকায় তাকে বদমেজাজি হিসেবেই চেনেন। তার সামনে কেউ কথা বলতে সাহস পান না। বগুড়া জেলার নন্দীগ্রামে সভার নোটিশ খাতা ছিঁড়ে ফেলার জের ধরে এক স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির ঘুষিতে আরেক স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের ৩টি দাঁত ভেঙে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই শিক্ষকের নাম সাজ্জাদুল ইসলাম দুদু (৫৫)। অন্যদিকে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে দাবড়ে বেড়ান গোটা এলাকা। তিনি কোষাশ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। তার নাম শামীম হোসেন লিটন।

এনিয়ে এলাকায় চলছে নানান আলোচনা ও সমালোচনা। শুরু হয়েছে তোলপাড়। জানাগেছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার কুমিড়া পণ্ডিতপুকুর বাজারে ঘটনাটি ঘটে। আজ শুক্রবার ওই শিক্ষককে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ঘটনায় কোষাশ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শামীম হোসেন লিটনের বিরুদ্ধে নন্দীগ্রাম থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষক।

ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আহত সাজ্জাদুল ইসলাম দুদু উপজেলার ভর তেঁতুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। তার স্ত্রী মঞ্জুয়ারা বেগম একই উপজেলার কোষাশ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।

ওই স্কুলে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ম্যানেজিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে কমিটির সভাপতি শামীম হোসেন লিটন চার শিক্ষকের নিয়োগ নিয়ে উত্তেজিত হন এবং নোটিশ খাতা ছিঁড়ে ফেলেন। এরপর সভা শেষ না হতেই তিনি বিদ্যালয় থেকে চলে যান। মঞ্জুয়ারা বেগম জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে তার স্বামী সাজ্জাদুল ইসলাম দুদু কুমিড়া পণ্ডিতপুকুর বাজারে গিয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শামীম হোসেন লিটনের কাপড়ের দোকানে যান।

সেখানে তিনি লিটনের কাছে স্ত্রীর প্রতিষ্ঠানের নোটিশ খাতা ছিঁড়ে ফেলার কারণ জানতে চান। এ নিয়ে দুইজনের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। প্রথমে উত্তেজনা কম থাকলেও পরে লিটন গরম হয়ে যান। এক পর্যায়ে শামীম হোসেন মুখে ঘুষি দিলে দুদুর সামনের তিনটি দাঁত ভেঙে পড়ে যায়।

প্রথমে তাকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে শামীম হোসেন লিটন জানান, ‘আমার প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করায় সাজ্জাদুল ইসলাম দুদুর সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়েছিল।

তিনি (দুদু) উত্তেজিত অবস্থায় দ্রুত বের হওয়ার চেষ্টা করলে কলাপসিবল গেটে ধাক্কা লেগে তার দাঁত ভেঙে যায়। এখানে আমার কোনও দোষ নেই।’ তবে ওই এলাকার অনেকেই এ ব্যাপারে বলেছেন শামীমের ঘুষিতেই দাতঁ ভেঙ্গে গেছে। এলাকায় তোলপাড় চলছে। পুলিশ এ ব্যাপারে তদন্ত করছে। দোষী প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থ্যা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

ঢাকা, ৮ অক্টোবর (ক্যাম্পাসইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।