Azhar Mahmud Azhar Mahmud
teletalk.com.bd
thecitybank.com
livecampus24@gmail.com ঢাকা | মঙ্গলবার, ২১শে মে ২০২৪, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
teletalk.com.bd
thecitybank.com

ছাত্রলীগের দুই নেতার বিরুদ্ধে কর্মচারীর ছিনতাইয়ের অভিযোগ

প্রকাশিত: ১৭ মে ২০২৩, ০৩:৫১

অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ নেতা

রাবি লাইভ: ছাত্রলীগের দুই নেতার বিরুদ্ধে এক কর্মচারীকে হলে ডেকে ‘মারধর ও টাকা ছিনতাইয়ের’অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের ৩৬৪ নম্বর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিকেলে রফিকুল ইসলাম হল প্রাধ্যক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত দুজনের মধ্যে মাজহারুল ইসলাম সোহরাওয়ার্দী হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি ও রাবি শাখা ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি। অভিযুক্ত আরেক ছাত্রলীগ নেতা মোমিন ইসলাম শহীদ শামসুজ্জোহা হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। মাজহারুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনফরমেশন সায়েন্স অ্যান্ড লাইব্রেরি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ থেকে এবং মোমিন ইসলামী সংস্কৃতি বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করেছেন।

লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী বলেন, ‘আজ দুপুরে অসুস্থতার কথা বলে সোহরাওয়ার্দী হলের ৩৬৪ নম্বর কক্ষে ডাকেন মোমিন। তারপর সেখানে উপস্থিত হলে তাঁরা দুজন কক্ষের জানালা-দরজা বন্ধ করে মারধর করেন। একপর্যায়ে সঙ্গে থাকা ৩০ হাজার টাকাও নিয়ে নেন তাঁরা।’

তিনি আরও বলেন, ‘অচেতন হওয়ার পর আমার মাথায় পানি ঢেলে অর্ধচেতন অবস্থায় হলের সামনে রেখে যায়। পরে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আমাকে উদ্ধার করেন।’

অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা মোমিন ইসলাম বলেন, মেয়ের অসুস্থতার কথা বলে রফিকুল ইসলাম আমার কাছ থেকে মার্চ মাসে ৫ হাজার টাকা ধার নিয়েছিলেন। পরে আমি তার কাছে টাকা চাই। কিন্তু তিনি দিতে দেরি করছিলেন। আজ তাকে হলে ডেকে আনা হয়। পরে এ বিষয়টি তাকে বুঝিয়ে হল গেটে ছেড়ে দেওয়া হয়। মারধর ও টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

অভিযুক্ত আরেক ছাত্রলীগ নেতা মাজহারুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

সোহরাওয়ার্দী হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নিয়াজ মোর্শেদ বলেন, ‘বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে জানিয়েছি। তারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ‘বিষয়টি জেনে হল প্রভোস্টকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘ভুক্তভোগী রফিকুল ইসলামের অভিযোগের পর সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চেক করে তাকে আঘাত করা হয়েছে, তার সত্যতা পেয়েছি। আমরা দেখেছি তাকে যখন হলে নিয়ে আসা হয়েছে তখন সে সুস্থ ছিল। পরে হল থেকে বের হওয়ার সময় সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। আজ সন্ধ্যা ৭টায় প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভায় বিষয়টি উত্থাপন করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ঢাকা, ১৬ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)/এমজেড


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

সম্পর্কিত খবর


আজকের সর্বশেষ