Azhar Mahmud Azhar Mahmud
teletalk.com.bd
thecitybank.com
livecampus24@gmail.com ঢাকা | রবিবার, ১৯শে মে ২০২৪, ৫ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
teletalk.com.bd
thecitybank.com

রাবির হলে ছাত্রলীগ নেতার অবৈধ অবস্থান, নামিয়ে দিলেন প্রভোস্ট

প্রকাশিত: ১৭ জুন ২০২২, ০৫:৫৯

অবৈধভাবে থাকায় ছাত্রলীগ নেতার বিছানাপত্র বের করে দিচ্ছে হল প্রশাসন

রাবি লাইভ: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলে অবৈধভাবে থাকায় ছাত্রলীগ নেতার বিছানাপত্র বের করে দিয়েছে হল প্রশাসন। আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সন্ধ্যা ৭টায় প্রভোস্টের নির্দেশনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের সহ-সভাপতি শামীম ওসমানের বেড নামানো হয়।

জানা গেছে, শামীম ওসমান অবৈধ ভাবে হলে ৩বছর ধরে অবস্থান করছে। এরপূর্বেও রমজান মাসে হল ডাইনিংয়ে প্লেট ভাংচুরসহ আরো কিছু অভিযোগ রয়েছে শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে।

এর আগে, আজ দুপুরে অনাবাসিক ছাত্রকে কক্ষ থেকে নামিয়ে আবাসিক শিক্ষার্থীকে তুলে দিলে ক্ষুব্ধ হয়ে হল গেটে তালা লাগিয়ে দেয় শামীম ওসমান নামে ওই নেতা।

হল প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, শহীদ হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলে ৪২০ নম্বর কক্ষে ডাবল বেডে চারজন থাকে। তিন মাস পূর্বে থেকে শফিউল্লাহ নামে অনাবাসিক ছাত্র ওই কক্ষে উঠে। সে সাখাওয়াত হোসেন শাকিলের অনুসারি।

হল প্রশাসন থেকে ওই ছাত্রকে বারবার বলার পরেও না নামায় আজ সকালে প্রভোস্ট ওই শিক্ষার্থীকে নামিয়ে দেয়। রাকিবুল নামে এক আবাসিক শিক্ষার্থীকে তুলে দেয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে হল গেইটে দুপুরে তালা লাগিয়ে দেয় শামীম ওসমান।

হল গেইটে তালা লাগানোর বিষয়ে শামীম ওসমান ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, প্রোভোস্টকে জানিয়েই চারমাস পূর্বে ওই শিক্ষার্থীকে তোলা হয়েছিলো। প্রভোস্ট ও তাকে থাকতে বলেছিলো কিন্তু হঠাৎ হল প্রশাসন এসে তার বেড নামিয়ে দেয়। এ ঘটনা আমি শাকিলকে জানাই, তারপর সে আমাকে হল গেইটে তালা লাগাতে বলে।

হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন শাকিল ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, ওই ছেলেটা হতদরিদ্র পরিবারের। সে চারমাস আগে স্যারের সাথে কথা বলে ডাবল সিটের রুমে ত্রিপল বেড এনে থাকছে। কিন্তু তাকে আজ তার অনুপস্থিতে বেড নামিয়ে দেয়া হয়েছে। তার তো কোন অপরাধ নাই। মনে হচ্ছে প্রভোস্ট আমাদের ওপর সব চাপিয়ে দিচ্ছে। তবে আমি হল গেইটে তালা লাগানোর কথা বলিনি।

হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাঈম ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় আমি বা সভাপতি কেও জানেনা। আমাদের দ্বারা এরআগে এরকম ঘটনা ঘটেনি।

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ক্যাম্পাসলাইভকে, 'আমাদের হলে ১২০টা আসব ফাঁকা থাকা সাপেক্ষে এলটমেন্ট দিয়েছি। কিন্তু এ পর্যন্ত আমরা আমাদের মাধ্যমে ৭/৮জনকে তুলতে পেরেছি। তিন চারদিন আগেও এরকম ঝামেলা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন থেকে ২০১৯-২০ সেশন কোন শিক্ষার্থী না তোলার নির্দেশনা রয়েছে। আজ আমি সেই সেশনের এক অনাবাসিক ছাত্রকে নামিয়ে দিয়ে আবাসিক শিক্ষার্থীকে থাকতে দিয়েছি। কিন্তু দুপুরে শুনি হল গেইটে এক ছাত্রলীগ নেতা তালা লাগিয়ে দিয়েছে। শামীম ওসমান সে এই হলের অবৈধ ভাবে থাকছে সে আবার অন্য আরেকটি অনাবাসিক ছাত্রকে নামিয়ে দেয়ায় সে আবার হল গেইটে তালা লাগিয়ে দিয়েছে। '

তিনি আরও বলেন, 'প্রশাসনের কথার বাহিরে আমরা কিছু করিনা। কিন্তু ওরা বারবার আমাদের জ্বালাচ্ছে। অনাবাসিক কোন ছাত্র হলে থাকতে পারবেনা। এজন্য ওই ছেলেকে (শামীম ওসমানকে) বের করে দিয়েছি। আজকের এ ঘটনায় ওই ছেলের কাছে লিখিত নিব। তারপর ওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব।'

ঢাকা, ১৬ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//ওএফ//এমজেড


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

সম্পর্কিত খবর


আজকের সর্বশেষ