জাল সনদে মাতৃকালীন ছুটি নিলেন রাবি প্রফেসর


Published: 2020-10-07 17:56:44 BdST, Updated: 2020-11-25 14:45:30 BdST

রাবি লাইভঃ জাল সনদ দিয়ে মাতৃকালীন ছুটি নেয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের এক অধ্যাপকের বিরুদ্ধে। ঐ শিক্ষকের নাম প্রফেসর ড. সালমা সুলতানা। এর আগেও জাল সনদ দিয়ে ছুটি নেয়ার অভিযোগ রয়েছে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এদিকে গত ১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত ৫০১তম বিশ্ববিদ্যালয় নিন্ডেকেট মিটিংয়ে এই অভিযোগের বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

তদন্ত কমিটির বিষয়ে সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. আব্দুল আলিম বলেন, ‘ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রফেসর ড. সালমা সুলতানা মাতৃত্বকালীন ছুটিতে বাইরে ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে যোগদান করেছেন। উনার যোগদানপত্রটি এখনো গৃহীত হয়নি।

২৩ শে মার্চ জমা দিয়েছেন। ডিপার্টমেন্ট প্লানিং কমিটির মাধ্যমে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। এর জন্য একটি তদন্ত কমিটি হয়েছে এই সিন্ডিকেট মিটিংয়ে। প্রফেসর ড. গোলাম কবিরকে আহ্বায়ক করে প্রাণীবিদ্যা বিভাগের প্রফেসর ড. রেজিনা লজ ও সিন্ডিকেট সদস্য রুস্তম উদ্দিনকে নিয়ে এই তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

ইতিমধ্যে একটি মেইলের প্রিন্টকপি প্রতিবেদকের কাছে আছে, যেখান থেকে জানা যায়, সনদের বিষয়টি যাছাইয়ের জন্য ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অফিসিয়াল মেইল নাম্বার থেকে সনদটির ছবিসহ একটি মেইল করা হয় সনদে সাক্ষরকারী ডাক্তার আর ডেল এর কাছে।

প্রতিউত্তরে ডাক্তার ডেল মেইল করে বলেন, ‘এই সাক্ষর ও সনদটি আমার কিন্তু সালমা সুলতানা আমার কাছে কোন চিকিৎসা গ্রহণ করেনি’।

রেজিস্ট্রার দপ্তর সূত্রে জানা যায়, ড. সালমা সুলতানা গত ২০০৪ থেকে ২০১৬ সাল পযর্ন্ত মোট ২ বছর ০৬ মাস ০৭ দিন (শিক্ষাছুটি, স্যাবাটিক্যাল ছুটি ও অন্যান্য ধরণের) ছুটি ভোগ করেছেন। এরপর আবেদনের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গত ০১/০৪/১৭ থেকে ০১/০৩/১৯ পযর্ন্ত ৩ দফায় প্রফেসর সালমাকে ২ বছর ১ দিন পূর্ণবেতনে শিক্ষাছুটি দেয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুযায়ী শিক্ষক সুলতার আর কোন শিক্ষা ছুটি পাওনা না থাকায় বিভাগের প্লানিং কমিটি শিক্ষাছুটি বৃদ্ধির জন্য সুপারিশ না করায় স্বপদে বিভাগে যোগদানের জন্য গত ২০/০৫/১৯ তারিখে রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে স্থায়ী ও অস্থায়ী ঠিকানায় চিঠি পাঠানো হয়। প্রাপক না থাকায় স্থায়ী ঠিকানা থেকে চিঠি ফেরত আসে আর অস্থায়ী মালয়েশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ঠিকানা থেকে ঐ চিঠির জবাব দপ্তরে আসেনি।

আর তাই গত ২৩ জুলাই ২০১৯ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৯২তম সিন্ডিকেট সভার ৬৩ নং সিদ্ধান্ত মোতাবেক পত্র ইস্যুর তারিখ হতে দু‘মাসের মধ্যে স্বপদে বিভাগের যোগদানের জন্য অনুরোধ করা হয় শিক্ষক সালমাকে। নির্দ্ধারিত সময় ০১/০৪/১৭ তারিখের মধ্যে স্বপদে যোগদানে ব্যর্থ হলে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ থেকে অবসিত (টারমিনেট) হয়েছে বলে গণ্য হবে, এই মর্মে বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানী দৈনিকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়।

সূত্রে জানা যায়, প্রফেসর সালমা সুলতানা শিক্ষা ছুটি নেন মালয়েশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার জন্য কিন্তু তিনি বিশ্ববিদ্যালয়কে না জানিয়ে লন্ডনে অবস্থান করছিলন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক বলেন, উনি লন্ডনে থাকার কারণে যুক্তরাজ্যের গ্রীণকার্ড বা নাগরীকত্ব পেয়েছেন যেটি বিশ্ববিদ্যালয় এখন পযর্ন্ত অবগত নয়।

এ বিষয়ে প্রফেসর সালমা সুলতানার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। ফোন ধরার পর উনাকে জাল সনদে দিয়ে মাতৃকালীন ছুটি নেয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি এবিষয়ে কোন কথা বলবেন না বলে নিজ থেকে ফোন কেটে দেন।

ঢাকা, ০৭ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরআর//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।