লাঞ্ছিতের ঘটনায় রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষকের মামলা


Published: 2020-02-14 23:51:19 BdST, Updated: 2020-04-05 03:24:52 BdST

রাবি লাইভঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক মু. আলী আসগরকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের ঘটনায় এক শিক্ষকের নামে মামলা হয়েছে। হত্যার উদ্দ্যেশ্যে আঘাত করার অভিযোগে প্রফেসর খাইরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মতিহার থানায় তিনটি ধারায় এই মামলা (মামলা নং-১৯/৬৮) দায়ের করেন। মামলার বাদী একই বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর আলী আসগর।

শুক্রবার বিকেলে এক লিখিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি জানানো ওই মামলার বাদী।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রফেসর ড. আলী আসগর ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি বিভাগের প্লানিং কমিটির সদস্য অর্থাৎ নীতি নির্ধারক। সেকারণে বিভাগের সমস্ত বিষয় জানার অধিকার/এখতিয়ার তার আছেন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-১৯৭৩ অনুযায়ী ৩ মাস পর আগামী ০৯ মে তারিখে তিনি বিভাগের সভাপতির দ্বায়িত্ব গ্রহণ করনে। প্রফেসর মোঃ খাইরুল ইসলাম বিভাগের জুনিয়র শিক্ষক এবং প্লানিং কমিটির সদস্য নয়।

এজাহারের কপি

 

কিন্তু তিনি প্লানিং কমিটির সিদ্ধান্তে বারংবার হস্তক্ষেপ করেছেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-১৯৭৩ অনুযায়ী বিভাগের শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি শুধুমাত্র প্লানিং কমিটির এখতিয়ার।

এছাড়াও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, প্রফেসর আসগর গত আগস্ট/২০১৯ মাসে ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেছিলেন।

একই বিভাগের শিক্ষক বিবাদী প্রফেসর খাইরুল ইসলাম গত ০৬/১১/২০১৯ ইং তারিখ দুপুর ১২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রণী ব্যাংকের নিকট তাকে হুমকি দিয়ে বলেছিলেন যে, উক্ত রিট আবেদন প্রত্যাহার করা না হলে তাঁর প্রভাব খাটিয়ে প্রফেসর আলী আসগরের ক্ষতি করবেন তিনি। এ বিষয়ে আমি মতিহার থানায় ০৯/১১/২০১৯ ইং তারিখে একটি জিডি (জিডি নং-৩৮৮) করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের ডিন অফিসে ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রফেসর ড. আলী আসগরকে বিভাগের আরেক অধ্যাপক খাইরুল ইসলাম শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠে।

ঢাকা, ১৪ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।