জাবি: অপূর্ণাঙ্গ সিন্ডিকেটের হঠকারি সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি


Published: 2019-11-17 00:47:06 BdST, Updated: 2019-12-14 17:10:14 BdST

জাবি লাইভ: 'দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর' নামের একটি সংগঠন প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে জানিয়েছে নানান তথ্য। এতে বলেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বিদ্যমান পরিস্থিতি সম্পর্কে আপনারা সকলে অবগত আছেন। দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্রলীগের একাংশের হামলার মদদদাতা, গণধিকৃত ভিসির বিরুদ্ধে গত ৫ নভেম্বর যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গণজোয়ার নেমে আসে তখন ভিসি তার ক্ষমতার মসনদ টিকিয়ে রাখতে অসংখ্য সাধারণ শিক্ষার্থী ও এই ক্যাম্পাস চলমান থাকার সাথে যাদের জীবন-জীবিকা জড়িত তাদের কথা বিন্দুমাত্র বিবেচনায় না নিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ও হল ভ্যাকেন্টের ঘোষণা দেন।

আপনারা জানেন, যেই সিন্ডিকেট এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেই সিন্ডিকেট বর্তমান ভিসির একগুয়েমির জন্যই অপূর্ণাঙ্গ অবস্থায় রয়েছে, যেখানে নির্বাচিত কোন শিক্ষক প্রতিনিধি নেই। শিক্ষার্থীরা তাৎক্ষণিক ভাবে হল ভ্যাকেন্টের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে।

পরবর্তীতে জোর-জবরদস্তি, অসদাচরণ, নারী শিক্ষার্থীদের পরিবারের কাছে ফোন দিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমেপ্রশাসনের স্বৈরাচারী চরিত্র সকলের সামনে উন্মুক্ত হয়। আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ৩ দফা দাবি আদায়ে আন্দোলন করছি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় হবে দুর্নীতি ও সন্ত্রাস মুক্ত একটি বিশ্ববিদ্যালয়, তার জন্যেই আমাদের এই লড়াই। বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান অস্থিতিশীলতা ও স্থবিরতার দায় সম্পূর্নভাবেই বর্তমান উপচার্য ও উপাচার্যের অপকর্মকে আড়াল করবার চেষ্টায় লিপ্ত প্রশাসনের একটি ছোট অংশের।

আপনারা জানেন, বিদ্যমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা ভেবে আমরা প্রশাসনকে ৮ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছি। আমাদের দাবি, আগামী ২১ তারিখের মধ্যে হল খুলে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। ইতোমধ্যে, অধ্যাপক ড. এ এ মামুন সাক্ষরিত “অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং উন্নয়নের পক্ষে জাহাঙ্গীরনগর” নামক প্ল্যাটফর্মের প্রেস বিজ্ঞপ্তিটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে।

“দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর” -এর সাথে সুর মিলিয়ে তারা দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় সচল করারদাবি জানিয়েছেন। তাদের এই শুভবুদ্ধির উদয় হওয়াকে আমরা সাধুবাদ জানাই। তাদের এই আহ্বানের মাধ্যমে এটি পরিষ্কার যে শুধুমাত্র ভিসি ও তার দুর্নীতির দোসর গুটিকয়েক মানুষ ছাড়া সকলেই বিশ্ববিদ্যালয়কে সচল করার পক্ষে।

আমরা একই সাথে আশা করি বিশ্ববিদ্যালয় আঙ্গিনায় দুর্নীতি, সন্ত্রাসের মতো কোন ধরণের অন্যায়কে প্রশ্রয় না দিয়ে এর বিরুদ্ধে তারা তাদের অবস্থান ব্যক্ত করবেন এবং নিজেদের প্ল্যাটফর্মের নামকে স্বার্থক করে তুলবেন।

একই সাথে প্রশাসনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে কলঙ্কিত করা এই উপাচার্যকে প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানাই। সচল হওয়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হিসেবে আমরা অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামকে দেখতে চাই না।
আমাদের দাবিসমূহঃ
• নির্ধারিত সময়ের মধ্যে হল খুলে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত ও অগণিত শিক্ষার্থীর ভোগান্তি দূর করতে হবে।
• অবিলম্বে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর উপর হামলার মদদদাতা ও দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ভিসিকে অপসারণ করতে হবে।
• পুলিশ ও ভিসিপন্থী শিক্ষকদের উপস্থিতিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্রলীগের একাংশের ন্যাক্কারজনক হামলার সুষ্ঠু তদন্ত, হামলাকারী ও হামলার নির্দেশ দানকারীদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে।
• দুর্নীতি অভিযোগের তদন্ত প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করে তদন্তের ফলাফল জাতির সামনে উন্মুক্ত করতে হবে।
• আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা হুমকিরমধ্যে ফেলার সকল ধরণের ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে।
• নিজেদের স্বার্থে যারা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দিয়ে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি তৈরী করে ও পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় সচল করার দাবি করে শিক্ষার্থী বান্ধব সাজার চেষ্টা করে সেসকল বহুরূপীদের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলে সতর্ক থাকুন।

আমাদের এই বার্তা মিডিয়ার মাধ্যমে দেশের সকল মানুষের কাছে পৌঁছেদেবার অনুরোধ ব্যক্ত করছি।

১৬ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।