Azhar Mahmud Azhar Mahmud
teletalk.com.bd
thecitybank.com
livecampus24@gmail.com ঢাকা | বৃহঃস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল ২০২৪, ১১ই বৈশাখ ১৪৩১
teletalk.com.bd
thecitybank.com

ভোর রাত থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীদের সমাবেশমুখী মিছিল শুরু

প্রকাশিত: ২২ অক্টোবার ২০২২, ১৯:৫৯

ভোর রাত থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীদের সমাবেশমুখী মিছিল শুরু

খুলনা লাইভ: বিএনপির খুলনা বিভাগীয় গণসমাবেশকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই সমাবেশস্থলে যেতে শুরু করেছেন নেতাকর্মীরা। আজ শনিবার ভোরের আলো ফুটতেই দলটির নেতাকর্মীরা নগরীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সোনালী ব্যাংক চত্বরের সমাবেশ অভিমুখে রওনা হয়েছেন। অনেকেই রাতে সমাবেশস্থলে হাজার হাজার নেতা-কর্মী উপস্থিত হয়েছেন।

এদিকে দুই দিনব্যাপী ধর্মঘটের কারণে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় বিভিন্ন জেলা থেকে বিএনপি এবং দলটির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ট্রাক, মাইক্রোবাস ও ট্রলারে করে খুলনায় আসছেন। নগরীর পাওয়ার হাউজ মোড়, রেলস্টেশন এলাকায় মিলিত হয়ে সেখান থেকে মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে যাচ্ছেন তারা।

অন্যদিকে পূর্বঘোষণা অনুযায়ী, আজ শনিবার নগরীর সোনালী ব্যাংক চত্বরে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। দুপুর ২টায় সমাবেশ শুরুর কথা রয়েছে। তবে ভোর ৬টা থেকেই সমাবেশ মঞ্চ থেকে বক্তৃতা চলছে। গণসমাবেশে যোগ দিতে শুক্রবার রাতেই খুলনা পৌঁছেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা।

আজ সকাল ৬টায় ডাকবাংলো মোড়ে গিয়ে দেখা যায়, মঞ্চ তৈরির কাজ চলছে। সমাবেশস্থলের প্রায় ৩০০ মিটার এলাকাজুড়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা অবস্থান করছেন। সমাবেশ মঞ্চ থেকে শিববাড়ি মোড় পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে টানানো হয়েছে ১২০টি মাইক।

মঞ্চের নিচে বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা নেতারা বক্তব্য রাখছেন। নগরীর পাওয়ার হাউজ মোড়ে নেতাকর্মীদের নিয়ে অবস্থান করছিলেন ডুমুরিয়া উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মোল্লা মফিজুল ইসলাম। তিনি জানান, ভোর ৫টায় তারা খুলনায় এসে পৌঁছেছেন। কিছু সময়ের মধ্যেই মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলের দিকে রওনা হবেন।

এদিকে খুলনা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন জানান, সমাবেশ শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। সমাবেশের সময় থাকবে ড্রোন ক্যামেরার নজরদারি।

এছাড়া সমাবেশের শৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্ব পালন করবে ৪০০ স্বেচ্ছাসেবক। প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, নির্বাচনকালীন সরকার, জ্বালানিসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে নেতাকর্মী হত্যা, হামলা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে গণসমাবেশের কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহের পর আজ খুলনা বিভাগীয় শহরে দলটির তৃতীয় গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এভাবে বাকী বিভাগেরও চলবে সমাবেশ এমনটি জানান বিএনপি নেতা-কর্মীরা।

এদিকে গতকাল রাত ৮টার পরই নগরের কেডি ঘোষ রোডে বিএনপির দলীয় কার্যালয় এলাকায় অবস্থান নিতে থাকেন হাজার হাজার নেতা-কর্মী। তাদের মধ্যে অনেকেই রাতে থাকার জন্য বালিশ-কাঁথা, চাদর সঙ্গে নিয়ে আসেন। রাত ১০টায় দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিল নিয়ে শত শত নেতা-কর্মী সমাবেশস্থলে যান। এরপর সেখানে মঞ্চ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। দিবাগত রাত ২টার দিকে খুলনা মহানগরের সোনালী ব্যাংক চত্বরের সমাবেশস্থল এবং আশপাশের সড়কে দেখা যায়, কাঁথা-বালিশ, চাঁদর, গামছা, পলিথিন পেতে সারিবদ্ধভাবে শুয়ে-বসে আছেন জেলা-উপজেলা থেকে আসা নেতা-কর্মীরা। কেউ কেউ গল্প করছেন দলবেঁধে। কেউ আবার রাতের খাবার সেরে নিচ্ছেন। কাউকে কাউকে খিচুড়ি ও শুকনো খাবার খেতে দেখা যায়। তবুও সকলের মুখে হাসি খুশি।

তবুও সকলের মুখে হাসি খুশি

এদিকে সমাবেশকে ঘিরে খুলনায় চলছে দুই দিনের বাস-লঞ্চ ধর্মঘট। ফলে অনেকটা বিপাকে পড়েন সমাবেশে অংশ নিতে ইচ্ছুক অন্যান্য জেলা-উপজেলার নেতাকর্মীরা। বাস-লঞ্চ বন্ধ থাকায় যে যেভাবে পারছেন, কৌশলে আসছেন। নেতা-কর্মীদের অনেকে ট্রেনে, ট্রলারে, ইজিবাইক ভ্যানে করে এসেছেন এবং আসছেন। সবকিছু ছাপিয়ে সমাবেশে যোগ দিতে আসা নেতা-কর্মীদের অনেকের মধ্যে চাপা উত্তেজনা দেখা গেছে। কারণ এই সমাবেশকে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই মনে করছেন তারা।

এদিকে রামপাল কলেজ ছাত্রদলের সদস্য জিসান আহমেদ আহনাফ বলেন, বাধা উপেক্ষা করে খুলনায় এসেছি। চারটি পিকআপে করে আমরা পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মী জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত এসেছি। এরপর হেঁটে সমাবেশস্থলে রাত ১১টায় পৌঁছেছি। রাতে এখানেই অবস্থান করব। সমাবেশ শেষ করে বাড়ি ফিরব। সমাবেশ বাস্তবায়নে গঠিত মিডিয়া উপ-কমিটির আহ্বায়ক এহতেশামুল হক শাওন বলেন, শত বাধা উপেক্ষা করে বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে নেতা-কর্মীরা সমাবেশস্থলে এসেছেন। এখানেই তারা অবস্থান নিয়েছেন। তারা কাঁথা-বালিশ নিয়ে রাস্তায় শুয়েছেন, খাচ্ছেন খিচুড়ি, চিড়া, মুড়ি, বিস্কুটসহ শুকনো খাবার। এগুলোই তাদের খাবার। এহতেশামুল হক শাওন বলেন, একদিনের সমাবেশ দুইদিনে পরিণত হয়েছে। রাতে নেতাকর্মীদের চাঙা রাখতে বক্তৃতা করছেন স্থানীয় ও বিভিন্ন জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা।

ঢাকা, ২২ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিআইটি


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

সম্পর্কিত খবর


আজকের সর্বশেষ