নতুন বছরে যবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের ভাবনা ও প্রত্যাশা


Published: 2022-01-01 16:01:11 BdST, Updated: 2022-01-19 07:10:51 BdST

এ টি এম মাহফুজ: যবিপ্রবি লাইভ: ভোরের নতুন সূর্য মানেই নতুন স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দেওয়ার আরও একটা অপার সম্ভাবনা। ঠিক তেমনি কালের পরিক্রমায় বিদায় নিয়ে শুরু হয়েছে আরও একটি নতুন বছর। বিদায়ী বছরের দুঃখ-বেদনা, নৈরাশ্য, স্বজনহারা আর্তনাদ, স্থবিরতার, হতাশা ও বঞ্চনাকে পেছনে ফেলে ভাল কিছু প্রাপ্তির স্বপ্ন নিয়ে মানুষ বরণ করে নেবে নতুন বছরকে।

নতুন বছরে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের ভাবনা, অনুভূতি ও প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেছেন ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম এর ক্যাম্পাস প্রতিনিধি এ টি এম মাহফুজ।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নিহাল সিদ্দিক ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গত ২ বছরের করোনা মহামারী আমাদের যোগ্যতা আর প্রচেষ্টার ঘাটতিগুলো যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। তাই সার্বিক স্কিল ডেভেলপমেন্টে বেশি ফোকাস করতে চাই। এছাড়া দেশের ক্রমবর্ধমান উন্নতি অব্যাহত থেকে একটি সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ে উঠুক, নতুন বছরে এটাই আমার প্রত্যাশা।

বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী লাবনী আক্তার ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, নতুন বছরে মুক্তচিন্তা এবং সৃজনশীলতার প্রসার হোক।স্বার্থপরতাই দুর্নীতির সূচনা করে, তাই মানবতাই যেন হয় সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের বৈশিষ্ট্য। করোনার ধাক্কা কাটিয়ে সবে মাত্র শিক্ষা ব্যবস্থা পূনরায় দাড়াতে শুরু করেছে, এর ধারাবাহিকতার গতিতে ত্বরণ যোগ হোক।সকল বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং এর শিক্ষার্থী হিসেবে চাওয়া, বাংলাদেশে বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর কর্মক্ষেত্র আরও প্রসারিত হোক। সর্বপোরি, সকলে সুস্থ থাকুন, স্বাস্থ্য সচেতনতা বজায় রাখুন, সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা রাখুন। ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আল-মুজাহিদ আফ্রিদি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, নতুন বছরে সবারই বিশেষ চাওয়া-পাওয়া থাকে।তবে দিনশেষে যেটা দরকার সেটা হলো একজন প্রকৃত বন্ধু।জীবনে ন্যায়-অন্যায়,জয়-পরাজয়, বাঁধা-বিপত্তি আসবেই; তা মোকাবেলায় প্রয়োজন একটা সাপোর্ট, যার কাছে মনখুলে বলা যায় সকল বাঁধা-বিপত্তি ও তাড়নার বিষয়গুলি।আমরা জীবন জুড়ে শুধুই নিঁখুত হওয়ার চেষ্টা করি। এর জন্য অনেকে সম্পর্কও ত্যাগ করে। কিন্তু আমরা কি কখনও ভেবে দেখি সম্পর্কটা বড়, নাকি নিঁখুত হয়ে বেঁচে থাকাটা!

এসময় তিনি আরো বলেন, দিনশেষে যদি আপনার কাঁধে কাঁধ মেলানোরই কেউ না থাকে তাহলে হয়তো অর্জন কিয়দাংশ অবশ্যই মলিন।তাই বাঁচুন বাঁচার আনন্দে, বন্ধুদের সঙ্গে।এই বিশ্বাস রাখুন, দেখবেন জীবনটা হঠাৎই খুব সুন্দর হয়ে গিয়েছে। ফোন করে ফেলুন জীবনের সেরা বন্ধুটাকে। যদি সে পাশে থাকে তাহলে তাকে বুকে জড়িয়ে নিন। বেরিয়ে পড়ুন কোথাও, নিখাদ আড্ডা। ব্যস এটাই তো বন্ধুত্ব। সকলকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা রইলো।

ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আমরীন ইসলাম অতশীর ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, আবার বছর ঘুরে চলে এল নতুন বছর। সবারই একটা সুপ্ত ইচ্ছা থাকে নতুন বছর নতুন কোন রেজ্যুলেশন নতুন কিছু পরিকল্পনা ইত্যাদি। বিগত বছরের সফলতা-ব্যর্থতা, হাসি-কান্নার সংমিশ্রণে পার হয়ে এসে সবারই আশা থাকে নতুন বছরে ভাল কিছু হওয়ার। তবুও জীবনের এই নিয়মে উত্থানপতন অনিবার্য। প্রথমেই করোনার আতংক থেকে মুক্ত থাকতে চাই। এছাড়া নতুন বছরে মনুষ্যত্ববোধের সূচনা হোক সকলের মধ্যে।যাতে সমাজ, দেশ সুন্দর হয় এবং দূর্নীতিমুক্ত হয় আগামীদিনের পথ চলার প্রতিটা ক্ষেত্রে।

এআইএস বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ লনি শিকদার ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, নতুন বছরে একেকজনের প্রত্যাশা একেকরকম। তবে ভালো থাকার প্রত্যাশা থাকে সবার। সব ধরনের স্থবিরতা কাটিয়ে নতুন বছর সবার জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল আনন্দ।শিক্ষাঙ্গনে ফিরে আসুক সজীবতা,সশরীরে ক্লাসে ফিরতে চায় প্রতিটি শিক্ষার্থী। নতুন বছরে হতে চাই আরও পরিশ্রমী, আরও কর্মঠ, আরও উদ্যমী এবং মানবতার প্রশ্নে সর্বদা সোচ্চার।

এসময় তিনি কবিতার ভাষায় আরো বলেন, "এমন জীবন তুমি করিবে গঠন, মরিলে হাসিবে তুমি কাঁদিবে ভুবন।" এই ছন্দের মতোই সুন্দর একটা জীবন গঠনের স্বপ্ন নিয়ে পাড়ি দিতে চাই বহুপথ।সবশেষে বলতে চাই,ইতিবাচক মনোভাব আর দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়ে নতুনভাবে তৈরি হোক এক মানবিক সমাজ।

ইইই বিভাগের শিক্ষার্থী মুনতাসীর রহমানের ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, নতুন বছরে সুস্থ সুন্দর ও দূষণ মুক্ত পৃথিবীর প্রত্যাশায়। ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে জাতীয় জীবনও সমৃদ্ধিময় হোক। দুর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশের প্রত্যাশায় নতুন এক উদ্যমে এগিয়ে আসুক সবাই।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নাঈমুর রহমান ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, নতুন বছরে মনে প্রাণে চাই প্রিয় পৃথিবী থেকে বিদ্যমান মহামারী সম্পূর্ণরূপে নির্মূল হোক, পৃথিবীর সকল প্রাণী সুস্হ থাকুক। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই সূচনালগ্নে উন্নত দেশগুলোর কাছে চাওয়া, তারা যেন কার্বন নিঃসরণের হার যথোপযুক্ত হারে কমিয়ে ফেলে। এসব দেশগুলোর বৈশ্বিক উষ্ণায়ন কমানোর স্বার্থে নবায়নযোগ্য শক্তির উৎস অনুসন্ধানের পাশাপাশি প্লাস্টিক দূষণও কমানো উচিৎ, পুরো গ্রহজুড়ে শান্তির সুবাতাস বয়ে যাক।দেশ তথা সমগ্র পৃথিবীর স্বার্থে ভালো কিছু করতে চাই, আরো বেশি বেশি বই পড়তে চাই।সবশেষে সকলকে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা।

ঢাকা, ০১ জানুয়ারী (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।