42688

তেলের দাম ও ঘিয়ের দাম সমান হলে কি হয়?

তেলের দাম ও ঘিয়ের দাম সমান হলে কি হয়?

2021-05-31 14:10:06

মোঃ আমিনুল ইসলাম: হীরক রাজার রাজ্যে মন্ত্রী মশাই বাজারে ঘি কিনতে গিয়ে দেখেন যে ঘিয়ের দাম তেলের দামের চেয়ে ঢের বেশি। উনি ভেবে দেখলেন যে তেলের আর ঘিয়ের কাজ ত প্রায় একই তাহলে দুইটার দাম সমান করে দিলে কেমন হয় সবাই অল্প দামে ঘি খেতে পারবে।

মন্ত্রী রাজাকে বোঝাতে সক্ষম হলেন যে আসলে তেল ও ঘিয়ের কাজ তো প্রায় একই তাহলে দুইটার দাম এক করে দিলে কেমন হয়? মাথা মোটা মন্ত্রীর কথা শুনে রাজা কিছু না ভেবেই বলে দিলো রাজ্য জুড়ে ঢাক ঢোল পিটিয়ে জরুরী এলান জারী করে ঘোষনা দিয়ে দাও।
যেই কথা সেই কাজ।

সেই রাজ্যে এক জ্ঞানী পন্ডিত ছিলেন যার এক শিষ্য ঘোষনাটি শুনে গুরুজির কাছে এসে ঘোষনার কথা জানিয়ে দিলো। তখন জ্ঞানী পন্ডিত তার শিষ্যদের জানিয়ে দিলো যে এই রাজ্যে আর থাকা যাবে না। চলো সবাই পাততাড়ি গুটিয়ে অন্য রাজ্যে চলে যাই। তার শিষ্য বললো গুরুজি এটাই ত সুযোগ যে অল্প দামে ঘি খাওয়া যাবে। আপনারা যান আমি যাবো না। গুরুজি তাকে আর তেমন কিছু না বলে অন্য সবাইকে কে নিয়ে পাশের রাজ্যে চলে গেলো।

দাম কম পেয়ে সবাই আর তেল না খেয়ে শুধু ঘি খাওয়া শুরু করলো। ফলে অতি অল্প সময়ে সবাই মোটা হওয়া শুরু করলো। রাজ্যের মানুষের কর্মক্ষমতা কমে যেতে শুরু করলো। অর্থনীতি স্থবির হতে শুরু করলো। রাজা বেশ চিন্তিত হয়ে জরুরী সভার তলব করলো। যথারীতি মাথামোটা মন্ত্রী রাজাকে পরামর্শ দিলো যে রাজ্যে ঘি খাওয়া না কমালে মানুষ মোটা হতেই থাকবে তাই রাজ্যের সবচেয়ে মোটামোটা মানুষ কে শুলে চড়ালে ভয়ে মানুষ ঘি খাওয়া বন্ধ করে দিবে।

সেই মোতাবেক সারা রাজ্যে ঘোষনা দেওয়া হলো। লোভে পড়ে পন্ডিতের সেই শিষ্য তো ঘি খেয়ে অনেক মোটা হয়ে গেছে। তাই সে শুলে চড়ার যোগ্য হয়ে গেছে। শিষ্য তার গুরুর কাছে গিয়ে বিত্তান্ত সবিস্তারর বললে পন্ডিত বললো যে আমি ত আগেই বলেছিলাম যে এই রাজ্যে আর থাকা যাবে না কারন যে রাজা ঘি ও তেলের মধ্যে গুনগত পার্থক্য বোঝে না।

শিষ্য গুরুজির পায়ে পড়ে বিপদ থেকে বাচার পথ বাতলে দিতে বললেন। গুরুর মনটা একটু নরম হলে শিষ্যরে বললো যে তোমাকে যখন শুলে চড়ানো হবে তখন তুমি খুশিতে হাসবে রাজা জিজ্ঞেস করলে বলো যে, আজকে যে প্রথমে শুলে চড়বে সেই স্বর্গে যাবে এবং সেখানকার রাজা হবে। শিষ্যও যথারীতি তাই করলো। রাজা তাকে হাসতে দেখে অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো কেনো তুমি বিপদের মুহুর্তে হাসছো? তুমি ত এখন মারা যাবে! তোমার ত দুঃখ হওয়া উচিৎ। শিষ্য বললো আজকে যে প্রথমে শুলে চড়বে সে স্বর্গে গিয়ে রাজত্ব করবে। রাজা উত্তেজিত হয়ে বললো যে এতো বড় কথা! আমি রাজা বেচে থাকতে অন্য কেউ স্বর্গে যাবে তা হতে পারে না। তাই আমাকে সবার আগে শুলে চড়াও।

শিক্ষাঃ
১.গুনীজনের কদর করতে হবে যেমন তেলের ও ঘিয়ের মান ও দাম সমান হতে পারেনা।

২. চামচা বা অধীনস্তদের কথা যাচাই বাছাই না করে কোনো কাজ করলে রাজার মত স্বর্গে যাওয়া লাগতে পারে।

৩. গুনিজনের কথা মানার চেষ্টা করতে হবে।

৪. তেলবাজদের নিরুৎসাহী করতে হবে।

(অনেক বছর আগে ইংরেজীর অবসরপ্রাপ্ত একজন প্রফেসরের কাছ থেকে গল্পটা শুনেছিলাম তখন এতোটা গুরুত্ব দিয়ে শুনি নি কিন্ত সেই গল্পের যথার্থতা বাস্তব জীবনের সাথে মিলে যাচ্ছে। আমার মত করে লিখলাম শুধু)

লেখক: মোঃ আমিনুল ইসলাম,
প্রিন্সিপাল অফিস,
পূবালী ব্যাংক লিমিটেড

ঢাকা, ৩১ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

প্রধান সম্পাদক: আজহার মাহমুদ
যোগাযোগ: হাসেম ম্যানসন, লেভেল-১; ৪৮, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, তেজগাঁ, ঢাকা-১২১৫
মোবাইল: ০১৬৮২-৫৬১০২৮; ০১৬১১-০২৯৯৩৩
ইমেইল:[email protected]