42006

গ্রা‌মে ফির‌তে চান জ‌বি শিক্ষার্থীরা, ভিসি বরাবর স্বারকলিপি

গ্রা‌মে ফির‌তে চান জ‌বি শিক্ষার্থীরা, ভিসি বরাবর স্বারকলিপি

2021-05-04 20:42:58

জবি লাইভ: করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে বাংলাদেশে। দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনা ভাইরাসে সংক্রমণের হার ও মৃত্যর সংখ্যা। পরিস্থিতি ক্রমাগত ভয়ঙ্কর হতে চলেছে। এমন অবস্থায় সরকারের ডাকা লকডাউনে জগন্নাথ বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের (জবি) অনেক শিক্ষার্থী ঢাকাতে আটকা পড়েছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকার কারণে দুর্ভোগে প‌ড়ে‌ছেন তারা। দূরপাল্লার পরিববন বন্ধ থাকায় বাড়ি ফিরতে পারছেন না অনেকেই। অনিশ্চিত এই ঢাকার জীবন ছেড়ে বাড়ি ফিরতে চায় জবি শিক্ষার্থীরা। বাড়ি ফিরতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বাস প্রত্যাশা কর‌ছেন শিক্ষার্থীরা।

করােনা লকডাউনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহনের মাধ্যমে পুরান ঢাকায় আটকে থাকা জবি শিক্ষার্থীদের বিভাগীয় শহরগুলােতে পৌঁছে দেয়ার জন্য আবেদন করে মঙ্গলবার (৪ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা উপাচার্য বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করেছেন।

স্বারকলিপিতে বলা হয়, করােনা মহামারীর জন্য চলমান লকডাউন আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বর্ধিত করা হলেও ঈদের আগে আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ ঘােষণা করা হয়। আমরা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী মেসের ভাড়া পরিশােধ, খরচ চালানাের জন্য এই লকডাউনেও পুরান ঢাকায় থেকে টিউশনি করে গেছি একটা আশা ছিল, লকডাউন ছাড়লে তারা বাড়ি যাবে কিন্তু সে আশাটি এখন অধরা থেকে যাচ্ছে। বিগত কয়েকদিনে যার প্রাইভেট কার হাইসে বাড়ি গিয়েছেন তাদের সবারই প্রায় ১৫০০/২০০০/২৫০০ টাকা করে যাতায়াত খরচ লেগেছে।

পুরান ঢাকায় যারা টিউশনির জন্য এতদিন থেকে গেছে আমাদের। অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের পক্ষে এত টাকা বহন করে বাড়ি যাওয়া সম্ভব হবে না। মেসের ভাড়া, খাবার খরচ, যাতায়াত ভাড়া একসাথে সবগুলাে বহন করা সম্ভবপর হচ্ছে না অন্যদিকে, আমাদের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনাে হল নেই এবং এই লকডাউন ও ঈদে একাকী ঢাকা অবস্থান করাটাও শিক্ষার্থীদের পক্ষে অসম্ভব।

আরো বলা হয়, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে এই করােনা লকডাউন মহামারীতে পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহন দিয়ে পুরান ঢাকায় আটকে থাকা শিক্ষার্থীদের ৮ টি বিভাগীয় শহরগুলােতে পৌঁছে দেয়ার জন্য বিনীত মানবিক অনুরােধ রইল। করােনা লকডাউনে এই ক্রান্তিলগ্নে পরিবারের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করার জন্য আমাদের জবিয়ানদের জন্য এই মানবিক উদ্দ্যোগটি গ্রহণ করলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কাছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা চির কৃতজ্ঞ থাকিবে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, আমাদের অনেক বাস রয়েছে। আমরা এখন বাড়ি ফিরতে বাস পাচ্ছিনা। বাড়ি যাওয়া প্রয়োজন তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে যদি কয়েকটা রুটে বাস দেওয়া হত তাহলে আমাদের জন্য খুব ভাল হতো।

বাংলা বিভাগের শাহারিয়ার নামের একজন শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, "এখন এভাবে বাড়ি যাওয়া কষ্টকর। ঢাকায় থাকাও ঝামেলা। তাই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাস দিলে ভাল হতো। আমাদের উপকার হতো।"

নাম প্রকাশের না শর্তে একজন শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "মাস শেষে টিউশন করে ৪০০০ টাকা পাব। বাড়ি যেতেই দুই হাজারের উপরে লাগবে আবার ফিরতে লাগবে সেরকম টাকা এখন কিভাবে কি করব মাথায় আসছেনা।"

গ্রামের বাড়ি যশোর যেতে চাওয়া আরেক শিক্ষার্থী শাকিল ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, "আমরা সবাই যেন নিরাপদে বাড়ি পৌঁছাতে চাই। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ৭ম ব্যাচ শাহাদাত ভাইয়ের মত যেন আর কোন জবিয়ান এমন দূর্ঘটনার শিকার হয়ে অকালে প্রাণ হারাতে না হয় সেজন্য এই লকডাউনে আটকে থাকা পুরান ঢাকার অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের নিরাপদে বাড়ি পৌঁছানোর মানবিক বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য জবি প্রশাসনের নিকট বিনীত অনুরোধ হল, এতে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা চির কৃতজ্ঞ থাকিব!"

এ বিষয়ে করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানের পাশে জবিয়ান টিমের সংগঠক কনিক স্বপ্নীল ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "এখন ২৫০০-৩০০০ টাকা ভাড়া দিয়ে বাড়ি যাওয়া অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের জন্য অসম্ভব। তারা মেস ভাড়া দিবে কি? খাবে কি? কিভাবে বাড়ি যাবে? কর্তৃপক্ষের নিকট দৃষ্টি আকর্ষন করছি যেন শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ায়।"

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুলের প্রশাসক অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মাসুদ ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, "এটা করা আমার পক্ষে সম্ভব না উপাচার্য স্যার বললেই সম্ভব। উপাচার্য স্যার বললে পরিবহন সেবায় শিক্ষার্থীরা বাড়ি যেতে পারবে।"

এ ব্যাপারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য কামালউদ্দিন আহমদ ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "এটা আমার একার পক্ষে করা সম্ভব না। সবার সাথে বসে মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমার একক সিদ্ধান্তে এটা হবে না।"

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থীর আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ১৩ এপ্রিল গোপালগঞ্জ থেকে রংপুর পর্যন্ত একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস দেয়। এতে ৪০ জনেরও বেশি শিক্ষার্থী তাদের নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছায়।

ঢাকা, ৪ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআইএস//এমজেড

প্রধান সম্পাদক: আজহার মাহমুদ
যোগাযোগ: হাসেম ম্যানসন, লেভেল-১; ৪৮, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, তেজগাঁ, ঢাকা-১২১৫
মোবাইল: ০১৬৮২-৫৬১০২৮; ০১৬১১-০২৯৯৩৩
ইমেইল:[email protected]