41407

ফরিদপুরে লকডাউনের মধ্যেও নেই কোনো বিধি নিষেধ

ফরিদপুরে লকডাউনের মধ্যেও নেই কোনো বিধি নিষেধ

2021-04-11 16:54:46

লাইভ প্রতিবেদক: করোনা মহামারি সংক্রমণ হ্রাস কল্পে সরকার ঘোষিত সাত দিনের লকডাউনের শেষ পর্যায়ে ফরিদপুর জেলার সদর রোড, খাবাসপুর বাজার, পুরাণ বাসস্টান্ড এলাকা ঘুরে সেখানে করোনা নেই কোনো সচেতনতা। বাজারের প্রবেশদ্বারে নেই কোনো বেরিগেড।

রবিবার (১১ এপ্রিল) সরেজমিনে ফরিদপুরের সদররোড, খাবাসপুর, পুরাণ বাসস্ট্যান্ড সহ নানা স্থানে ঘুরে দেখা যায় সেখানে লকডাউনের কোনো উপস্থিতি নেই। লোকজন অবাধে চলাফেরা করছেন। মাস্ক পরিধানে নেই কোনো উৎসাহ। প্রশাসনের কোনো তদারকি নেই। সপিংমলে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

ফরিদপুরে সদরের এক বাসিন্দা রনজিত নাথ (৩৮) নামের এক ব্যক্তি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গত সোমবার থেকে সারা দেশে লকডাউন শুরু হলেও আমাদের এখানে লকডাউনের কোনো উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় না। লোকজনের মধ্যে করোনা নেই কোনো মাথা ব্যাথা। এখানে করোনা রোগী ও তেমন নেই বললেই চলে।

রাজেন্দ্র কলেজের সৌমিক ভট্টাচার্য (২৫) নামের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, গত বছরের মা'র মাস থেকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারেণে আমাদের কলেজ বন্ধ হয়ে যায়। প্রায়ই এক বছর হয়ে গেলেও পরিস্থিতি ভালো হয়নি। কলেজ বন্ধ হলেও আমরা এখানেই রয়ে গেছি। এখানকার মানুষের মধ্যে করোনা নিয়ে অত মাথা ব্যাথা নেই। বর্তমান বিশ্বের ও দেশের করোনা পরিস্থিতি আতংকের বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। প্রতিদিনই সংক্রমণের সনাক্তের হার ও মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে।সকলের উচিত যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা।

শফিক নামের (৪০) এক কাপড় ব্যবসায়ী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গত কয়েক দিন ধরে লকডাউনের ফলে সকল জরুরি সেবা ও নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান বাদে সব বন্ধ ঘোষণা করা হলে আমাদের এখানে এর প্রভাব পড়ে। এখন বিক্রি ও কম হচ্ছে। ক্রেতা কম আসছে।

এ্যানি নামের আরেক কলেজ শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, আগামী ১৪ তারিখ থেকে কড়াকড়ি লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। তাই সপিং করার জন্য বাজারে আসলাম। কিন্তু বাজারে প্রচুর ভিড়। নিউমার্কেট চকবাজারের প্রতিটি দোকানে মহিলাদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। সকলের চিন্তা একটাই সামনে রোযা তারউপর আবার লকডাউন পরে মার্কেট খোলবে কিনা তাই আগে বাগেই পোষাক আষাক কিনে নিলাম।

সোহাগ নামের একজন সিএনজি চালক ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, করোনার কারণে যাত্রী কম হওয়ায় ট্রিপ কম হচ্ছে। ভাড়া বেশি চাইলে যাত্রী রা দিতে নারাজ হচ্ছে। আবার স্টান্ডে অধিক চাদাও গুনতে হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে আমরা স্বাভাবিক জীবন যাপনের প্রত্যাশা করছি।

ফরিদপুর সদরের কোতয়ালি থানার একজন দায়িত্ব রত পুলিশ ইন্সপেক্টর বলেন, গত সোমবার থেকে ফরিদপুরে সরকার ঘোষিত নির্দেশ বলির নিয়মেই চলছে লকডাউন। সাধারণ জনগণের সুবিধা ও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমরা সবসময়ই কাজ করে যাচ্ছি।

ঢাকা, ১১ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আইএইচ//এমজেড

প্রধান সম্পাদক: আজহার মাহমুদ
যোগাযোগ: হাসেম ম্যানসন, লেভেল-১; ৪৮, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, তেজগাঁ, ঢাকা-১২১৫
মোবাইল: ০১৬৮২-৫৬১০২৮; ০১৬১১-০২৯৯৩৩
ইমেইল:[email protected]