teletalk.com.bd
thecitybank.com
[email protected] ঢাকা | বুধবার, ৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯
teletalk.com.bd
thecitybank.com

মা-বাবা প্রায়ই ঝগড়া করতেন: একারণেই নিরুদ্দেশ হন ৪ বোন

Samiya Mehjabin | প্রকাশিত: ৩ জুন ২০২২ ২১:৪১

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০২২ ২১:৪১

নিরুদ্দেশ হন ৪ বোন

কুমিল্লা লাইভ: ঘরে ঝগড়া লেগেই থাকতো। হর হামেশাই স্বামী-স্ত্রী ছোট খাট বিষয় নিয়েও ঝগড়া করতেন। এসব পছন্দ করতো তাদের সন্তানরা। জানাগেছে কুমিল্লায় বাবা-মায়ের ঝগড়ার কারণেই বাড়ি ছেড়ে ছিল মাদ্রাসা ছাত্রী ৪ বোন। কিন্তু এক সপ্তাহ পর মায়ের নিকট বড় মেয়ের একটি ফোন কলই নিখোঁজ রহস্যের জট খুলে দেয়। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় বৃহস্পতিবার (০২ জুন) পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কুমিল্লার একটি টিম তাদের উদ্ধার করে।

শুক্রবার পিবিআই কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি জানান পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক তৌহিদুল ইসলাম। উদ্ধার করা ওই চার বোনের বাড়ি নাঙ্গলকোট উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের কালেম গ্রামে। তারা ওই গ্রামের মজিবুল হকের মেয়ে। চার বোন হলো তাসনিম জাহান (১৭), মারজাহান (১৪), তাজিন সুলতানা (১২) ও মাইশা সুলতানা (৬)।

এদের মধ্যে তাসনিম উপজেলা সদরের আফসারুল উলুম কামিল মাদ্রাসার আলিম প্রথম বর্ষ, মারজাহান একই মাদ্রাসার দাখিল দশম শ্রেণি ও তাজিন সুলতানা ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী। সবার ছোট মাইশা নারুয়া তালিমুল কোরআন মডেল মাদ্রাসার শিশু শ্রেণিতে পড়ে। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কুমিল্লা নগরীর জাঙ্গালিয়া এলাকার হালিমা বেগমের (৫০) বসতবাড়ি থেকে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় নিখোঁজ চার বোনকে উদ্ধার করা হয়। চার বোনকে শুক্রবার সকালে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বড় বোন তাসনিম জাহান বলেন, ‘বাবা উগ্র মেজাজি স্বভাবের মানুষ। তিনি মায়ের সঙ্গে প্রায়শই ঝগড়া-বিবাদে লিপ্ত থাকতেন। ২৫ মে মা-বাবা ঝগড়া করেন। এতে আমরা ৪ বোন বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার হুমকি দেই। তখন বাবা তাদের (৪ বোন) বের হয়ে যেতে বলেন। পরে রাগ ভাঙাতে এসে নাতনিদের সঙ্গে করে নিয়ে যান নানি। এতেও তাদের রাগ না ভাঙলে পরদিন মাদ্রাসার নাম করে বাড়ি থেকে বের হয়ে নাঙ্গলকোটের ফতেহপুর এলাকায় চলে যাই আমরা।’

‘সেখান থেকে কুমিল্লা সুপার বাসে উঠে চলে যাই কুমিল্লার জাঙ্গালিয়া এলাকায়। সেখানে এক অটোরিকশা চালকের মাধ্যমে এক স্থানীয় হালিমা বেগমের (৫০) বসতবাড়িতে এক কক্ষের একটি বাসা ভাড়া নেই। যখনই আমরা বাসা ভাড়া নেই তখনই হালিমা বেগমের সন্দেহ হয়।’ যোগ করেন তাসনিম জাহান। পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক তৌহিদুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার তাদের মায়ের মোবাইলে একটি কল আসার পরই বিষয়টি পিবিআইকে জানানো হয়। পরে আমরা তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তাদের উদ্ধার করি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্তিত ছিলেন পিবিআইয়ের পরিদর্শক মনজুর আলম, হিলাল উদ্দীন, মোবারক হোসেন ও বিপুল চন্দ্র দেবনাথসহ বিভিন্ন মিডিয়ার সদস্যরা।

ঢাকা, ০৩ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি




আপনার মূল্যবান মতামত দিন: