কটাক্ষের মুখে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হলেন শিক্ষামন্ত্রী


Published: 2020-08-11 16:38:38 BdST, Updated: 2020-09-27 11:07:01 BdST

লাইভ ডেস্কঃ ক্লাস টেন পাশ শিক্ষামন্ত্রী! এমন কটাক্ষ শুনতে শুনতে বিরক্ত ভারতের ঝাড়খণ্ডের শিক্ষামন্ত্রী জগরনাথ মাহাতো। এত কম যোগ্যতা দিয়ে কী করে তিনি রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী হলেন তা নিয়ে প্রশ্ন সবার। লাগাতার টিটকিরির মুখে এবার নতুন করে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছেন মন্ত্রী। প্রমাণ করে দিয়েছেন, শেখার কোনো বয়স নেই।

শিক্ষার উন্নতির জন্য ভারতের এই রাজ্য নতুন মডেলে স্কুল খুলছে সরকার। সোমবার (১০ আগস্ট) সাংবাদিকদের সামনে সে বিষয়ে ঘোষণা করতে আসেন জগরনাথ মাহাতো। তখনই সকলে চমকে দিয়ে ঘোষণা করেন, তিনি স্কুলে ভর্তি হচ্ছেন আবার।

জানা গেছে, ৫৩ বছরের এই মন্ত্রী তার নিজেরই বিধানসভা, বোকারো জেলার দুমরি এলাকার নাবাডি হতে সরকারি ইন্টার-কলেজ দেবী মাহাতো মহাবিদ্যালয়ে আর্টস নিয়ে ভর্তি হয়েছেন। ভর্তি হওয়ার পরে জগরনাথ জানিয়েছেন, এবার তিনি মন দিয়ে পড়াশোনা করবেন। সেই সঙ্গে রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থাকেও আরও মজবুত করার চেষ্টা করবেন।

১৯৯৫ সালে চন্দ্রপুরার নেহেরু স্কুল থেকে সেকেন্ড ডিভিশনে মাধ্যমিক পাশ করেছিলেন জগরনাথ মাহাতো। তারপর আর লেখাপড়া করেননি তিনি। কিন্তু এতদিন পরে কেন এই সিদ্ধান্ত?

এ প্রসঙ্গে জগরনাথ বলেন, 'আমি যেদিন শিক্ষামন্ত্রীর পদে শপথ নিই, অনেকেই তখন বলেছিলেন, একজন ক্লাস ১০ পাশ মানুষ আর রাজ্যের শিক্ষার অগ্রগতি নিয়ে কী কাজ করবেন। সেই সমস্ত মানুষদের জবাব দেওয়ার জন্যই আমি আবার ভর্তি হয়েছি পড়াশোনা করতে। পড়াশোনার কোনো বয়স হয় না। আমি ভাল রেজাল্ট করে দেখিয়ে দেব।'

শুধু তাই নয়, নিজে ক্লাস টেনের বিদ্যা নিয়ে কী করে রাজ্যের শিক্ষা দফতর সামলাবেন, সে প্রশ্নের মুখে তাকে বারবারই পড়তে হয়েছে নানা সময়ে। তাই সব ভুলে গিয়ে পড়াশোনাটা আবার নতুন করে করবেন বলে ঠিক করেছেন।

পড়াশোনার পাশাপাশি চাষাবাদও করবেন বলে জানিয়েছেন জগরনাথ, সেই সঙ্গে মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব সামাল দেওয়ার পাশাপাশি মানুষের জন্য কাজও করবেন। সকলে যাতে তাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়, সেই চেষ্টাই করবেন বলে জানিয়েছেন জগরনাথ। সূত্র: দ্য ওয়াল।

ঢাকা, ১১ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।