দুই সিটি করপোরেশনে ২৭ মার্চ-২ এপ্রিল, ৫১ হাজার ১০৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে করোনায় রাজধানীর যে এলাকা ‘ডেঞ্জার জোন’


Published: 2021-04-11 22:50:38 BdST, Updated: 2021-05-10 01:36:29 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: থামছেই না করোনার ছোবল। ক্রমেই যেন মহামারির আক্রমন বাড়ছে। মানুষের মাঝে শঙ্কাও বাড়ছে দিন দিন। করোনায় রাজধানীর দুটি এলাকাকে ‘ডেঞ্জার জোন’ হিসেবে মনে করছে সিটি করপোরেশন। দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সংক্রমণ বৃদ্ধি ও শনাক্ত বিবেচনায় রাজধানীর দুটি এলাকাকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের (এমআইএস) তথ্যসূত্রে এ খবর জানিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) শনিবার ১০ এপ্রিল ।

ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের তথ্যমতে, রাজধানীর রূপনগর ও আদাবর এলাকায় করোনাভাইরাস শনাক্তের হার সবচেয়ে বেশি। কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছেন এমন মানুষের মধ্যে রূপনগরে ৪৬ শতাংশ এবং আদাবরে ৪৪ শতাংশ মানুষের করোনা পজিটিভ এসেছে। এই জোনের প্রতি প্রশাসনের রয়েছে আলাদা দৃস্টিভঙ্গি।

জানাগেছে উত্তর সিটির রূপনগর থানা এবং আদাবর থানা এলাকায় করোনার ‘ডেঞ্জার জোন’। ওই এলাকার যারা কোভিড পরীক্ষা করিয়েছেন তাদের মধ্যে আক্রান্তের হার অন্যান্য সব এলাকার চেয়ে বেশি। তাই পুলিশসহ সকল সংস্থাকে যথযথ ব্যবস্থা নিতে ইতোমধ্যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ঢাকার ১৭টি থানা এলাকার করোনাভাইরাস শনাক্তের হার ৩০ শতাংশের উপরে। এরমধ্যে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি ও শনাক্ত বিবেচনায় রাজধানীর দুটি এলাকাকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের (আইএসএস) করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার তথ্য বিশ্লেষণ করে শনিবার তা জানিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় গত ২৭ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত ৫১ হাজার ১০৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তা বিশ্লেষণ করেছে আইইডিসিআর।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় করা ১৪ হাজার ৩৩২টি নমুনা পরীক্ষার মধ্যে ৫ হাজার ১০৩ জনের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। শনাক্তের হার ৩৬ শতাংশ।

আর উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার ৩৬ হাজার ৭৭১টি নমুনা পরীক্ষা করে ১০ হাজার ৮৪৩ জনের সংক্রমণ ধরা পড়ে। শনাক্তের হার ২৯ শতাংশ।

তথ্য মতে, উত্তর সিটি করপোরেশনের রূপনগর থানা এলাকায় শনাক্তের হার ৪৬ শতাংশ এবং আদাবর থানা এলাকায় শনাক্তের হার ৪৪ শতাংশ, যা রাজধানীর মধ্যে সর্ব্বোচ্চ।

সাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, সারাদেশের করোনা রোগী শনাক্তের হারের সঙ্গে তুলনা করলে ঢাকায় শনাক্তের হার অনেক বেশি। রাজধানী ঢাকার ১৭টি থানায় শনাক্তের হার ৩০ শতাংশের উপরে, ২৩টি থানা এলাকায় ২০ শতাংশের উপরে এবং ৭টি থানা এলাকায় সংক্রমণের হার ১১ শতাংশের বেশি।

৩০ শতাংশের বেশি সেগুলো হল- মুগদা, গেণ্ডারিয়া, ধানমণ্ডি, হাজারীবাগ, নিউমার্কেট, চকবাজার, শাহ আলী, রামপুরা, তুরাগ, মিরপুর, কলাবাগান, তেজগাঁও, মোহাম্মদপুর, সবুজবাগ, মতিঝিল, দারুসসালাম ও খিলগাঁও।

সংক্রমণের হার ২১ থেকে ৩০ শতাংশের মধ্যে আছে এমন থানাগুলো হচ্ছে- শ্যামপুর, বাড্ডা, বনানী, উত্তরখান, শেরে বাংলা নগর, সূত্রাপুর, যাত্রাবাড়ী, পল্লবী, কাফরুল, ডেমরা, ওয়ারী, শাহবাগ, বংশাল, লালবাগ, শাহজাহানপুর, রমনা, কামরাঙ্গীরচর, ভাটারা, দক্ষিণখান, খিলক্ষেত, কদমতলী, উত্তরা পূর্ব ও পল্টন থানা এলাকা। অন্যদিকে শনাক্তের হার ১১ থেকে ২০ শতাংশের মধ্যে পাওয়া গেছে গুলশান, ক্যান্টনমেন্ট, তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল, তেজগাঁও, উত্তরা পশ্চিম, ভাষানটেক এবং বিমানবন্দর থানা এলাকা।

প্রসঙ্গত গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে দেশে নতুন করে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৫ হাজার ৩৪৩ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৮৩৭ জন। আসছে ১৪ এপ্রিল থেকে কঠোর লকডাউন ঘোষাণা করেছে সরকার।


ঢাকা, ১১ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।