আসছে কঠিন লকডাউন, সাবধান!


Published: 2021-04-09 15:37:25 BdST, Updated: 2021-05-15 19:41:07 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: আসছে কঠিন লকডাউন। বিষয়টি এখন আর সহনীয় পর্যায়ে নেই। চলে গেছে ধরা ছোয়ার বাইরে। বিশেষজ্ঞরা নানামুখি পরামর্শ দিয়েই কান্ত নন। তারাও তাদের সাধ্যমত সরকারকে নানানমুখি কাজ করতে উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন। সিটি করপোরেশন এবং মিউনিসিপ্যালিটি এলাকায় দুই সপ্তাহ পূর্ণ লকডাউনের সুপারিশ করেছে কোভিড মোকাবিলায় জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) কোভিড ১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) রাতে কমিটির ৩০ তম সভায় ওই সুপারিশের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

কমিটির পক্ষ থেকে সুপারিশ করে বলা হয়েছে, সারাদেশে ‍উদ্বেগজনকভাবে কোভিড ১৯ সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার বাড়ছে। সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে ১৮টি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। পরবর্তীতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকেও করোনা নিয়ন্ত্রণে বিধিনিষেধ দেয়া হয়। এগুলো সঠিকভাবে মানা হচ্ছে না, সংক্রমণের হার বাড়ছে। বিধিনিষেধ আরও শক্তভাবে অনুসরণ করা দরকার।

অন্তত দুই সপ্তাহের জন্য পূর্ব লকডাউন ছাড়া এটা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না বলে সভায় মতামত ব্যক্ত করা হয়। বিশেষ করে সিটি করপোরেশন এবং মিউনিসিপ্যালিটি এলাকায় ২ সপ্তাহ পূর্ণ লকডাউনের সুপারিশ করা হয়। দুই সপ্তাহ পর সংক্রমণ হার বিবেচনা করে নতুন সিদ্ধান্ত নেয়া যেতে পারে।

এছাড়া পরিস্থিতি বিবেচনায় বাংলাদেশেও টিকা কর্মসূচি সফল করার লক্ষ্যে ভ্যাকসিন সরবরাহ নিশ্চিত করতে সুনির্দিষ্ট নীতিমালার মধ্যে বেসরকারীভাবে ভ্যাকসিন আমদানী করে টিকাদানের সুপারিশও করেছে কোভিড মোকাবিলায় জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

এদিকে আজ সকালে সরকারি বাসভবন থেকে ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা জানান। ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার। বেড়েছে জনগণের অবহেলা ও উদাসীনতা।

এমতাবস্থায় সরকার জনস্বার্থে ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের জন্য সর্বাত্মক লকডাউনের বিষয়ে সক্রিয় চিন্তাভাবনা করছে। চলমান এক সপ্তাহের লকডাউনে জনগণের উদাসীন মানসিকতার কোনো পরিবর্তন হয়েছে বলে মনে হয় না বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় গত সোমবার থেকে সারা দেশে এক সপ্তাহের ১১ দফা কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে প্রজ্ঞাপন দেয় সরকার। পরে সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব সিটিতে গণপরিবহন চলাচল ও মার্কেট খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সরকারের তরফে।

কিন্তু এতেও তেমন কোন কাজ হচ্ছে না। তাই আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে আরো কঠোরভাবে লকডাইনের কথা ভাবছে সরকার। এক্ষেত্রে জনগনের সহায়তা চেয়েছেন মন্ত্রী।

ঢাকা, ০৯ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।