আজ বিশ্ব কচ্ছপ দিবস


Published: 2021-05-23 15:10:12 BdST, Updated: 2021-09-28 13:56:52 BdST

সামিয়া জামান: আজ বিশ্ব কচ্ছপ দিবস বা (World Turtle Day)। বিভিন্ন দেশে কচ্ছপ সংরক্ষণের জন্য দিনটি উদযাপন করা হয়ে থাকে। ২০০০ সালে আমেরিকান টরটয়েজ রেসকিউ নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা 'turtle rock' থিম নিয়ে ২৩ মে বিশ্ব কচ্ছপ দিবস পালনে উদ্যোগী হয়েছিল৷ সেই থেকেই আজ অব্দি দিনটি পালিত হচ্ছে৷

ধর্মীয় দিক থেকে হিন্দু ধর্মে কূর্ম অবতার ভগবান বিষ্ণুর দ্বিতীয় অবতার, যা কচ্ছপের ন্যায় রুপ। এছাড়া প্রাচীন গ্রিক দেবতা হার্মিস এর প্রতীক কচ্ছপ। প্রাচীন চীনে কচ্ছপের খোলস ভবিষ্যদ্বাণী করতে ব্যবহার করা হত। কচ্ছপ জলে-স্থলে উভয়স্থানেই বাস করে। বিশ্বে প্রায় ৩০০ প্রজাতির কচ্ছপ রয়েছে৷ যার মধ্যে অনেক প্রজাতিই এখন বিলুপ্তির পথে। পরিবেশের ভারসাম্য ধরে রাখতে কচ্ছপকে বাঁচিয়ে রাখা অতি প্রয়োজনীয়৷

উন্নয়নের নামে অনেক দেশে কচ্ছপের বিচরণের স্থান ধ্বংস করা হচ্ছে। বিভিন্ন রিপোর্টে কচ্ছপ ধংসের অন্যতম কারণ হিসেবে উঠে এসেছে সমুদ্র সৈকতের ধারে নগরায়ণ৷ আমাদের দেশে কচ্ছপের সংরক্ষণের ব্যাবস্থা নেই বললেই চলে। আমাদের সেইন্ট মার্টিন দ্বীপ এখন পুরোপুরি পর্যটন কেন্দ্র হয়ে গেছে, যেটি নিরীহ জীবটির জন্য পুরোপুরি অবসবাসযোগ্য হয়ে পড়েছে। গ্রাম বাংলায় শিকারের অন্যতম লক্ষ্যবস্তু হিসেবে পরিচিত এই কচ্ছপ।

ডিম পাড়ার জন্য সংরক্ষিত স্থানে পর্যটকদের আনাগোনাও কচ্ছপ সংকটের একটি বড় কারণ। সুন্দরবনের বনাঞ্চল ধ্বংসও এর মধ্যে রয়েছে। এছাড়া মাছ ধরা, নদী দূষন, উপকূলীয় নগরায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন এই বিষয়গুলো কচ্ছপ বিলুপ্তিতে বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আবহাওয়া ও জলবায়ুর পরিবর্তন কচ্ছপদের বাসস্থানের উপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলে। কচ্ছপ ও কাছিম সংরক্ষণের জন্য প্রথমত পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ পরিবেশকে আমরা রক্ষার পদক্ষেপ নিলে পরিবেশই আমাদের রক্ষা করবে। তার জন্য সঠিক ব্যাবস্থাপনা প্রয়োজন, দরকার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গুলোকে অনুপ্রাণিত করা ও সরকার থেকে তদারকি করা। পরিবেশ আইন গুলো সঠিক ভাবে সবার মেনে চলা। বিভিন্ন মাধ্যমে সচেতনতা তৈরি করা যেমন- প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকের মাধ্যমে এই বিষয়ে গল্প তুলে ধরে প্রজন্মের কাছে জীববৈচিত্র্যের সঠিক জ্ঞান তুলে ধরা।

প্রকৃতিতে সব প্রাণীর কিছু না কিছু গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে যেগুলো সবার মাঝে পৌছে দিতে ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে আমাদের কাজ করতে হবে। দুনিয়ার সব থেকে প্রাচীন জীব হিসেবে পরিচিত প্রাণীটি সংরক্ষণে প্রকৃতিতে প্রাপ্ত কচ্ছপ ধরে খাওয়া ও বিদেশে রপ্তানি করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করতে হবে এবং সঠিকভাবে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে তা বাস্তবায়ন করলে প্রাণীটির সংরক্ষণ সম্ভব হতে পারে।

লেখকঃ সামিয়া জামান।
শিক্ষার্থী, ভেটেরিনারি মেডিসিন বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ।

ঢাকা, ২৩ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএইচ//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।