ভোটারশূন্য ভোটকেন্দ্রে কড়া নিরাপত্তা, সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ


Published: 2021-01-16 13:12:46 BdST, Updated: 2021-06-16 23:12:40 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: ঢাকার সাভারে ভোটারশূন্য ভোটকেন্দ্রে কড়া নিরাপত্তা। খা খা করছে ভোট কেন্দ্র। এছাড়া কোথাও কোথাও সংঘর্ষ আবার কোথাও বোমাবাজির ঘটনাও ঘটেছে। আহত হয়েছেন আনসার সদস্যসহ অনেকেই। আবার কোথাও সরকারী দলের নির্যাতন ও নানান কারণে নির্বাচন বয়কটেরও খবর মিলেছে।

ভোটার খরায় ঢাকার উপকণ্ঠ সাভার পৌরসভায় নির্বাচন হচ্ছে উত্তাপহীন। শনিবার সকাল থেকে কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের তেমন আনাগোনা নেই। কিন্তু রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা। ভোটারের সংখ্যায় কোনো কোনো সংসদীয় আসনের চেয়েও বেশি ভোটারের পৌরসভা সাভার। আজ দ্বিতীয় ধাপে যে ৬০টি পৌরসভায় ভোট হচ্ছে তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোটার রয়েছেন সাভারে। এখানকার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৮৮ হাজার ৮৮ জন, কেন্দ্র রয়েছে ৮৪টি।

মেয়র পদে লড়ছেন আওয়ামী লীগের আবদুল গণি, বিএনপির রেফাত উল্লাহ এবং ইসলামী আন্দোলনের মোশারফ হোসেন। এছাড়া ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন এবং তিনটি ওয়ার্ডে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৯ জন।

এ ব্যাপারে ঢাকা জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার মো. মুনীর হোসাইন খান বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো। খারাপ কোনো খবর এখনও পাওয়া যায়নি। ভোটার উপস্থিতি ভালো হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

ককটেল বিস্ফোরণে আনসার সদস্য আহত:

এদিকে ফেনীর দাগনভূঞাঁ পৌরসভা নির্বাচনে গনিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরপর দুটি কককেট বিস্ফোরণ হয়েছে। এ সময় কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা আরিফুল নামের এক আনসার সদস্য আহত হয়েছেন।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুরো এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এদিকে ভোটকেন্দ্রের পাশে তারেক হোসেন ও সুজন নামের দুই ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছেন। ‘টেবিল ল্যাম্প’ প্রতীকের প্রার্থী কামরুল ইসলাম ক্লাইব বলেন, তাকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিল ‘উট পাখি’ প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা।

আনসার সদস্য আহত

 

জিয়াউল হক নামের আরেক প্রার্থী জানান, এ কেন্দ্রের আশপাশে অস্ত্রের মহড়া চলছে। অপরদিকে সুরুজ মিয়া নামের এক ভোটার অভিযোগ করেন, তাকেসহ তার বাবা-মাকে মারধর করা হয়েছে। কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন জানান, কেন্দ্রের পেছন থেকে দুর্বৃত্তরা ককটেল ছোড়ে। প্রিসাইডিং অফিসার গোফরান উদ্দিন বলেন, ঘটনার পর আইনশৃংখলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যদের সহায়তায় পরিস্থিতি শান্ত হয়েছে।

বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ওপর হামলা:

ঈশ্বরদী পৌর নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম নয়ন ও তার সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ ওঠেছে। আজ সোমবার সকালে ঈশ্বরদী ইসলামীয়া আলীম মাদ্রাসার ভোট কেন্দ্রে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

তবে বিএনপির এ অভিযোগ ‘গতানুগতিক’ দাবি করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী। তার দাবি, নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে গেছে বিএনপি। তাই তারা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করছে।

ঈশ্বরদী পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ভোট কেন্দ্রে এসে লাইনে দাঁড়িয়েছি। এ সময় দেখি কয়েকজন আওয়ামী লীগের কর্মী সমর্থক এসে কেন্দ্রের ভেতর ঢুকে তাকে কলার ধরে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দিলেন। তাকে হুমকিও দেয়া হয়— তিনি যেন ভেতরে আর না আসেন।

মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসির উদ্দিন এ ব্যাপারে অবগত নন বলে জানান। আজ শনিবার দ্বিতীয় দফায় নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলবে ঈশ্বরদী পৌরসভায়। সকাল ৮ থেকে শুরু হয়ে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটাররা তাদের নিজেদের রায় জানাচ্ছে।

ঈশ্বরদী পৌরসভায় মেয়র পদে ৩, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মেয়র প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইছাহক আলী মালিথা, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম নয়ন, ইসলামী আন্দোলন মনোনীত প্রার্থী মাসুম বিল্লাহ।

পৌরসভার মোট ভোটার রয়েছে ৫৫ হাজার ৫৬৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২৭ হাজার ২৪১ জন ও নারী ভোটার ২৮ হাজার ৩২৭ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৯টি এবং বুথ সংখ্যা ১৫২টি।

দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৪:

কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভার নির্বাচনে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে চারজন আহত হয়েছেন। শনিবার সকাল ৯টার দিকে পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের হারং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের পাশে এ সংঘর্ষ হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়াকে কেন্দ্র করে ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী পাঞ্জাবী প্রতীকের বিল্লাল হোসেনের সমর্থকদের সঙ্গে উট পাখি প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী নাজমুল হাসানের সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত চারজন আহত হন।

বিল্লাল হোসেনের ভাই ইব্রাহিম খলিল অভিযোগ করেন, উট পাখি প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা তাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় মহসিন নামে তাদের এক সমর্থককে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে মহসিনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। তবে এই অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে কাউন্সিলর প্রার্থী নাজমুল হাসানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

চান্দিনা থানার ওসি শামছুদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, ভোট কেন্দ্রে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে বলে শুনেছি। তবে আহতের বিষয়টি জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি। কেন্দ্রে সুষ্ঠু ভোট হচ্ছে এবং পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

ঢাকা, ১৬ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।