teletalk.com.bd
thecitybank.com
[email protected] ঢাকা | সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯
teletalk.com.bd
thecitybank.com
অধ্যক্ষ বললেন, বিষয়টি দেখছি...

ছাত্রীর গায়ে গরম চা ঢেলে দিলেন ইডেনের ছাত্রলীগ নেত্রী মীম

Md Akramuzzaman | প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৯:৪৯

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৯:৪৯

ছাত্রীর গায়ে গরম চা

ইডেন লাইভ: বর্বরতা। নিষ্ঠুর। পাষাণ্ড। এহেন কাজ ঘটাতে পারে এমনটি প্রাথমিকভাবে কেউ বিশ্বাস করেনি। কিন্তু ঘটনাটি সত্য। সহপাঠি/সহকর্মীকে নাজেহালের মাত্রা ছাড়িয়ে দেখিয়ে দিলেন সেই ছাত্রলীগ নেত্রী। ঘটনাটি নিয়ে ইডেন কলেজ ক্যাম্পাসে চলছে তোলপাড়। বলছিলাম ইডেন কলেজের এক ছাত্রলীগ নেত্রীর কথা। তার নাম আয়শা ইসলাম মীম। তিনি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। তার ব্যাপারে নানান অভিযোগ শোনা যায় ইডেন ক্যাম্পাসে। এবার অবৈধ শিক্ষার্থী রাখার প্রতিবাদ এক ছাত্রীর গায়ে গরম চা ঢেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রীভার অনুসারী সেই মীম।

ইডেন কলেজের শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী নিবাসের ৩১৩ নম্বর কক্ষে গতকাল সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। চলতি বছরের গত মে মাসে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি গঠনের পর থেকেই কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ অন্য নেত্রীদের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ আসতে থাকে।

এর আগে গত ২০ আগস্ট ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ার কারণে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা একটি ছাত্রীনিবাসের স্নাতক চতুর্থ বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থীকে তাদের রুম থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে। তামান্নার হুমকি দেওয়ার একটি অডিও রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। সেখানে এক ছাত্রীকে শাসিয়ে তামান্না বলেন ‌‘এক পায়ে পাড়া দিমু, আরেক পা টাইনা ধইরা ছিঁড়া ফেলমু’।

এই অডিও ফাঁস হওয়ার ঘটনায় বেকায়দায় পড়ে ক্ষমা চাইলেও পুষে রাখা রাগ কমেনি রিভার। তিন দিন পরই নতুন বিতর্কে জড়ান এই নেত্রী। এবার দুই ছাত্রীকে ৭ ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন ও নগ্ন করে ভিডিও ধারণ করে ভাইরাল করার হুমকির অভিযোগ উঠে ছাত্রলীগের সেই নেত্রীর বিরুদ্ধে।

বিতর্কের তালিকায় নতুন সংযোজন তামান্নার অনুসারী শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আয়শা ইসলাম মীম। তিনি ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও বর্তমানে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-দপ্তর সম্পাদক দেলওয়ার শাহজাদার স্ত্রী বলে জানা গেছে। এবারের ঘটনার সূত্রপাত, রিডিং রুমে অবৈধ ছাত্রীদের টেবিল রাখা নিয়ে।

কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থী ও ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকালে ইডেন কলেজের শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী নিবাসের রিডিং রুমে পড়তে যান কলেজ ছাত্রী ঐশী। রিডিং রুমের সামনে গিয়ে দেখেন প্রবেশমুখে একটি টেবিল বসানো। টেবিলটি বসিয়েছেন অন্য একটি মহিলা কলেজের অবৈধ কয়েকজন ছাত্রী, যারা মীমের ছত্রছায়ায় ইডেনের ছাত্রীনিবাসে থাকে। প্রবেশমুখে টেবিল বসানোর কারণে ভেতরে ঢুকতে অন্য ছাত্রীদের যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছিল। ফলে ঐশী ওই ছাত্রীদের টেবিল সরাতে বলেন। কিন্তু তারা তাতে ভ্রুক্ষেপ করেননি।

এরপর ভুক্তভোগী ছাত্রী তাদের বলে, ‘আপনারা অবৈধ হওয়ার পরও ইডেনের হলে থাকেন কেন? আবার টেবিল সরাতে বললেও সরান না।’ এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ওই ছাত্রীরা তাকে ‘দেখে নেওয়া’র হুমকি দিয়ে চলে যায়।

ওই দিন সন্ধ্যায় শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীনিবাসের ৩১৩ নম্বর কক্ষে বসে চা পান করছিলেন ঐশী। এ সময় ওই ছাত্রীদের নিয়ে তার কক্ষে আসেন অভিযুক্ত মীম। কেন তার মেয়েদের (অনুসারীদের) সঙ্গে তর্কে জড়াল এ নিয়ে ঐশীকে গালাগাল করতে থাকেন মীম। এক পর্যায়ে ঐশীর হাতে থাকা গরম চা তারই গায়ে ঢেলে দিয়ে চলে যায় মীম।

তার কিছুক্ষণ পর ওই ছাত্রলীগ নেত্রী আবার ঐশীর কক্ষে আসেন। এ ঘটনা বাইরে জানাজানি হলে ঐশীকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে গেছেন ওই ছাত্রলীগ নেত্রী।

ভুক্তভোগী জানান, মীম আপুর বহিরাগত মেয়েরা রিডিং রুমে যাতায়াতের পথে টেবিল রেখে সেখানেই পড়তো। তাদের বলেছি আপু, আমরা এখান দিয়ে যাওয়া-আসা করি, টেবিল সাইড করে রাখলে ভালো হয়। তারপরও তারা সাইড করেনি। সেকেন্ড টাইম বলার পর তারা চেঁচামিচি শুরু করে। তখন আমি তাদের বলি, অবৈধ মেয়ে হয়ে এত কথা বলেন কেন? এটা শুনে তারা আমাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়।

তিনি আরো জানান, সন্ধ্যায় আমি চা খাচ্ছিলাম। মীম আপু আমার রুমে এসে আমার গায়ের ওপর চা ঢেলে দিয়ে রুমে সবাইকে বের হয়ে যেতে বলে। আমি ভয় পেয়ে কাউকে বের হতে দেইনি। পরে তিনি আমার হাত ধরে মোচড় দেয়। এতে আমার হাত মচকে যায়। আমি ম্যামদের বিষয়টি জানিয়েছি। তারা বিষয়টি দেখবে বলে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত আয়শা ইসলাম মীম বলেন, আমার একজন মেয়ের (অবৈধভাবে থাকা ছাত্রী) সঙ্গে লিগ্যাল একজনের কথা কাটাকাটি হয়েছে। এর বেশি কিছু হয়নি। গরম চা ঢেলে দেওয়ার মতো কিছু ঘটেনি।

ইডেন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য বলেন, আমরা ঘটনা শুনেছি। অভিযোগ প্রমাণিত হলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা সবসময় অন্যায়ের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। এবারও যদি প্রমাণিত হয় তাহলে অবশ্যই ওই নেত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএ//এমজেড


আপনার মূল্যবান মতামত দিন: