Azhar Mahmud Azhar Mahmud
teletalk.com.bd
thecitybank.com
livecampus24@gmail.com ঢাকা | বৃহঃস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল ২০২৪, ১১ই বৈশাখ ১৪৩১
teletalk.com.bd
thecitybank.com
পাচ্ছেন শাস্তি...

জবি শিক্ষার্থী উত্তরপত্রে লিখলেন ‘মন ভালো নেই’

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২২, ০০:৩৭

 ‘মন ভালো নেই’

জবি লাইভ: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী উত্তরপত্রে লিখলেন ‘মন ভালো নেই’। এ কারণে ওই শিক্ষার্থীকে শাস্তির মুখোমুখি হতে হচ্ছে। পরীক্ষার উত্তরপত্রে ‘মন ভালো নেই’ কথাটি লিখে বিভাগীয় তদন্তের মুখে পড়েছেন ওই শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার ইংরেজি বিভাগের প্রথম সেমিস্টারের এক শিক্ষার্থীর ওই অতিরিক্ত উত্তরপত্রের প্রথম পৃষ্ঠার ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তা নিয়ে শুরু হয় তুলকালাম। চারদিকে হৈচৈ।

ওই শিক্ষার্থী উত্তর লেখার অংশে ‘স্যার আজকে আমার মন ভালো নেই’ লিখেছেন। উত্তরপত্রটি কোনো পরীক্ষার অংশ না হলেও এর বাম পাশে লাল কালিতে শূন্য নম্বর দিয়ে ‘বাতিল’ লিখে দেওয়া হয়েছে বলে তথ্য মিলেছে।

জানাগেছে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া এ ছবি শিক্ষার্থীদের মধ্যে সমালোচনা ও হাস্যরস সৃষ্টি করলে প্রশাসন তৎপর হয়। ওই শিক্ষার্থীকে ডেকে পাঠানো হয়। জানতে চাওয়া হয় এর কারন। কেন তিনি পরীক্ষার খাতায় এসব লিখলেন জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই শিক্ষার্থী বলেন, তিনি টাইমলাইনে ফানি পোস্ট দিয়েছেন। পরে বুঝতে পেরে তিনি পোস্টটি ডিলিট দিয়ে দেন।

ওই শিক্ষার্থী আরও বলেন, বুঝতে পারেননি বিষয়টি এইরকম ভাইরাল হয়ে যাবে। ইনভিজিলেটর এর স্বাক্ষর তিনি নিজে করেছেন। ওই শিক্ষার্থী বলছেন, মজা করে কথাটি লিখেছেন। এভাবে ছড়িয়ে পড়বে বুঝতে পারেননি। পরিস্থিতি বোঝার পর ছবিটি সরিয়ে ফেলেছেন। ইনভিজিলেটরের সইটাও নকল বলে নিশ্চিত করেছেন ওই শিক্ষার্থী ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান। 

ওই শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমি মজা করার জন্য এটা করেছিলাম, অতকিছু বুঝে করিনি। কয়েকদিন আগে ক্লাসরুমে খাতাটি পড়ে পায়। পরে তাতে সবকিছু লিখে ফেসবুকে পোস্ট করি। তখন অনেকে কাজটি ঠিক হয়নি জানিয়ে মুছে দেওয়ার পরামর্শ দেয়। বিষয়টি বুঝতে পেরে পোস্ট মুছে দিই। তবে এর মধ্যে অনেকে ছবিটি সংগ্রহ করে ফেসবুকে শেয়ার দিলে ছড়িয়ে পড়ে।’

এ বিষয়ে ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোঃ মমিন উদ্দীন বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমরা পরিষ্কারভাবে এখনও কিছু জানি না। ওই শিক্ষার্থীকে রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে দেখা করতে বলা হয়েছে।

তখন আমরা বিষয়টি সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জেনে পরবর্তী পদক্ষেপ নিবো। ভাইরাল হওয়া অতিরিক্ত উত্তরপত্রে ইনভিজিলেটর স্বাক্ষরটি ইংরেজি বিভাগের কোনো শিক্ষকের নয় বলে জানিয়েছেন বিভাগের চেয়ারম্যান। তবে সত্যতা প্রমাণ হলে শাস্তি পেতে হবে। এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোঃ ওহিদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি এখনও কিছু জানি না।

এদিকে এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এ কে এম আক্তারুজ্জামান বলেন, বিষয়টি নিয়ে বিভাগ যা বলবে তাই হবে। এছাড়া উত্তরপত্রটি আমি দেখিনি। যা শুনা যাচ্ছে তা যদি সত্যি হয় তাহলে দু:খজনক। কোন স্বাভাবিক মানুষ তা মেনে নিতে পারবে না। আমরা এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি। এ বিষয়ে কোন ছাড় দেয়া হবে না।


ঢাকা, ২৪ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

সম্পর্কিত খবর


আজকের সর্বশেষ