কাজের কথা বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস নিয়ে রিসোর্টে ঢাবির ২০ শিক্ষক!


Published: 2021-09-21 17:08:29 BdST, Updated: 2021-10-24 05:11:03 BdST

ঢাবি লাইভ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বাস নিয়ে অ্যাকাডেমিক প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করার কথা বলে ঘুরতে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ২০ শিক্ষকের বিরুদ্ধে। শিক্ষকরা গতকাল সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) উত্তরার দিয়াবাড়িতে অ্যাকাডেমিক প্রোগ্রামে যাওয়ার কথা বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত একটি মিনিবাস ব্যবহারের অনুমতি নেন। তবে কোনো ধরনের অ্যাকাডেমিক প্রোগ্রামে অংশ না নিয়েই তারা সাভারের একটি রিসোর্টে ঘুরতে গিয়েছেন বলে জানা গেছে।

নিয়ম অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ ছাড়া অন্য কাজে ব্যবহারের প্রয়োজন হলে কী কারণে ব্যবহার করা হবে, কত সময়ের জন্য ব্যবহার করা হবে, গাড়ির গন্তব্য কোথায় হবে- এসব বিষয় একটি রিক্যুইজিশন স্লিপে লিখে অনুমোদন নিতে হয়।

অভিযুক্ত শিক্ষকরা হলেন- ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ, আইন বিভাগের প্রফেসর ড. নকীব মোহাম্মদ নসরুল্লাহ, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর জাহিদুল ইসলাম সানা, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর মাহমুদুর রহমান, লোক প্রশাসন বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর আবু হোসেন মুহাম্মদ আহসান, অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান, আরবি বিভাগের প্রফেসর ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রভাষক মেহেদি হাসানসহ আরো কয়েকজন।

এ ছাড়া রয়েছেন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগের প্রভাষক কাজী মো. জামশেদ, একরামুল হুদা, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন বিভাগের প্রভাষক রেজাউল করীম, ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স সিস্টেম বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর নাজমুল হাসান, ক্রিমোনোলজি বিভাগের প্রভাষক এ বি এম নাজমুস সাকিব, উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর অমিয় সৃজন সাম্য, পপুলেশন সায়েন্স বিভাগের প্রভাষক জাকিউল আলম ও পরিসংখ্যান বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জাকির হোসেন। বাকি চারজন শিক্ষকের নাম জানা যায়নি।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাসের জন্য ইসলামের ইতিহাস বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর মাহমুদুর রহমান আবেদন করেন। আবেদনে অ্যাকাডেমিক প্রোগ্রাম উল্লেখ করে বাস উত্তরা পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার কথা লিপিবদ্ধ করেন।

এ ব্যাপারে ইসলামের ইতিহাস বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর মাহমুদুর রহমান জানান, ‘উত্তরার দিয়াবাড়িতে আমাদের একটি অ্যাকাডেমিক ওয়ার্কশপ ছিল। প্রথমে সেখানে গিয়েছি। পরে সাভারের বিরুলিয়া রিসোর্টে যাই। সেখান থেকে সন্ধ্যায় ক্যাম্পাসে ফিরে এসেছি।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল (সোমবার) সকাল ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল থেকে বাসটি যাত্রা করে। বাসটি সরাসরি সাভারের বিরুলিয়ায় অবস্থিত ‘কৃষিবিদ ওয়েস্ট ওয়ে’ রিসোর্টে গিয়ে পৌঁছায়। বাসটি দিয়াবাড়িতে যায়নি। ওই রাতে সাভার থেকেই বাসটি শিক্ষকদের নিয়ে ক্যাম্পাসে ফিরে আসে।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চেয়ে ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের প্রফেসর ড. আবু ইউসুফকে ফোন দিলে তিনি কথা বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘আমাকে কেন? আইন বিভাগের নকীব নসরুল্লাহ স্যার এটির আয়োজন করেছেন। আপনি উনার সাথে কথা বলেন।’

এদিকে প্রফেসর ড. নকীব মোহাম্মদ নসরুল্লাহ-এর সাথে চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস পেতে ওই শিক্ষকদের সহযোগিতা করেছেন শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক নিজামুল হক ভুঁইয়া। এ বিষয়ে তিনি জানান, ‘শিক্ষাসংক্রান্ত কাজে তারা উত্তরা ও ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবে, এটা জানতাম। সাভারের বিরুলিয়ায় যাওয়ার কথা না। শিক্ষাসংক্রান্ত কাজের কথা বলে যদি তারা অন্য কোথাও যায়, তাহলে কী আর করা যায়।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো আখতারুজ্জামানকে অবগত করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য না করে ফোন রেখে দেন।

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।