পুলিশের বাঁধায় পণ্ড আখতারের জন্য সংহতি সমাবেশ


Published: 2021-04-15 21:08:10 BdST, Updated: 2021-05-10 02:10:53 BdST

ঢাবি লাইভ: ছাত্র অধিকার পরিষদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি আখতার হোসেনকে গ্রেফতার এবং রিমান্ডে নেয়ার প্রতিবাদে সংহতি সমাবেশ পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বাঁধায় পণ্ড হয়েছে।

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্ন্যাক্স (ডাস) এর সামনে সংহতি সমাবেশ শুরু করে ঢাবি শাখা ছাত্র অধিকার পরিষদ। তবে সমাবেশ শুরুর কয়েক মিনিট পরেই পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যৌথভাবে বাঁধা দিয়ে ব্যানার ও মাইক ছিনিয়ে নেয় বলে অভিযোগ করেছেন সংহতি সমাবেশে উপস্থিত থাকা সংগঠনটির একাধিক নেতাকর্মী।

পরে টিএসসির জনতা ব্যাংকের সম্মুখে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন তারা। সমাবেশে ঢাবি শাখা ছাত্র অধিকার পরিষদের সহ-সভাপতি আসিফ মাহমুদ পুলিশের বাঁধার নিন্দা জানিয়ে বলেন, প্রতিবাদ জানানো আমাদের নাগরিক অধিকার। কিন্তু পুলিশ আমাদের সমাবেশে বাঁধা দিয়ে আমাদের সেই অধিকারকে খর্ব করেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে বিনা ওয়ারেন্টে একের পর এক শিক্ষার্থীকে এভাবে তুলে নিয়ে যাওয়ার যে ভয়াবহ সংস্কৃতি শুরু হয়েছে, সেটা সত্যিই ভয়ংকর।

গত মঙ্গলবার বিকেলে টিএসসির ভাসমান দোকানদারদের মাঝে ইফতার সামগ্রি বিতরণের পর চানখারপুলের দিকে যাওয়ার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের সামন থেকে আটক করে ডিবি পুলিশ। জানা যায়, সম্প্রতি মতিঝিলে ছাত্র অধিকার পরিষদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় দায়ের করা এক মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সংহতি সমাবেশে ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহবায়ক আরিফুল ইসলাম আদীব,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ সভাপতি আসিফ মাহমুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের ঢাবি শাখার সভাপতি রফিকুল আমিন,আইন বিভাগের শিক্ষার্থী শুভ্র আহসান, মাহফুজ আব্দুল্লাহ সহ প্রায় ২০ জন নেতকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

পরবর্তীতে সংক্ষিপ্ত সংহতি সমাবেশ শেষ করে যাওয়ার পথে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিববাড়ী এলাকায় বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি রফিকুল আমিন ও ছাত্র ফেডারেশনের নেতা মোত্তাকিন মুনের গতিপথ রোধ করে পুলিশ আটক করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন ছাত্র অধিকার পরিষদ কেন্দ্র কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আরিফুল ইসলাম আদীব।

তবে আটক করার পর জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান রাজধানীর শাহবাগ থানার ওসি মামুন-অর রশিদ।

তিনি বলেন, সংক্ষিপ্ত সংহতি সমাবেশ শেষ করে যাওয়ার পথে শিববাড়ী এলাকার মোড়ে আমরা 'সন্দেহভাজন' দুজন কে আটক করি কিন্তু পরবর্তী তে তাদের জিজ্ঞাসাবদের মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হয়।

এ বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, এই লকডাউনে যেখানে জীবন হুমকির মুখে সেখানে ক্যাম্পাসে যেন কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য আমরা সংহতি সমাবেশে বাঁধা প্রদান করি। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য ও জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ঠ বিষয়ে সকলের আরো সচেতন হওয়া উচিত।

ঢাকা, ১৫ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএম//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।