টাকার অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থী


Published: 2020-03-29 09:43:22 BdST, Updated: 2020-06-01 18:18:18 BdST

বশেমুরবিপ্রবি লাইভঃ ক্যাম্পাস থেকে বাড়ি ফেরার পথে গত ২৩ মার্চ সড়ক দুর্ঘটনায় ডান পায়ে এবং মাথায় মারাত্মকভাবে আঘাত পেয়ে হার্ট ব্লক অবস্থায় অর্থ ও চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে মেধাবী ছাত্র খায়রুল ইসলাম। সে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) বাংলা বিভাগের ২য় বর্ষে শিক্ষার্থী।

অসুস্থ খায়রুলের ফুফু হাসনা আক্তার কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, "ছোটোবেলা থেকে বাবা-মায়ের স্নেহ দিয়েই আমরা খায়রুলকে বড় করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করেছি। ডাক্তার বলছেন খায়রুলকে সুস্থ করে তুলতে হলে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রাখতে হবে। আমরা গরীব মানুষ, আইসিইউ রেখে চিকিৎসা করার মতো সাধ্য আমাদের নেই। টাকার অভাবে খায়রুলের সুষ্ঠু চিকিৎসা নিয়ে আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি।"

বাল্যকালে বাবা মারা যায় খায়রুলের, মা অন্যত্র সংসার করছে। আর বাবা-মা হারানো মেধাবী খায়রুল মুমূর্ষু অবস্থায় মহাখালী ইউনিভার্সাল মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে। গত ২৫ মার্চ থেকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউতে) জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে লাইফ সাপোর্টে রয়েছে। প্রতিদিন তার চিকিৎসা বাবদ খরচ হচ্ছে প্রায় ৫০ হাজার টাকা। যা তার অস্বচ্ছল আত্মীয়ের জন্য বহন করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধকল্পে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় খায়রুলকে আর্থিকভাবে সাহায্য করতে হিমসিম খাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন। তবুও থেকে নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ। ওই বিভাগের প্রভাষক আকলিমা খাতুন লিনা বলেন, এই পর্যন্ত খায়রুলের চিকিৎসা বাবদ যত খরচ হয়েছে তার ব্যবস্থা বাংলা বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ঐকান্তিক চেষ্টায় হয়েছে। যার সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষার্থী- শিক্ষকদের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণ রয়েছে।

তিনি আরো জানান, বেসরকারি হাসপাতালে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রেখে চিকিৎসা ব্যয়বহুল। আমরা যথাসম্ভব দ্রুত সরকারি মেডিকেলে তাকে স্থানান্তরের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছি। পাশাপাশি চিকিৎসা চলমান রাখতে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন সহ সমাজের বিত্তশালীদের এগিয়ে আসতে আহবানও জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের চলতি ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ শাহজাহান বলেন, ‘এইমুহুর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় আমাদের পক্ষে সহযোগিতা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হলে আমরা তাকে সহযোগিতা করবো।’

উল্লেখ্য, অসুস্থ খায়রুলের চিকিৎসা বাবদ বাংলা বিভাগের পক্ষ থেকে ৩২,০০০ টাকা পাঠানো হয়েছে। এমনটি নিশ্চিত করেছেন তার নিকটাত্মীয় জামাই মো. সিদ্দিকুর রহমান।

গরীব-মেধাবী শিক্ষার্থীর সাহায্য পাঠাতে-
আবিদ হাসান: ০১৯৭৬৬৭২৫১১ (বিকাশ)
হাসান: ০১৯১৮৬১৭৭৬৭২ (রকেট)
ইমন: ০১৭৮৪৪৮৪৮৫৪ (নগদ)

ঢাকা, ২৯ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআইএইচ//টিআর

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।