ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্য কোর্সের কার্যক্রম স্থগিত, কমিটি গঠন (ভিডিও)


Published: 2020-02-25 05:29:44 BdST, Updated: 2020-04-04 11:48:46 BdST

মিজানুর রহমান, ঢাবিঃ সান্ধ্যকালীন কোর্স। এনিয়ে চলছে নানান বিতর্ক। রয়েছে মোটা দাগের নানান প্রশ্ন। এক্ষেত্রে এক শ্রেণীর শিক্ষককের সুযোগ সুবিধা রয়েই গেছে। এর পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি থাকলেও পক্ষের শক্তি অনেক শক্তিশালী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্স বন্ধ করার সিদ্ধান্তে একমত হতে পারেন নি খোদ অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল।

আবারও নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে সান্ধ্য কোর্সের কোনো ধরণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি বা নতুন শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল।

আজ সোমবার বিকাল থেকে প্রায় সাড়ে ৬ ঘন্টা ব্যাপি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে সান্ধ্য কোর্স স্থগিত ও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ বিষয়ে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভা শেষে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে সাড়ে দশটার দিকে ব্রিফিং করেন ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। তিনি বলেন,'আলোচনা শেষে কমিটির সুপারিশগুলো গ্রহণ করা হয়েছে। সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে সুপারিশে একটু পরিবর্তন আনা হয়েছে। সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমাদকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটিতে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দিন, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক সদস্য হিসেবে থাকবেন। এই কমিটিকে আগামী পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

কিন্তু এই সময়ের মধ্যে সান্ধ্য কোর্সের কোনো ধরণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি বা নতুন শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর তা একাডেমিক কাউন্সিলে তোলা হবে। সেখানে জাতীয় স্বার্থ, বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্ষমতা সবকিছু মিলিয়ে দেখে নীতিমালার আলোকে এরপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'

তিনি আরো বলেন, ' কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির সভার সিদ্ধান্ত একাডেমিক কাউন্সিল গ্রহণ করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যমান বিশ্বস্ত, পরীক্ষিত, পরিশীলিত ও দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার আলোকে গ্রহণযোগ্য যে পরীক্ষা পদ্ধতি বলবৎ রয়েছে সেটিই বিদ্যমান থাকবে। কখনও কোনো সংস্কারের প্রয়োজন হলে একাডেমিক কাউন্সিল বা ডিনস কমিটি সংস্কার আনবে।'

ভিডিওঃ https://www.facebook.com/Campuslive24/videos/487107875288364/

এর আগে ডিনস কমিটি সার্বিক বিষয় বিবেচনাপূর্বক সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করা পর্যন্ত রেগুলার সংশ্লিষ্ট সকল প্রকার ভবিষ্যত কার্যক্রম (নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি) সাময়িকভাবে স্থগিত করা আবশ্যক বলে সুপারিশ করলেও ব্যবসা শিক্ষা অনুষদের ডিন কার্যক্রম স্থগিত না করার সুপারিশ করেন। তিনি নতুন নীতিমালা প্রণয়ন পর্যন্ত প্রােগ্রামসমূহ স্থগিত করা হলে ছাত্র-শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট বিভাগ বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে বলে জানান

সান্ধ্যকালীন কোর্স বহাল রাখার পক্ষে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহমদ বলেন, সান্ধ্য কোর্স নিয়ে গঠিত কমিটি কোনো জায়গায় সান্ধ্য কোর্স বন্ধের কথা বলেননি।সুপারিশে দুটা জিনিস বেরিয়ে আসছে।একটা হচ্ছে rationality (যৌক্তিকতা)আরেকটি হচ্ছে uniformity (সমন্বয়সাধন)।

কোর্সগুলো চালু রেখে এদুটি বিষয় নিশ্চিত করতে উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) ও ট্রেজারার মহোদয়ের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা যেতে পারে।সরকারের সাসটেইনেবল ডেভেলফমেন্ট কর্মসূচিতে ইনক্লুসিভ এডুকেশনের কথা বলা হচ্ছে।সেখানে শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিতের কথা বলা হচ্ছে।

তিনি বলেন,এই প্রোগ্রামকে বন্ধ করা উচিত হবে না।মাথায় সমস্যা হলে মাথা কেটে ফেলা কোনো সমাধান না।এই প্রোগ্রাম চলমান রেখে কিভাবে পরিমার্জন,পরিবর্তন করা যায় সেটা ভাবা উচিত হবে।এছাড়া তিনি দাবি করেন,ইউরোপ আমেরিকাতেও নিয়মিত কোর্সের পাশাপাশি প্রফেশনাল কোর্স রান করে।

তবে একজন শিক্ষক বলেন, পুরো হাউজ সান্ধ্য কোর্স রাখার পক্ষে। যারা বিপক্ষে তারা কোনো কথা বলছেন না। তাদের অনেকে চুপ রয়েছেন।শেষ পর্যন্ত এটা পরিমার্জন হতে পারে তবে বাতিল হবেনা।

সান্ধ্য কোর্সের বিপক্ষের শিক্ষকদের বক্তব্য দিতে তেমন সুযোগ দেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ করেন একাধিক শিক্ষক। তাদের দাবি ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী আর সান্ধ্য কোর্সের শিক্ষার্থী কখনও এক হতে পারে না। তাই আমরা এটার বিরোধিতা করছি।তবে নিজেদের বক্তব্য এখনও সভায় উপস্থাপন করতে পারেনি বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।

অপর একজন শিক্ষক জানান, প্রায় চারশ শিক্ষকের উপস্থিতি রয়েছে আজকের একাডেমিক কাউন্সিল সভায়। যেটা আগে দেখা যায়নি। সান্ধ্য কোর্স রাখতে শিক্ষকদের একাধিক কোরাম মেইনটেইনের কথাও শোনা গেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ১৩টি অনুষদের অধীন বিভাগ রয়েছে ৮৪টি। আর ইনস্টিটিউট রয়েছে ১৩টি। এর মধ্যে নিয়মিত প্রোগ্রামের বাইরে সান্ধ্যকালীন প্রোগ্রাম চালু রয়েছে ৩৫টি বিভাগ ও ইনস্টিটিউটে। এ হিসাবে সান্ধ্য কোর্স থাকা বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের তুলনায় না থাকা বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের সংখ্যা অনেক বেশি। সান্ধ্য কোর্স না থাকা বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের বেশির ভাগই সান্ধ্য কোর্স বন্ধের পক্ষে।

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।