বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে হত্যার পর লাশ সেপটিক ট্যাংকে!


Published: 2019-05-23 17:26:22 BdST, Updated: 2019-09-22 04:09:01 BdST

গাজীপুর লাইভ: এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রকে হত্যার পর লাশ সেপটিক ট্যাংকে ফেলে রাখার অভিযোগ উঠেছে। এর আগে তিনি বাসায় ফেরার পথে নিখোঁজ হন। ১২ দিন পর ইসমাইল হোসেন জিসান নামে ওই ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ছাত্র ছিলেন।

বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাথোরা এলাকার জনৈক জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় হাসিবুল ইসলাম (২৪) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

গাছা থানার এসআই ফোরকান জানান, গত ১২ মে ঢাকার শেরেবাংলা থানা এলাকা থেকে মোটরসাইকেলযোগে গাজীপুরে নিজ বাড়িতে আসার পে নিখোঁজ হন ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ছাত্র ইসমাইল হোসেন জিসান (২৪)। এ ঘটনায় পর দিন গাছা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন তার বাবা সাব্বির হোসেন শহিদ। এর চারদিন পর ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানায় আরেকটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

ঢাকার শেরেবাংলা থানার এসআই তোফাজ্জল হোসেন জানান, থানার জিডির সূত্র ধরে তদন্তকালে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে হাসিবুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। তিনি মধ্য কামারজুরি বাজার এলাকায় খাবার হোটেলের ব্যবসা করে এবং ওই এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের বাসায় ভাড়া থাকে। তার কক্ষ থেকে নিখোঁজ জিসানের মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

পরে আটক হাসিবুলের স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে ওই বাসার সেফটি টাংকি থেকে জিসানের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

গাছা থানার ওসি মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

ঢাকা, ২৩ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।