একদিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই প্রফেসরের মৃত্যু


Published: 2021-10-09 17:02:27 BdST, Updated: 2021-12-02 21:05:08 BdST

ঢাবি লাইভ: একদিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দুই প্রফেসর না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তারা হলেন, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) প্রফেসর মাহবুব আহসান খান (৫৪) এবং পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. এ. এম. হারুন-অর-রশীদ (৮৮)।

শনিবার (৯ অক্টোবর) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঈশা খান আবাসিক এলাকার বাসায় মারা যান প্রফেসর মাহবুব আহসান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর।

এদিকে একইদিন সকালে রাজধানীর একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন প্রফেসর হারুন-অর-রশীদ। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর।

প্রফেসর মাহবুব আহসান খানের মৃত্যুর বিষয়ে শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের প্রফেসর মো. মনিনুর রশিদ বলেন, তার হার্টে রিং পরানো ছিল। এর বাহিরে তার কোনো জটিল রোগ ছিল না। ধারণা করা হচ্ছে, ভোর ৪টা সাড়ে ৪টার দিকে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান। তার কর্মস্থল আইইআর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল মসজিদে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

দুই শিক্ষকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো. আখতারুজ্জামান।

এক শোকবাণীতে ভিসি বলেন, প্রফেসর ড. মাহবুব আহসান খান ছিলেন অত্যন্ত সৎ, বিনয়ী, নম্র ও সজ্জন চরিত্রের একজন শিক্ষক ও গবেষক। ইনস্টিটিউটের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর কাছে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন। শিক্ষা বিষয়ক ও শিক্ষা পদ্ধতির উন্নয়নে তার অনেক মৌলিক গবেষণা রয়েছে।

আরেকদিকে অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. এ. এম. হারুন-অর-রশীদের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে ভিসি বলেন, তিনি ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পদার্থবিদ। ছিলেন আদর্শবান, দেশপ্রেমিক, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িক মূল্যবোধ সম্পন্ন একজন নিবেদিত প্রাণ শিক্ষক ও গবেষক। এই গুণী শিক্ষকের অসংখ্য গবেষণা প্রবন্ধ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

ভিসি তার শোক বার্তায় উভয় মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাদের শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ঢাকা, ৯ অক্টোবর (ক্যাম্পাসইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।