ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে ছাত্রলীগ নেতার বিয়ে তারপর...


Published: 2021-10-15 12:01:13 BdST, Updated: 2021-12-02 21:19:53 BdST

নোয়াখালী লাইভ: একি করলেন ছাত্রলীগ নেতা। ধর্ষণ করে ধরা খেলেন। কোনা উপায়ন্তর না দেখে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে বাধ্য হলেও তিনি আরেক অপরাধে জড়িয়ে পরেছেন। সেই বিয়েটাও হয়েছে বাল্যবিয়ে। এই ঘটনাটি জেলার সীমানা পেরিয়ে এখন সারা দেশেই আলোচিত- সমালোচিত। সেই ছাত্রলগি নেতার নাম আবু সুফিয়ান (২৮)। তিনি নোয়াখালী জেলার চরজব্বর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে বাল্যবিয়ের অভিযোগ উঠেছে এখন। ধর্ষণের মামলা যেন না হয় তাই ষষ্ঠ শ্রেণির এক মাদরাসাছাত্রীকে (১৩) বিয়ে করেছেন ছাত্রলীগ আবু সুফিয়ান (২৮)। তিনি সুবর্ণচরের মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের চরলক্ষ্মী গ্রামের আবুল বাসারের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে এফিডেভিট করে ওই ছাত্রীর বয়স বাড়িয়ে বিয়ে করেন আবু সুফিয়ান। এই ঘটনার সত্যতা জানান মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন চৌধুরী।

তিনি জানান, ভিকটিম ও অভিযুক্ত ছেলে পরস্পর আত্মীয়। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে বৃহস্পতিবার দুপুরে তারা কোর্ট এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছে। চেয়ারম্যান আরও জানান, ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা-মা বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাতে মৌখিকভাবে ধর্ষণের অভিযোগ করলে তাৎক্ষণিকভাবে চরজব্বর থানার ওসি মো. জিয়াউল হককে ফোনে অভিযোগের বিষয়টি জানানো হয়। ওসি ভুক্তভোগীদের থানায় পাঠাতে বললে তাদের সেই পরামর্শ দেওয়া হয়।

এলাকাবাসী আরো সূত্র জানায়, মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) রাতে ছাত্রলীগ নেতা আবু সুফিয়ান ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া মাদরাসাছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ঘটনাটি ভুক্তভোগী কিশোরী তার পরিবারের সদস্যদের জানালে তারা স্থানীয় মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন চৌধুরীরর কাছে মৌখিক ভাবে অভিযোগ করেন।

পরে ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে ওই ছাত্রীকে বিয়ের করতে সম্মত হন আবু সুফিয়ান। কিন্তু বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে পুলিশ আসলে সবাই পালিয়ে যায়। পরে বৃহস্পতিবার কোর্টের মাধ্যমে বিয়ের এফিডেভিট করা হয়। এ বিষয়ে জানতে আবু সুফিয়ানের মোবাইল নম্বরে কল করলেও তিনি ফোন ধরেননি। মেয়েপক্ষেরও কেউ কথা বলতে রাজি হননি। তারা কেবল জানিয়েছে আমরা বিয়ে দিয়েছি।

ধর্ষণ ও বাল্যবিয়ের ব্যাপারে চরজব্বর থানার ওসি মো. জিয়াউল হক জানান, বাল্যবিয়ের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে অন্য কোনো বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন মারফত শুনলেও এটি যেহেতু থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। তাই ওই বিষয়ে আসামেদের কিছুই বলতে পারছি না। তবে এনিয়ে এলাকায় তুমুল আরোচনা ও নানান মুখরোচক কথা-বার্তা হচ্ছে।

ঢাকা, ১৫ অক্টোবর (ক্যাম্পাসইভ২৪.কম)//এমএম

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।