এক মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা


Published: 2021-04-12 15:03:56 BdST, Updated: 2021-05-10 01:53:09 BdST

রাজশাহী লাইভ: একজন পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ মিলেছে। তিনি একজন নার্সকে ফুসলিয়ে ধর্ষণ করেছেন বলে তার অভিযোগ। তবে, মেয়র বিষয়টি বরাবরই অস্বীকার করে চলেছেন। রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভার মেয়র বিএনপি নেতা আল মামুন খানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের এই অভিযোগ আনা হয়।

পুলিশ জানায়, ১২ এপ্রিল মধ্যরাতে পুঠিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন এক সিনিয়র নার্স। ওই নার্স পুঠিয়ার একটি ক্লিনিকে চাকরি করতেন। ভুক্তভোগী সিনিয়র নার্স জেলার দুর্গাপুর থানা এলাকার বাসিন্দা। বর্তমানে তিনি ঢাকার জাতীয় নাক কান গলা ইন্সটিটিউটে কর্মরত আছেন।

ওই নার্সের দাবি, ২০১৯ সালে তিনি পুঠিয়া সদরের ‘জনসেবা ক্লিনিকে’ কর্মরত থাকা অবস্থায় বর্তমান মেয়রের সাথে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের পর দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মন দেওয়া-নেওয়ার একপর্যায়ে তাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কও হয়।
সম্প্রতি তিনি বিয়ের জন্য মেয়র মামুনকে চাপ দেন।

কিন্তু ওই মেয়র বিয়ে করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। এরপর অবশেসে কোন উপায় না পেয়ে গত রোববার দুপুরে পর বিয়ের দাবিতে তিনি মেয়র মামুনের পুঠিয়া সদরের চেম্বারে হাজির হন। কিন্তু ওই নার্সকে নির্যাতন করে বের করে দেওয়া হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন। ভুক্তভোগীকে পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে পুঠিয়া থানার ওসি মো. সোহরাওয়ার্দী হোসেন জানান, ওই ঘটনায় নার্স নিজেই বাদী হয়ে মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। থানায় তার এজাহারটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। পুলিশ ওই মেয়রকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে ওসি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে ধর্ষণের অভিযুক্ত ওই মেয়রের সঙ্গে বার বার তার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ নিয়ে গোটা পুঠিয়া থানা এলাকায় নানান আলোচনা ও সমালোচনা চলছে।

ঢাকা, ১২ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।