চলে গেলেন রাধিকা মোহন চক্রবর্তী, শোকের ছায়া


Published: 2021-06-19 12:36:27 BdST, Updated: 2021-07-27 21:33:58 BdST

নেত্রকোনা লাইভ: চলে গেলেন রাধিকা মোহন চক্রবর্তী। তিনি ছিলেন একজন নিবেদিত প্রাণ মানুষ। গেল ১৭ জুন-২০২১ তারিখে পরলোক গমন করেন। তার কর্ম আর কীর্তি মানুষের মাঝে ভালবাসায় সিক্ত হয়ে থাকবে। এক এক করে চলে যাচ্ছেন গ্রামের অভিভাবক শ্রেণীর মানুষ। তিনি ছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষদের মাঝে একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব। গ্রামের উন্নয়নের প্রশ্নে উনি ছিলেন আপোষহীন। রাধিকা মোহন চক্রবর্তী ছিলেন মদন উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ও বর্ষীয়ান আওয়ামীলীগ নেতা । তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার শূণ্যতা পুরণ হবার নয়।

যখনই গ্রামে কোন সমস্যার সৃষ্টি হতো তখন তিনি ওই সমস্যার সমাধানে থাকতেন অগ্রগামী। থাকতেন সামনের সাঁড়িতে। মনিকা গ্রামের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে তার বাড়িতে বসতো বৈঠক। চা, পান ও নাশতা তো মামুলী ব্যাপার মাত্র। সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদের অফিস যখন গোবিন্দশ্রী চলে যায় তখন তা মামলা করে ফেরানোর জন্য উনি কি না করেছেন। মোটা অংকের চাঁদা দিয়েছেন, শ্রম, ঘাম দিয়ে প্রামাণ করেছেন গ্রামের প্রতি তার দায়িত্ব আর দরদের কথা।

ভারতে যাওয়ার নানান সুযোগ সুবিধা থাকা সত্বেও তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে রয়ে গেলেন চিরসবুজ এই গ্রামে। এটা তার মহানুভবতার জলন্ত প্রমাণ। মাতৃভূমির প্রতি দরদ আর ভালোবাসায় ছিলেন তিনি অগ্রগামি। উনি সার জীবন দুই টুকরো কাপড় পরিধান করে মহাত্বা গান্ধীর বেশে কাটিয়েছেন সাদামাটা জীবন। উনি ছিলেন পদমশ্রী এ ইউ খান উচ্ছ বিদ্যালয়ের আজীবন দাতা সদস্য। যখন স্কুলের বিল্ডিং ছিলো না তখন টিনশেড ঘর করা যথেষ্ট ব্যয় বহুল। ঠিক তখনই তিনি এগিয়ে আসলেন। যোগান দিলেন অর্থের।

কেবলই স্মৃতি: রাধিকা মোহন চক্রবর্তি, তার ছোট ছেলে রতিশ চক্রবর্তি ও রতিশের ছেলে

 

বাবু রাধিকা মোহন চক্রবর্তী উনি নিজ অর্থায়নে ঢেউ টিন সরবরাহ করে প্রথম টিনশেড ঘর করে দিলেন। যার জন্য প্রিয় এই বিদ্যাপিট আজীবন ঋণী উনার কাছে। উনার দ্বারা হিন্দু মুসলিম অনেক মানুষ উপকৃত হয়েছেন। যখন যেভাবে পেরেছেন থেকেছেন গ্রামের পাশে। অবশেষে তিনি গেলেনওপারে। উনাকে হারিয়ে আরো একজন উদার মনের মানুষ হারালো গ্রামবাসি। মৃত্যুকালে উনি ২ ছেলে, ২ মেয়ে স্ত্রীসহ অসংখ্য শুভাকাঙ্খী ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। উনার মৃত্যুতে বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ৪ নং গোবিন্দশ্রী ইউনিয়ন শাখা শোক প্রকাশ করেছে।

আজ বেলা সাড়ে ১১টায় সনাতন ধর্মের নিয়ম অনুসারে উনার শেষকৃতের কার্য্য সম্পাদন করা হয়েছে। এতে দলমত নির্বিশেষে গ্রামের সব শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

বাবু রাধিকা মোহন চক্রবর্তী বলতেন ধর্মের ভিত্তি হচ্ছে ‘সত্য’, তা বিশ্বে পরিব্যাপ্ত। সেই ধর্মে সংকীর্ণ প্রথার সমর্থন থাকতে পারে না। সে জন্য হিন্দুর ‘সম্ভবামি যুগে যুগে’ বাণীর মতো। মুসলমানের কোরআন ও হাদিসেও এক শ বছর পরপর প্রথাবদ্ধতা থেকে মুক্ত করবার জন্য একজন ‘সংস্কারক’-এর আবির্ভাবের কথা রয়েছে। কথাগুলো বলেছেন শাস্ত্র-অভিজ্ঞ নজরুল।

তাঁর আহ্বান ছিলো হিন্দু-মুসলমান সকলে মিলে মুক্ত আকাশের নিচে দাঁড়িয়ে বলুক ‘আমরা মানুষ’। তাহলেই ‘সৃষ্টির আদিম বাণী’ অবলম্বন করে ‘মহাজাতি’ জন্ম নেবে। সকলে মিলে ধ্বনি তুলুক ‘শুধু মানুষ বাঁচিয়া থাক ভাই, এদেশে শুধু চিরকিশোর মানুষেরই জয় হউক’ ।

এদিকে বাবু রাধিকা মোহন চক্রবর্তীর মৃত্যুতে রেনেসোঁ পাঠাগার ও সমাজকল্যাণ পরিষদের পরিচালক আজহার মাহমুদ, রেনেসোঁ পাঠাগার ও সমাজকল্যাণ পরিষদের সভাপিত বোরহান উদ্দীন (মাস্টার), সাধারণ সম্পাদক ফজলে এলাহী বাবু, একে মেমোরিয়াল সেন্টারের সভাপতি এবিএম মাহবুব উল আলম, সাধারণ সম্পাদক ও ৪ নং গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল ওয়াহাব এবং

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোবিন্দশ্রী ইউনিয়ন শাখার সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান (মাস্টার) সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম পৃথক পৃথক বিবৃতিতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

নেতৃবৃন্দ তার আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ঢাকা, ১৯ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।