চবিতে যথাযত মর্যাদায় ভাষা দিবস পালিত


Published: 2020-02-22 03:27:02 BdST, Updated: 2020-10-26 09:47:45 BdST

চবি লাইভঃ মহান ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সর্বোচ্চ মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পালিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন,বিভিন্ন ক্লাব,জেলা এসোসিয়েশন ফুল দেওয়ার পাশাপাশি দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন।

২১ ফেব্রুয়ারী(শুক্রবার) সকাল সোয়া আটটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘স্মরণ’ চত্বর থেকে এক প্রভাত ফেরির মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। এরপর তিনি সকাল সাড়ে আট টায় চবি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

অতঃপর উপাচার্য সকলকে সাথে নিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সকাল সাড়ে ৯ টায় বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় ‘ভাষা আন্দোলন ও বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার।

পরে উপাচার্য চবি জাদুঘরের উদ্যোগে আয়োজিত ‘দেশে দেশে বর্ণমালা ও একুশের সংকলন’ শীর্ষক ৭ দিন ব্যাপি (২১-২৭ ফেব্রুয়ারি) প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন।
এসময় উপাচার্য মাতৃভাষা বাংলা প্রতিষ্ঠায় জীবন উৎসর্গকারী ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, ভাষা আন্দোলন হচ্ছে বাঙালির স্বাধীনতা আন্দোলনের সূচনা পাঠ।

ভাষা আন্দোলনে আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি তার ভাষা-সংস্কৃতি আর পরিচয়ের উপলব্ধিতে যে নবজাগরণের সূচনা করেছিল। এরই ধারাবাহিকতায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিশ্ব মানচিত্রে প্রতিষ্ঠা করেছে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।

তিনি আরও বলেন, ১৯৫২ সালে বীর বাঙালিরা প্রাণ বিসর্জনের মাধ্যমে শুধু মাতৃভাষা বাংলাকেই প্রতিষ্ঠা করেছিল তাই নয়; বিশ্ব জনগোষ্ঠীর নিজ নিজ মাতৃভাষাকে অধিষ্ঠিত করেছে মর্যাদার আসনে। বিশ্বের প্রতিটি দেশ এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করছে। তাই এই দিনটি বাঙালিদের জীবনে শোকাবহ, গৌরবোজ্জ্বল, অহংকারে মহিমান্বিত চিরভাস্বর।

উপাচার্য বলেন, মাতৃভাষার সুরক্ষা, বিকাশ এবং অনুশীলন ছাড়া কোন জাতি অগ্রসর হতে পারে না। মাতৃভাষা বাংলাকে সঠিকভাবে হৃদয়ে ধারণ-লালন ও চর্চার মাধ্যমে সর্বস্তরে বাংলাভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করে বিশ্ব দরবারে সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে পারলেই ভাষা শহীদদের প্রতি সত্যিকারের ভালোবাসা ও সম্মান প্রদর্শন পূর্ণতা পাবে বলে উপাচার্য অভিমত ব্যক্ত করেন।

এছাড়া সকালে চবি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পন করে ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন চবি ছাত্রলীগ,চবি শিক্ষক সমিতি, অনুষদসমূহের ডিনবৃন্দ, হলসমূহের প্রভোস্টবৃন্দ, বিভাগীয় সভাপতি, ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ, প্রক্টর, চবি অফিসার সমিতি, চবি ক্লাব (ক্যাম্পাস ও শহর), চবি মহিলা সংসদ, সমন্বয় কর্মকর্তা বিএনসিসি, চবি ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজ, চবি কর্মচারী সমিতি, কর্মচারী ইউনিয়ন, সাংবাদিক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এ ছাড়াও কর্মসূচির অংশ হিসেবে ফজরের নামাজের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল মসজিদে ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের স্ব স্ব উপাসনালয়ে শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করে প্রার্থনা করা হয়। চ.বি. প্রশাসনিক ভবন ও হলসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত এবং কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।