চবি ছাত্রীকে হেনস্তার প্রতিবাদে মানবন্ধন


Published: 2020-01-21 23:14:09 BdST, Updated: 2020-03-29 18:50:14 BdST

চবি লাইভঃ জামানতের টাকা ফেরৎ চাইতে গিয়ে বাড়ির মালিকের দ্বারা হেনস্তা এবং হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলার হুমকির প্রতিবাদে মানবন্ধন ও মৌন মিছিল করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এই প্রতিবাদ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

গতকাল সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ ক্যাম্পাসের নিরীবিলি কটেজে জমাকৃত জামানত নিতে গেলে বাড়ির মালিক নুরুল ইসলাম কতৃক মারধরের শিকার হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। যার প্রতিবাদে মানবন্ধন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী নাইমুরের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন একই শিক্ষাবর্ষের মুনাববির। তিনি বলেন, এই একটা ঘটনায় আমাদের প্রত্যেকটা বোনের যেন সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। ক্যাম্পাসের বোনদের নিরাপত্তা আমরাই নিশ্চিত করতে চাই। বছরের শুরুতে ১৮ দিনে ২২ টা ধর্ষণের ঘটনা আসলেই দুঃখজনক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটনাটা ঘটলে হয়তো অনেক শিক্ষার্থীদের সাড়া পাওয়া যেত। আমাদের ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা শুধু ফেইসবুকের কমেন্টেই সীমাবদ্ধ।

বক্তব্য রাখেন যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ফারজানা আমিন সনিয়া। তিনি বলেন, আমাদের নিজের সাথে কোন দুর্ঘটনা না ঘটা পর্যন্ত আমাদের টনক নড়ে না। এই ঘটনা থেকেই আমরা সতর্ক হতে চাই। যেন পরবর্তীতে এমন ঘটনা আর না ঘটে।

ছাত্রলীগ কর্মী শিপন বলেন, ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রদের পাশে সবসময় ছিল। এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হলে আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বিশ্ববিদ্যালয়কে অচল করে দিবো।

এসময় শিক্ষার্থীরা মুখে কালো কাপড় বেঁধে প্রতিবাদ জানায়। পরে ২ মিনিট নিরাবতা পালন করে তারা শহিদ মিনার প্রাঙ্গণ থেকে মৌন মিছিল করে প্রক্টর অফিসে গিয়ে তাদের লিখিত অভিযোগ ও দাবি জানায়।

মুখে কালো কাপড় বেঁধে প্রতিবাদ

 

দাবিগুলো হলো:
১. অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আগামী ৩ দিনের মধ্যে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে হবে।
২. উক্ত বাসায় যতজন চবি শিক্ষার্থী আছে তাদের নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য আবাসিক হলে সিটের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং সেই বাসায় ভবিষ্যতে যেন কোন শিক্ষার্থী না ওঠে তার ব্যবস্থা করতে হবে।

৩. নারী শিক্ষার্থীদের আবাসনের সমস্যা শতভাগ দূর করতে হবে।
৪. বাড়ি মালিকদের নিয়ে ভাড়া এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে নির্দিষ্ট নীতিমালা তৈরি করতে হবে।
৫. চবি ক্যাম্পাস এর আশেপাশের যেসকল বাসায় চবি শিক্ষার্থীরা ভাড়া থাকেন সেসব বাসায় হোল্ডিং নম্বর, মালিকের বিবরণসহ পূর্ণাঙ্গ একটি ডাটাবেজ তৈরি করে প্রক্টরের কাছে সংরক্ষিত রাখতে হবে।

এবিষয়ে সহকারী প্রক্টর জিয়াউল হক পলাশ বলেন, যেসব বাসায় ছাত্রীরা থাকে সেসব বাসার মালিকের সাথে বসে একটি নীতিমালা গঠন করা হবে। শুধু মেয়েদের কটেজ না সব কটেজের মালিকের সাথে বসে একটা নীতিমালা গঠন করা হবে। এছাড়াও ঘটনাটা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের। অভিযোগটি গতকালকেই পুলিশের কাছে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ অভিযোগটি গ্রহন করেছে। তাই বিষয়টি তারা দেখছে।

ঢাকা, ২১ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।