বিভাগীয় শহরে চাকরির পরীক্ষা নেয়ার পরামর্শ‘একদিনে চাকরির ৫ পরীক্ষা, ভোগান্তিতে চাকরি প্রত্যাশিরা’


Published: 2021-10-08 14:22:21 BdST, Updated: 2021-10-24 21:13:41 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: চাকরির বাজার গরম। একেবারেই ছাড়া। তাও আবার সরকারী চাকরি! এক পদে শত থেকে সহস্রাধিক আবেদন এখন মামুলি ব্যাপার মাত্র। এ কারণে বিভিন্ন প্রার্থীকে মাঝে মধ্যে একদিনে ২/৩টিরও উপরে পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। এতে করে অনেকেই সেই সোনার হরিনের সাক্ষাতও পান না। যেনতেনভাবে পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। চট্টগ্রাম থেকে সকালে ১০ টায় ঢাকায় এসেছেন জীসুন। উদ্দেশ্য বিকেল ৩ টায় মিরপুরের একটি স্কুলে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিয়োগ পরীক্ষা দেওয়া। মিরপুর ১০ নম্বর সেকশনের আইডিয়াল স্কুলে পৌঁছে গেছেন ১১টার মধ্যে। বাকি সময় পার করতে ১০ নম্বরের ব্যস্ত ফুটপাতে খুঁজছেন বসার জায়গা। কিন্তু মিলেনি।

জীসুন জানান, সকালে আরেকটা পরীক্ষা ছিল। তবে, চট্টগ্রাম থেকে ট্রেন লেট করায় সেটা দিতে পারছি না। অন্যদিকে, মিরপুরের পরীক্ষার্থী এমরান সকাল ১০টায় খিলক্ষেত কুর্মিটোলা এলাকার একটি স্কুলে দিয়েছেন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিয়োগ পরীক্ষা। দুপুরে তিনি ছুটছেন শুক্রাবাদের আরেকটা স্কুলে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য। বিকেল ৩টায় সেখানে হবে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা অধিদপ্তরের (এনএসআই) নিয়োগ পরীক্ষা।

একইভাবে শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দেশের সরকারি-বেসরকারি ১৪টি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ পরীক্ষা দেওয়ার জন্য ছুটে বেড়াচ্ছেন চাকরিপ্রত্যাশীরা। হাতে পানির বোতল, ফাইল নিয়ে ঢাকার এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত ছুটছেন তারা। দুপুরে মিরপুরের বিভিন্ন স্কুলের সামনে চাকরিপ্রত্যাশীদের ভিড় দেখা যায়। এসময় অনেকেই তার ব্যকাতগত অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন।

এদিকে বিসিআইসি কলেজের সামনে চাকরিপ্রত্যাশী ফারুক জানান, ‘করোনার সময় অনেক কষ্টে আমরা আবেদন করেছি। আর এখন একদিনে ৫টা পরীক্ষা থাকায় দু-তিনটা পরীক্ষা দিতে পারছি না। আমাদের টাকা, সুযোগ দুটোই নষ্ট হচ্ছে। আবার চাকরির বয়সও শেষ হয়ে যাচ্ছে। স্কুলগুলোতো দুপুরের পর ফাঁকা থাকে। সপ্তাহের সাতদিনই পরীক্ষা নেওয়া যেতো।’ দিনাজপুর থেকে পরীক্ষা দিতে ঢাকায় এসেছেন সজীব আহমেদ। দুপুরে বিসিআইসি কলেজের সামনে তিনি বলেন, সকালে একটা পরীক্ষা দিলাম। এখন আরেকটা দেবো। প্রতিষ্ঠানগুলো চাইলে বিভাগীয় পর্যায়ে নিয়োগ পরীক্ষাগুলো নিতে পারতো।

একই দিনে একাধিক পরীক্ষা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চাকরির গ্রুপগুলোতে হতাশা প্রকাশ করেছেন অনেক চাকরিপ্রার্থী। আগামীতে চাকরিপ্রার্থীদের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সমন্বয় এবং পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন তারা।

এদিকে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খোলার পর নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া জন্য তারিখ ঘোষণা করেছে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে ১৪টি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ পরীক্ষা একদিনে, শুক্রবার। একদিনে একাধিক পরীক্ষা হওয়ায় বড়ধরনের সমস্যায় পড়েছেন চাকরিপ্রার্থীরা। এটা বিবেচনায় আনতে সংশ্লিস্ট মহলকে অনুরোধ জানিয়েছেন চাকরি প্রার্থীরা।

ঢাকা, ৮ অক্টোবর (ক্যাম্পাসইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।