ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ডে মনোনয়ন পেল ৭ ডিজিটাল উদ্যোগ


Published: 2019-11-01 22:21:58 BdST, Updated: 2019-11-21 10:11:17 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: বিশ্বের ডিজিটাল কনটেন্টের সব থেকে সন্তোষজনক স্বীকৃতি জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ডের মূল পর্বে অংশ গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ থেকে মনোনীত হয়েছে ৭টি সেরা উদ্ভাবনী ডিজিটাল উদ্যোগ। আগামী বছরের মার্চ মাসে ভিয়েনায় অনুষ্ঠিতব্য বৈশ্বিক পর্বে বিশ্বের ১৬০ দেশের পাঁচশ’র বেশি উদ্যোগের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বাংলাদেশী ডিজিটাল উদ্ভাবনগুলো। সেখানে নির্মাতারা ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ডের আন্তর্জাতিক পার্লামেন্টে দর্শকদের সামনে নিজেদের উদ্ভাবন উপস্থাপন করবে।

এমসিসি লিমিটেড ও স্টার্ট আপ বাংলাদেশ-আইডিয়া প্রকল্প যৌথ ভাবে ২০১৯ সালের ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড বাংলাদেশ পর্ব আয়োজন করে ৮টি বিভাগের ১০৭ টি উদ্যোগকে যাচাই করেন বিজ্ঞ বিচারক মন্ডলী। প্রতিটি বিভাগে একজন বিজয়ী ও রানার্স আপ নির্ধারণ করা হয়।

প্রতিবছরের মত এবারো শুধুমাত্র বিজয়ীরা বৈশ্বিক প্রতিযোগিতার পরবর্তী পর্বে অংশগ্রহণ করতে পারবে। চুড়ান্ত রাউন্ডের মূল্যায়নের জন্য ডিসেম্বরে তিউনিসিয়ায় মিলিত গ্যান্ড জুরি প্যানেল। এই উচ্চ পর্যায়ের জুরি প্যানেল ডাব্লিউএসএ ২০১৯ এর জন্য ৪০টি উদ্যোগকে চুড়ান্তভাবে মনোনায়ন দেবেন।

ডাব্লিউএসএ গ্লোবাল কংগ্রেস আগামী ৯ থেকে ১১ মার্চ ভিয়েনাতে অনুষ্ঠিত হবে। জাতিসংঘ প্রতিনিধি, আইসিটি মন্ত্রী, বেসরকারী খাতের এক্সপার্টদের উপস্থিতিতে ‘ওয়ার্ল্ড সামিট অ্যাওয়ার্ড গ্লোবাল কংগ্রেস অ্যাওয়ার্ড’ অনুষ্ঠিত হবে। এর এজেন্ডা প্রতিযোগিতা, অভিজ্ঞতা বিনিময়, উৎসাহ প্রদান, অ্যাসেম্বিলং ওয়ার্কশপ, উৎসাহব্যাঞ্জক কি-নোট উপস্থাপন, গ্লোবাল ও মাল্টিস্টেকহোল্ডার নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করা।

ডাব্লিউএসএ এর চেয়াম্যান পিটার এ ব্রুক বলেন, ‘আমরা সম্পূর্ণ ভিন্ন পরিবেশে বাস করছি, যেখানে মোবাইল বিপ্লবের মাধ্যমে, অ্যালগরিদমিক যুগের উত্থান ঘটেছে। যেখানে শ্রম, জমি, অর্থ এবং যন্ত্রপাতির চেয়েও ডেটা অনেকবেশি মূলধন হয়ে উঠেছে। এই পরিস্থিতিতে মানসম্মত স্থানীয় কনটেন্ট বড় বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। সোশ্যাল কানেকটিভির জন্য আইসিটি-এই মূলমন্ত্র বাস্তবায়নে কাজ করছে ডাব্লিউএসএ।’

বাংলাদেশে ডাব্লিউএসএ এর জুরি বোর্ডের সদস্য ও ন্যাশনাল এক্সপার্ট এমসিসি লিমিটেডের সিইও আশ্রাফ আবির বলেন, ‘বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম ডিজিটাল উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত করে বিশ্বের বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের বাজারে প্রবেশের সহায়তা দিতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ডাব্লিউএসএ ডিজিটাল কনটেন্টের সবচেয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈশ্বিক মূল্যায়নকারী সংস্থা যেখানে বিজয়ী হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশি তরুণরা তাদের উদ্ভাবনী পণ্যকে বৈশ্বিক পর্যায়ের নিয়ে যেতে পারবেন। বাংলাদেশে মোবাইল ভিত্তিক নানা উদ্ভাবনী ডিজিটাল উদ্যোগ যেভাবে বিকশিত হচ্ছে তা বৈশ্বিক পর্যায়েও সাফল্য অর্জনে সক্ষম হবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

যে সাতটি ডিজিটাল উদ্যোগকে মনোনিত করা হয় সেগুলো হচ্ছে-গভর্নমেন্ট অ্যান্ড সিটিজেন এনগেজমেন্ট ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ সার্ভিস অ্যাপ্লিকেশন প্ল্যাটফর্ম, হেলথ অ্যান্ড ওয়েল বিং ক্যাটাগরিতে লাইভ ব্লাড ব্যাংক, লার্নিং অ্যান্ড এডুকেশন ক্যাটাগরিতে মজার পাঠশালা, এনভায়রনমেনন্ট অ্যান্ড গ্রিন এনার্জিতে সুফলা, স্মার্ট সেটেলমেন্ট অ্যান্ড আরবানাইজেশনে জিও-ড্যাশ প্ল্যাটফর্ম, বিজনেস অ্যান্ড কমার্স ক্যাটাগরিতে হ্যালোটাস্ক লিমিটেড, ইনক্লুশন অ্যান্ড এমপাওয়ারমেন্ট ক্যাটাগরিতে সম্প্রতি নলেজ হাব। কালচার অ্যান্ড ট্যুরিজম বিভাগে কেউ বিজয়ী হয়নি।

আগামী নভেম্বরে জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড সার্মিট অন ইনফরমেশন সোসাইটির সহযোগিতায় ডাব্লিউএসএ গ্লোবাল কংগ্রেসে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। এতে ১৮০টি দেশের ডিজিটাল উদ্ভাবনের নির্মাতা অংশ নেবেন। তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে সমাজের উন্নয়নে অবদানের জন্য ২০০৩ সাল থেকে অস্ট্রিয়া ভিত্তিক এই সংস্থা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনকে সম্মানসূচক এই অ্যাওয়ার্ড দিয়ে আসছে।

জুরি বোর্ডে ইতালি, ব্রাজিল, তুরস্ক, ভারত, অস্ট্রিয়া, বাহারাইন, বুলগেরিয়া, ডেনমার্ক, ইজিপ্ট, জার্মানি, বাংলাদেশ, গুয়েতেমালা, কেনিয়া, ইরান, থাইল্যান্ড, কুয়েতসহ বিশ্বের ৫০ দেশের শীর্ষ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব জুরিবোর্ডে রয়েছেন। www.wsis-award.org এই ওয়েবসাইটে বিস্তারিত জানা যাবে।

 

ঢাকা, ০১ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।