ববিতে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রবর্তন, শিক্ষক সমিতির কৃতজ্ঞতা


Published: 2020-09-15 16:37:50 BdST, Updated: 2020-10-20 05:36:36 BdST

ববি লাইভঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নামে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন। সিন্ডিকেটের ৬৭তম সভায় সর্বসম্মতি ক্রমে সিদ্ধান্তটি গৃহিত হয় এবং মুজিব বর্ষের মধ্যেই কার্যক্রম শুরুর আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এমন একটি মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করায় ববি উপাচার্য প্রফেসর ড.মো. ছাদেকুল আরেফিনকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। বঙ্গবন্ধুর জীবন, কর্ম, রাজনৈতিক দর্শন ও মহান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষনা ও একাডেমিক কার্যক্রমকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষে “বঙ্গবন্ধু চেয়ার” প্রতিষ্ঠার এক সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন তাঁরা। ১৫ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) ববি’র শিক্ষক সমিতির এক বিবৃতিতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই কিন্তু তাঁর আদর্শ আমাদের চিরন্তন প্রেরণার উৎস। তাঁর নীতি ও আদর্শ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে পড়ুক।গড়ে উঠুক সাহসী, ত্যাগী ও আদর্শবাদী নেতৃত্ব – এ প্রত্যাশা করি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পাদনের মাধ্যমে দেশকে সোনার বাংলায় পরিণত করাই হোক মুজিববর্ষে আমাদের সকলের অঙ্গীকার।

১৯৭৫ সালের পর জাতির জনকের জীবন, কর্ম ও নীতি নিয়ে যে পরিমাণ গবেষণা হওয়ার প্রয়োজন ছিল তা খুব একটা হয়নি প্রতিক্রিয়াশীলদের চক্রান্তের কারণে। এ বিষয়ে এখনও তেমন উল্লেখযোগ্য কোন প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা নেই।

সুনির্দিষ্টভাবে বঙ্গবন্ধুর জীবন, নীতি ও কর্মের ওপর গবেষণা হওয়া প্রয়োজন এবং গবেষণার প্রচুর সুযোগও আছে। পরবর্তী প্রজন্মের প্রয়োজনে, ইতিহাসের প্রয়োজনে জাতির পিতাকে নিয়ে ব্যাপক গবেষণা হওয়া দরকার।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি বিশ্বাস করে “বঙ্গবন্ধু চেয়ার” প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গবেষণার যে দ্বার উন্মোচিত হলো তা আমাদের ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করবে, স্থায়ীত্ব দিবে এবং নতুন প্রজন্মের ইতিহাসবোধকে জাগ্রত করবে। তরুণ প্রজন্মের মনোজগতে বঙ্গবন্ধুর আধিপত্য যত বেশি হবে, তত বেশি উজ্জ্বল ও সুগম হবে অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা ও দ্রারিদ্র্যমুক্ত বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার পথ।

বিতে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রবর্তন, শিক্ষক সমিতির কৃতজ্ঞতা

ববি লাইভঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নামে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন। সিন্ডিকেটের ৬৭তম সভায় সর্বসম্মতি ক্রমে সিদ্ধান্তটি গৃহিত হয় এবং মুজিব বর্ষের মধ্যেই কার্যক্রম শুরুর আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এমন একটি মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করায় ববি উপাচার্য প্রফেসর ড.মো. ছাদেকুল আরেফিনকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। বঙ্গবন্ধুর জীবন, কর্ম, রাজনৈতিক দর্শন ও মহান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষনা ও একাডেমিক কার্যক্রমকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষে “বঙ্গবন্ধু চেয়ার” প্রতিষ্ঠার এক সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন তাঁরা। ১৫ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) ববি’র শিক্ষক সমিতির এক বিবৃতিতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই কিন্তু তাঁর আদর্শ আমাদের চিরন্তন প্রেরণার উৎস। তাঁর নীতি ও আদর্শ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে পড়ুক।গড়ে উঠুক সাহসী, ত্যাগী ও আদর্শবাদী নেতৃত্ব – এ প্রত্যাশা করি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পাদনের মাধ্যমে দেশকে সোনার বাংলায় পরিণত করাই হোক মুজিববর্ষে আমাদের সকলের অঙ্গীকার।

১৯৭৫ সালের পর জাতির জনকের জীবন, কর্ম ও নীতি নিয়ে যে পরিমাণ গবেষণা হওয়ার প্রয়োজন ছিল তা খুব একটা হয়নি প্রতিক্রিয়াশীলদের চক্রান্তের কারণে। এ বিষয়ে এখনও তেমন উল্লেখযোগ্য কোন প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা নেই।

সুনির্দিষ্টভাবে বঙ্গবন্ধুর জীবন, নীতি ও কর্মের ওপর গবেষণা হওয়া প্রয়োজন এবং গবেষণার প্রচুর সুযোগও আছে। পরবর্তী প্রজন্মের প্রয়োজনে, ইতিহাসের প্রয়োজনে জাতির পিতাকে নিয়ে ব্যাপক গবেষণা হওয়া দরকার।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি বিশ্বাস করে “বঙ্গবন্ধু চেয়ার” প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গবেষণার যে দ্বার উন্মোচিত হলো তা আমাদের ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করবে, স্থায়ীত্ব দিবে এবং নতুন প্রজন্মের ইতিহাসবোধকে জাগ্রত করবে। তরুণ প্রজন্মের মনোজগতে বঙ্গবন্ধুর আধিপত্য যত বেশি হবে, তত বেশি উজ্জ্বল ও সুগম হবে অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা ও দ্রারিদ্র্যমুক্ত বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার পথ।

ঢাকা, ১৫ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এসআই//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।