ইয়োগা কি এবং কেন করবেন ?


Published: 2020-02-11 15:31:53 BdST, Updated: 2020-02-20 14:07:16 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ সকাল হতেই দেখা যাবে রমনা পার্কের কাঁঠাল তলায় দলে দলে ছুটে আসছেন নানা বয়সের লোকজন। এদের মধ্যে পাঁচ (০৫) বছরের বাচ্চা থেকে শুরু করে অশীতিপর বয়সের নারী-পুরুষ। সূর্যোদয়ের আগেই (সকাল ছয়টায়) তারা দৌড়ে চলে আসেন রমনা পার্কের কাঁঠাল তলায়।

ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, উকিলসহ সকল পেশাজীবী মানুষের দেখা মিলে সেখানে। সেখানে সুশৃঙ্খলভাবে সাড়ি বেধে লাইন-ফাইল ঠিক করে দাড়িয়ে যায় সবাই। তাদের ব্যায়াম শিক্ষক যোগগুরু মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন একের পর এক বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ব্যায়াম চালিয়ে যান।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

উনার সাথে একযোগে সবাই মিলে চালিয়ে যায় ব্যায়াম। বৃদ্ধরা ব্যায়াম করতে আরও বেশি আগ্রহী। তাদের মধ্যে একজনের বয়স নব্বইয়ের উপর। তিনি বলেছেন ব্যায়ামকে তিনি কখনো কষ্টের কাজ মনে করেন না বরং ব্যায়ামকে তিনি উপভোগ করেন। আর সবার সাথে একসাথে ব্যায়াম করার আলাদা একটা মজা আছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

ব্যায়ামের মধ্যে রয়েছে হাতের ব্যায়াম, পায়ের ব্যায়াম, কোমরের ব্যায়াম, মুখের ব্যায়াম, ঘারের ব্যায়াম, নাকের ব্যায়াম, মেডিটেশনসহ প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যায়াম করানো হয় সেখানে। সবচেয়ে মজার মুহূর্তের মধ্যে একটি হলো হাসি। এই ব্যায়ামের সময় সবাই মিলে একসাথে বিভিন্ন ধরণের হাসি হাসে। বিশেষ করে ঝগড়া করতে করতে হাসি এবং লুটোপুটি খেতে খেতে হাসি সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। এই ব্যায়াম পরিচালিত হয় আলফা ইয়োগা সোসাইটির মাধ্যমে।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

আলফা ইয়োগা সোসাইটি ইয়োগার বেশ কিছু উপকারিতার কথা বলেছে। উপকারিতাগুলো হলোঃ
১. ইয়োগার অন্যতম প্রথম শর্ত প্রত্যহ সকালে ঘুম থেকে উঠা। সকালে ঘুম থেকে উঠে পানি পান করা। যার ফলে শরীর সতেজ থাকে এবং রোগ বালাই কম হয়। তারা একে ঊষাপান বলে থাকে।
২. খাবার খাওয়ার আগেও বিশেষ ব্যায়াম রয়েছে যার ফলে পেটে কখনো গ্যাসের সমস্যা হবে না এবং পেট পরিষ্কার থাকবে।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

৩. ফুসফুস এবং শ্বাসতন্ত্র পরিষ্কার রাখতে রয়েছে যোগব্যায়াম বা প্রাণায়াম।
৪. হৃদপিন্ড সুস্থ রাখতে এবং মেরুদন্ড বেঁকে যাওয়া থেকে বাঁচতে রয়েছে বিশেষ ব্যায়াম।

৫. ইয়োগার সদস্যরা বিশেষ খাদ্যাভ্যাস মেনে চলে। যার ফলে তাদের সহযে কোন রোগ-বালাই হয় না।
৬. ইয়োগায় যুক্ত আছে ব্যায়ামের মাধ্যমে বিনোদন (যেমনঃ বিভিন্ন ধরণের হাসি)। যা মনকে সদা প্রফুল্ল রাখতে সাহায্য করে। ফলেসকল কাজে মন বসে।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

৭. মেডিটেশনের মাধ্যমে তৈরি হয় মুক্ত বিশ্বাস। বিশেষ করে আমাদের সমাজে রোগ হলে অনেকে মনে করেন এটা তার নিয়তি, এটা ভালো হবে না। আবার অনেকে ভালো রেজাল্ট করতে না পেরে বলে আমার দ্বারা সম্ভব না। মেডিটেশন এসব ভ্রান্ত ধারণা থেকে তাদের মুক্তি দিয়েছে। মেডিটেশন বিশ্বাস করতে শেখায় যে এসব ভুল। অন্যেরা পারলে আমিও পারবো। এর জন্য প্রয়োজন একনিষ্ঠ প্রচেষ্টা আর দৃঢ় বিশ্বাসের।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

এছাড়া ব্যায়ামের ফলে ডায়াবেটিস ও অন্যান্য শারীরিক সমস্যাও নিয়ন্ত্রণে থাকে। ব্যায়াম করলে শরীরের কোষগুলোর জারণ-বিজারণ বিক্রিয়া ত্বরান্বিত হয় অর্থাৎ আমাদের কোষে অক্সিজেন ও কার্বন-ডাই-অক্সাইড এর আদান প্রদান ঘটে। ব্যায়াম করার কারণে আমাদের অতিরিক্ত ক্যালরি ক্ষয় হয় ফলে আমরা হৃদরোগের মত জটিল রোগ থেকে মুক্ত থাকতে পারি।

ব্যায়ামের দৃশ্য

 

ব্যায়াম এর পাশাপাশি মেডিটেশন ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মেডিটেশন করলে মস্তিষ্ক প্রশাসিত হয় ও মন স্থির হয়। মেডিটেশন করলে আমাদের সুনিদ্রা নিশ্চিত হয় এবং আমাদের সারাদিনের কাজকর্ম সফলতার সাথে শেষ করা যায়। টেনশনমুক্ত জীবন যাপন ছাড়াও যোগব্যায়াম ও মেডিটেশনে ফুসফুস, পাকস্থলী, হার্ট, প্লীহা, ও শরীরের রক্ত নালী খুবই উপযোগী হয় ফলাফলস্বরূপ দেহে নমনীয়তা আসায় দেহ ও মনের অবাঞ্ছনীয় চিন্তা দূর করে।

ঢাকা, ১১ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।