নাসায় পাবনার সেই ছাত্রী মুনমুনের তাক লাগানো সাফল্য


Published: 2017-10-31 13:55:10 BdST, Updated: 2017-11-18 12:22:36 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : মাহমুদা সুলতানা মুনমুন। তার জন্ম হয়েছিল পাবনার ঈশ্বরদীর সলিমপুর ইউনিয়নের নিভৃত গ্রাম জয়নগরে। জয়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করতেন মাহমুদা। নিভৃত পল্লীর সেই ছাত্রীটি এখন নাসায় তাক লাগানো সাফল্য দেখিয়েছেন। মাহমুদার বাবা পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম জাকারিয়ার পরিবারে এখন আনন্দের বন্যা। শধু তাই নয় ঈশ্বরদীবাসীও গর্বিত মাহমুদাকে নিয়ে।

কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের জটিল গণ্ডি পেরিয়ে ন্যানো ম্যাটারিয়াল ও মহাকাশে ব্যবহারযোগ্য কোয়ান্টাম ডট স্পেক্ট্রোমিটার ডিভাইস আবিস্কার করেছেন তিনি। চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ সংস্থা নাসার আইআরএডি বর্ষসেরা উদ্ভাবক নির্বাচিত হয়েছেন মাহমুদা।
নাসার সাময়িকী 'কাটিং এজ'-এর সাম্প্রতিক ইস্যুর প্রচ্ছদ প্রতিবেদনও করা হয়েছে মাহমুদাকে নিয়ে। মূলত নাসার অধীনে গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারস ইন্টারনাল রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইআরএডি) কর্মসূচির আওতায় যেসব বিজ্ঞানী বিভিন্ন প্রযুক্তি উদ্ভাবনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন, তাদেরকে বার্ষিকভাবে এ খেতাব দেওয়া হয়। এ বছর ওই কর্মসূচিতে প্রযুক্তি উদ্ভাবন কাজে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়ে মাহমুদা এ খেতাব জিতে নিলেন।

মাহমুদাকে নিয়ে নাসা কর্মকর্তারাও উচ্ছ্বাস ব্যক্ত করেছেন। তারা বলছেন, এত কম বয়সী কোনো মেয়েকে এর আগে তারা নাসায় কাজ করতে দেখেননি। নাসার প্রধান কর্মকর্তা পিটার হিউজেস বলেন, মাহমুদাকে আমরা বর্ষসেরা উদ্ভাবক মনোনীত করতে পেরে গর্বিত। কারণ সে নাসার যে ক'টি কাজে অংশগ্রহণ করেছে, তার প্রত্যেকটিতেই দিয়েছে অসাধারণ সৃজনশীলতার পরিচয়। তার চমৎকার পারদর্শিতায় আমরা আশা করছি, খুব শিগগিরই মাহমুদা নাসার একজন ন্যানো টেকনোলজি বিশেষজ্ঞ হয়ে উঠবে।

মাহমুদার পড়াশোনা : জয়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করতেন মাহমুদা। ছোটবেলা থেকেই ও ছিলেন অসাধারণ মেধাবী। সে সব সময় নতুন কিছু নিয়ে ভাবতে ভালোবাসত।

মাহমুদার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কিশোরী বয়সেই মাহমুদা যুক্তরাষ্ট্রে যান। তিনি ছোটবেলা থেকেই মেধাবী। কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সাউদার্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করেন তিনি। এর পর ২০১০ সালে মাহমুদা ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি) থেকে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ওপর পিএইচডি লাভ করেন। একই বছর এক জব ফেয়ারে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে তিনি নাসায় কাজের সুযোগ পান। তার বড় চাচাও নাসার এমস রিসার্চ সেন্টারে ফিজিসিস্ট হিসেবে কাজ করেন। বর্তমানে মাহমুদা ও তার দল এমআইটির অধীনে প্রোটোটাইপ ইমেজিং স্পেক্ট্রোমিটার তৈরিতে কাজ করছেন।

কোয়ান্টাম ডট স্পেক্ট্রোমিটার কি : কোয়ান্টাম ডট বা বিন্দু মূলত অর্ধপরিবাহী এক ধরনের ন্যানোক্রিস্টাল, যা খালি চোখে দেখা যায় না। এটি আবিস্কার হয় ১৯৮০ সালের শুরুর দিকে। এই বিন্দুর উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট হলো, এর আকার ও রাসায়নিক গঠনের ওপর নির্ভর করে তা আলোর বিভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্য কতটুকু শোষণ করবে। সাধারণত স্মার্টফোনের ক্যামেরা, মেডিকেল ডিভাইস এবং পরিবেশগত পরীক্ষার সরঞ্জাম তৈরিতে এই ন্যানোক্রিস্টাল ব্যবহূত হয়।


ঢাকা, ৩১ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।