উদ্বোধনী ম্যাচে ৯৮ রানেই সব উইকেট হারালো রংপুর


Published: 2019-01-05 14:37:35 BdST, Updated: 2019-03-25 22:57:27 BdST

স্পোর্টস লাইভ: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) উদ্বোধনী ম্যাচে শুরুতে ব্যাটিং করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে মাত্র ৯৮ রান সংগ্রহ করেছে রংপুর রাইডার্স।

শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স ও চিটাগাং ভাইকিংস। টসে জিতে রংপুর রাইডার্সকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন চিটাগাং ভাইকিংসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। প্রথম ম্যাচে রংপুরের একাদশে নেই ক্রিস গেইল। আর সিলেট পর্বে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন এবি ডি ভিলিয়ার্স।

ব্যাট হাতে ৪৭ বলে ৪৪ রান করে দলের একমাত্র সফল ব্যাটসম্যান রবি বোপারা। বল হাতে রংপুরের ইনিংসে ধস নামানোয় বড় ভূমিকা রেখেছেন চিটাগাং ভাইকিংসের ফ্রাইলিংক। মাত্র ১৪ রানেই ৪ উইকেটের পতন ঘটিয়েছেন এই পেসার।

মাত্র ৩৫ রানে ৭ উইকেট হারানোর পর শঙ্কা জেগেছিল পঞ্চাশের নিচেই অলআউট হয়ে যাওয়ার। তবে অষ্টম উইকেট জুটিতে দলের মান রক্ষা করেছেন ইংলিশ অলরাউন্ডার রবি বোপারা এবং দেশি অফস্পিনার সোহাগ গাজী। দুজন মিলে ৪৯ রানের জুটি গড়ে দলীয় সংগ্রহটা ভদ্রস্থ করতে পেরেছেন।

তবে বোপারা-গাজীর চেষ্টার পরেও শতরান করতে পারেনি বিপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দল রংপুর রাইডার্স। নির্ধারিত ২০ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ৯৮ রানের সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে তারা। ম্যাচ জিততে চিটাগংস ভাইকিংসকে করতে হবে মাত্র ৯৯ রান।

রংপুরের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেছেন বোপারা। ৪৭ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কার মারে এ রান করেন তিনি। এছাড়া দুই অঙ্ক ছুঁতে পেরেছেন কেবল গাজী। ৩ চারের মারে ১৭ বলে ২১ রান এসেছে তার ব্যাট থেকে। আর কেউই ন্যুনতম ১০ রানও করতে পারেননি।

চিটাগং ভাইকিংসের পক্ষে বল হাতে বাজিমাত করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডানহাতি মিডিয়াম ফাস্ট বোলার রবি ফ্রাইলিংক। ৪ ওভারের স্পেলে মাত্র মাত্র ১৪ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়েছেন তিনি। এছাড়া আবু জায়েদ রাহী ও নাঈম হাসান নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারটা দেখেশুনেই কাটিয়ে দিয়েছিলেন রংপুর ওপেনার মেহেদি মারুফ। দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে স্ট্রাইক পান হেলস। রবি ফ্রাইলিংকের ভেতরে ঢোকা ডেলিভারী সময়মতো ব্যাট চালাতে ব্যর্থ হলে আঘাত হানে প্যাডে।

জোরালো আবেদনে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার। রিভিউ থাকলেও তা নেননি হেলস। রিপ্লেতে দেখা যায় আম্পায়ার্স কলে আউটই থাকতেন হেলস। ষষ্ঠ আসরে প্রথম উইকেট নেন ফ্রাইলিংক।

দ্বিতীয় উইকেটটাও যায় ফ্রাইলিংকের নামেই। একই ওভারের চতুর্থ বলে সরাসরি বোল্ড করে দেন মোহাম্মদ মিঠুনকে। হেলসের মতো তিনিও ব্যর্থ হন রানের খাতা খুলতে।

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুরের বিপদ আরও বেড়ে যায় তৃতীয় ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকান মারকুটে ব্যাটসম্যান রিলে রুশো উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরলে। মাত্র ১০ রানেই তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় রংপুর।

সেই চাপ সামাল দেয়ার বদলে আরও বাড়িয়ে দেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মেহেদি মারুফ। রবি ফ্রাইলিংকের তৃতীয় শিকার হওয়ার পথে তিনি ধরা পড়েন সানজামুল ইসলামের হাতে। তারপর নাঈমের বলে আবু জায়েদের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন বেনি হাওয়েল। তখনো পর্যন্ত দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮ রান করেন তিনি।

ব্যর্থতার ধারা বজায় রেখে দলীয় ৩২ রানের মাথায় ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন ফরহাদ রেজা। তরুণ অফস্পিনার নাঈম হাসানের বোলিংয়ে লেগ বিফোরের ফাঁদে ধরা পোড়ার আগে তিনি করেন মাত্র ৩ রান।

ষষ্ঠ উইকেটের পতনে উইকেটে আসেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। চাপের মুখে রয়েসয়ে ব্যাটিং শুরু করেন তিনি। সানজামুলের ইসলামের এক ওভার পুরো মেইডেনই দিয়ে দেন। কিন্তু এক ওভারের পরেই খালেদ আহমেদ বোলিংয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে নিজের উইকেট হারান মাশরাফি।

আউট হওয়ার আগে ২ রান করতে ১১টি বল খেলেন মাশরাফি। পরে রংপুরের আশার প্রদীপ জালিয়ে রেখে অষ্টম উইকেটে সোহাগ গাজীকে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান ইংলিশ অলরাউন্ডার রবি বোপারা।

রংপুর রাইডার্সের একাদশ
মোহাম্মদ মিঠুন (উইকেটরক্ষক), রাইলি রুশো, রবি বোপারা, মাশরাফি মুর্তজা (অধিনায়ক), নাজমুল ইসলাম অপু, সোহাগ গাজী, অ্যালেক্স হেলস, মেহেদি মারুফ, শফিউল ইসলাম, ফরহাদ রেজা বেনি হাওয়েল।

চিটাগাং ভাইকিংসের একাদশ
মোহাম্মদ আশরাফুল, ক্যামেরন ডেলপোর্ট, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক/উইকেটরক্ষক)), সিকান্দার রাজা, মোসাদ্দেক হোসেন, রোবি ফ্রাইলিংক, খালেদ আহমেদ, আবু জায়েদ, সানজামুল ইসলাম, মোহাম্মদ শাহজাদ, নাঈম হাসান।


ঢাকা, ০৫ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।