তামিমের ভালোবাসায় সিক্ত কিশোর তামিম


Published: 2018-02-16 15:17:26 BdST, Updated: 2018-10-20 10:55:43 BdST

স্পোর্টস লাইভ: ভালোবাসা! না, এ যেন কঠিন বাস্তবাতা। কেউ ভালবেসে দেউলিয়া হয়ে ঘুরে বনে বনে। আবার কেউ ভালবাসা পেয়েও হারিয়ে ফেলে সামান্য তুচ্ছ কারণে। তবে যেটােই ঘটুকনা কেন, মূলত গোটা পৃথিবীটাই টিকে আছে এই ভালবাসার বন্ধনে। এতে কেউ বিশ্বাস করুক আর না করুক তাতে ভালবাসার কিচ্ছু আসে যায় না।

আজকাল ভালবাসাকে কত রঙেই না দেখা যায়। তবে সেই রঙ যাই হোক ভালোবাসা যদি আত্নর আত্বীয় হয় তবেই সার্থক সে ভালবাসা। আর এই ভালোবাসার কাছে সব বাঁধাই যেন পরাস্ত। সেটা এই ৮ বছরের বাচ্চা তামিম প্রমাণ করে দিয়েছে। হয়তো এখনো ক্রিকেট খেলা ঠিক ভাবে না বুঝলেও ক্রিকেটকে ভালোবাসে অনেক। প্রিয় ক্রিকেটার আর কেউ নন টাইগার দলের ড্যাশিং ওপেনার তামিন ইকবাল খান।

প্রিয় এই ক্রিকেটারের প্রতি তার ভালোবাসা যেন সীমাহীন। তাকে এক নজর দেখার জন্য মিরপুর কাজী পাড়া থেকে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের সামনে এসে দাঁড়িয়ে থাকেন। কখন এক ঝলক তামিমের দেখা পাবেন। কিন্তু এই ভালো বাসার জন্য তাকে দিতে হয় অনেক প্রতিদান। মাঠে আসার জন্য বড় বোনের হাতে খেতে হয় মার।

তবে বোনের সেই মার যেন ছোট্ট তামিমের ভালোবাসার কাছে পরাস্ত। হাজার মারলেও কাঁদতে কাঁদতে চলে আসে মিরপুর স্টেডিয়ামে। তামিমকে এক ঝলক দেখতে পারলে ভুলে যাই সেই মারের ব্যথা। বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে স্টেডিয়ামের সামনে আসে ছোট্ট তামিম।

উদ্দেশ্য খেলা দেখা নয় তামিম ইকবালের সাথে দেখা করবে। তবে প্রতিদিন কার মত এই দিনও সেই বোনের হাতে মার খেয়ে অশ্রু ভেজা চোখ মুছতে মুছতে স্টেডিয়াম এর ২ নং গেটের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলো।

পরে স্টেডিয়ামে কর্তব্যরত পুলিশের চোখে পড়ে দৃশ্যটি। তারপর পুলিশ তার কাছে জিজ্ঞাসা করেন কেন কাঁদছে? এরপর ছেলেটি সব খুলে বলে। তখন পাশে থাকা খেলা দেখতে আশা দর্শকরা ছেলেটাকে তামিম ইকবালের কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করে। এরপর পুলিশরা ছোট্ট তামিমকে নিয়ে যাই প্রিয় ক্রিকেটার তামিম ইকবালের কাছে।

তামিম এমনিতেই বাচ্চাদের অনেক ভালোবাসেন তারপর আবার তার অন্ধভক্ত কথাটি শুনেই ছেলেটাকে জড়িয়ে ধরেন। আদর করে দেন এবং নিজের একটি জার্ছি উপহার দেন। তামিমের এমন ভালোবাসা বুঝিয়ে দিলো ভালোবাসার কাছে কোন ছোট বড় নেই। সবাই সমান। হয়তো চার ছক্কা আর সেঞ্চুরি করে অনেকের মুখে হাসি এনে দিতে পারবেন কিন্তু এই ছোট্ট শিশুটির ইচ্ছা পূরন করে যে খুশিতে রাঙিয়ে দিলো মুখ সেটা অন্য হাসির থেকে হয়তো অনেক বড়।


ঢাকা, ১৬ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।