মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসা ভোগান্তিতে বশেমুরবিপ্রবির শিক্ষার্থী


Published: 2020-03-26 10:38:48 BdST, Updated: 2020-07-07 11:00:18 BdST

বশেমুরবিপ্রবি লাইভঃ গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) বাংলা বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী খাইরুল ইসলাম গত ২৩ই মার্চ এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হন। পরে তাকে কুমিল্লায় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এক পর্যায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি সহ প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। এতে করে কোন পরীক্ষা ছাড়াই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত উল্লেখ করে উন্নততর চিকিৎসার জন্য ২৫মার্চ ঢাকায় নিতে বাধ্য করেন ঐ হাসপাতালে চিকিৎসকরা। শুরু হয় খায়রুলের চিকিৎসার চরম ভোগান্তি।

তার পরিবার ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, খায়রুলের ডান পা ভেঙে গেছে। পাশাপাশি সে মাথায় প্রচন্ড আঘাত পেয়ে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে মারাত্মক শ্বাসকষ্টে ভুগছিলো কুমিল্লা সদর বেসরকারি মুন হাসাপাতালে। কিন্তু ঐ হাসপাতালে চিকিৎসকগন কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং পরামর্শ ছাড়াই আমাদের সন্তানকে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সম্ভাবনা দেখিয়ে ছাড়পত্র দেন।

খায়রুলের পরিবার ক্যাম্পাসলাইভকে আরও জানায়, ছাড়পত্র দেয়ার পর থেকে তার চিকিৎসা নিয়ে আমরা চরম ভোগান্তিতে পরি। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উন্নত চিকিৎসা দিতে ঢাকায় এনে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল থেকে শুরু করে তিনটি বেসরকারি হাসপাতালে গিয়েছি কেউ চিকিৎসা দিতে রাজি হয়নি। অবশেষে মহাখালী ইউনিভার্সাল মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসাপাতালে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ভর্তি করা হয়। 

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন, রোগীর অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক। তার পুরো হার্ট ব্লক হয়ে গেছে। জ্ঞান না ফেরা পর্যন্ত কিছুই বলা যাচ্ছে না।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এবং প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধকল্পে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষামন্ত্রণালয় ছুটি ঘোষণা করে। তার পর ক্যাম্পাস থেকে বাসায় ফেরার পথে তার মানিব্যাগ হারিয়ে যায় এবং তাতে আইডি কার্ড সহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল। পরে সিএনজি যোগে নিকটস্থ থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে যাওয়ার সময় সিএনজি উল্টে আহত হন তিনি।

ঢাকা, ২৬ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আইএইচ//টিআর

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।