৪টি জয় হলেই টাইগারদের স্বপ্নপূরণ!


Published: 2019-06-09 20:47:08 BdST, Updated: 2019-06-17 07:23:59 BdST

লাইভ ডেস্কঃ এগিয়ে যাও। থেমে থেমে নয়। যেতে হবে দুর্বার ও দুরন্ত গতিতে। সামনে বাড়াতে হবে সাহসিকতার সঙ্গে। এই আশা টাইগারদের নিয়ে এদেশের সকলের। তবে পথ কন্ঠকাকীর্ণ। একে একে চারটি জয়ের তাজ পরতে হবে টাইগারদের। টাইগারদের নিয়ে প্রত্যাশার মাত্রা একটু বেশি। তাই প্রাপ্তি নিয়ে আলোচনা, পর্যালোচনা ও সমালোচনাও বেশি হয় অনেক।

টাইগাররা বিশ্বকাপে এসেছে আকাশছোঁয়া প্রত্যাশা আর স্বপ্ন নিয়ে। দল, ম্যানেজমেন্ট, শুভানুধ্যায়ী তথা গোটা জাতি তাকিয়ে রয়েছে মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিকদের দিকে। শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। ওভালে শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকাকে উড়িয়ে দিয়েছে মাশরাফির দল।

একই মাঠে পরের ম্যাচে জিততে না পারলেও, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৪৪ রানের মাঝারি পুঁজি নিয়েও লড়াই করেছে দুর্দান্ত। সে ম্যাচে হার মানলেও লড়াই হয়েছে সমানে সমান।
তৃতীয় ম্যাচটি ছিল কার্ডিফে। যেটিকে ধরা হয় টাইগারদের পয়মন্ত ভেন্যু হিসেবে।

কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে ২০০৫ সালে মোহাম্মদ আশরাফুলের সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়া এবং ২০১৭ সালে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সেঞ্চুরিতে নিউজিল্যান্ডকে হারানোর সুখস্মৃতি ছিল বাংলাদেশের। এ দুটি স্মরণীয় সাফল্য সঙ্গে থাকলেও শনিবার আর সফলতা ধরা দেয়নি টাইগারদের।

বিশ্বকাপের স্বাগতিক ও অন্যতম ফেবারিট ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাটে-বলে পারদর্শিতা দেখাতে না পারায় মিলেছে ১০৬ রানের বড় পরাজয়। প্রিয় দলের এ পারফরম্যান্সে ভক্ত-সমর্থকরা খানিক হতাশ। আশা ভঙ্গের বেদনা গ্রাস না করলেও আশাহত অনেকেই।

তবে ইংল্যান্ডের খেলোয়াড় জেসন রয়, জনি বেয়ারস্টো, জো রুট, জোফ্রা আর্চারদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স মানদণ্ডে আনলে, ইংলিশদের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সকে খুব বেশি খারাপ বলা যাবে না। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বোলিংটা হয়নি প্রত্যাশামাফিক।

তাছাড়া দুর্বল ফিল্ডিংয়ের কারণে হয়েছে বেশকিছু রান। পরে ব্যাটিংয়ে নেমে সাকিব আল হাসানের সেঞ্চুরি ও মুশফিকুর রহীমের খানিক ঝলকানি ব্যতীত আর কেউই তেমন কিছু করতে না পারায়, পরাজয়ের ব্যবধানটা হয়েছে বড়। নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে খুব কাছে গিয়ে হারা এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বড় পরাজয়ের পর ভক্ত-সমর্থকরা হয়ে পড়েছেন আশাহত।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে খেলার লক্ষ্যের ব্যাপারেও জেগেছে সংশয়। আগেই বলে রাখা ভালো, এখনই শেষ হয়ে যায়নি সবকিছু। গাণিতিক সমীকরণ কিংবা বাস্তব প্রেক্ষাপটে, এখনও শেষ চারে থাকার বেশ ভালো সম্ভাবনা রয়েছে মাশরাফি বাহিনীর।

তবে সেক্ষেত্রে আগামী যে ছয়টি ম্যাচ রয়েছে- তার মধ্যে অন্তত ৪টিতে জেতার প্রয়োজনীয়তা দেখা রয়েছে। এখন দেখার বিষয় হলো, বাংলাদেশের পরের ছয় ম্যাচের প্রতিপক্ষ হলো শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া, আফগানিস্তান, ভারত ও পাকিস্তান। এ ছয় ম্যাচের মধ্যে কোন চার দলকে হারাবে বাংলাদেশ? কোন চার দলকে লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে এগুবে বাংলাদেশ? ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা।

যার শেষ বলে কোনো কথা নেই। এমনকি বলে কয়ে কিছু করা যায় না। অনেক সময় পচা শামুকে পা কাটে আবার প্রায়ই রাঘববোয়ালরাও হার মানে। ফলে বাংলাদেশ কোনো দলকে বলে কয়ে হারাবে- তা আগেভাগে বলে দেয়া সম্ভব নয়। তবে আপাতদৃষ্টিতে আফগানিস্তান, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ- এ চারটি দলকেই হয়তো বাংলাদেশ তাদের সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তু হিসেবে ঠিক করে সামনে এগুবে।

কারণ ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া অনেক বেশি শক্তিশালী। তাদের হারানোও হবে বেশ কঠিন।
কাজেই ধরে নেয়া যাক, বাংলাদেশের এখন সেমিতে খেলার মিশন হলো মঙ্গলবার লঙ্কাবধের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়। এখন কেবলই অপেক্ষার পালা।

ঢাকা, ৯ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।