‘ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড’


Published: 2018-08-18 20:09:20 BdST, Updated: 2018-11-16 12:15:27 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: এবার ছিনতাইকারী রক্ষায় ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড তৈরী হয়েছে। এই ফান্ডের টাকা দিয়ে তাদের কল্যাণে কাজ করা হচ্ছে। সংগঠনের সকলকে বিভিন্ন নিয়ম-নীতির প্রতিও রাখা হচ্ছে খেয়াল। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন সংগঠন আছে কি না পুলিশ ও গোয়েন্দাদের কেউ জানেন না।

এই সংগঠনের একটি পরিচালনা কমিটি আছে। রয়েছে ব্যাংকে হিসাব। ওই ব্যাংক একাউন্টের টাকা দিয়ে মামলা, আহত ও নিহতের সহায়তা করা হয় বলেও জানাগেছে। পুলিশ ওই ফান্ড থেকে উদ্ধার করেছে ৮ লাখ টাকা। যা পুরোটাই ছিনতাইয়ের।

পুলিশ জানায়, রাজধানীর নিউমার্কেট ও যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে ৮ জন ছিনতাইকারীকে শুক্রবার গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাদের দেয়া তথ্য নিয়ে শনিবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব বিষয় জানান মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আবদুল বাতেন।

তিনি জানান, ছিনতাইকারীদের গ্রেফতারের পর আদালতে পাঠায় পুলিশ। সেখান থেকে তাদের জামিনে মুক্ত করতে ও মামলার খরচ চালাতে তৈরি করা হয়েছে ছিনতাইকারী কল্যাণ ফান্ড। ফান্ডের সদস্যরা সবাই ছিনতাইকারী বলে জানা গেছে।

ডিবির ওই কর্মকর্তা বলেন, ছিনতাইকৃত টাকা ভাগাভাগি করে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা দিয়ে তৈরি হয়েছে কল্যাণ ফান্ড। যে ফান্ডের টাকা ব্যয় হয় সহযোগীদের আদালত থেকে ছাড়িয়ে আনা ও চিকিৎসা কাজে। ছিনতাইকৃত টাকার কল্যাণ ফান্ডে আকার নেহাত কম নয়। এমনই এক ছিনতাইকারীদের কল্যাণ ফান্ডের হদিস পেয়েছে ডিএমপি’র গোয়েন্দা বিভাগ।

যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তারা হলো- মোছা. মুক্তা বেগম, মোছা. বেবি আক্তার, মোছা. নুপুর, ঝুমুর , মো. লিটন মিয়ামো. সাজ্জাদ হোসেন সাগর, মো. আলী হাসান, সবুজ বিশ্বাস ও মো. রকি নুরুজ্জামান । গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত ১টি মাইক্রোবাস, ১টি চাপাতি, ২টি চাকু ও ১২টি মোবাইল জব্দ করেছে পুলিশ।

তাদের বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী ও নিউমার্কেট থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। এছাড়া তাদের কাছ থেকে তাদের নেতা ও শেল্টারদাতাদেরও সন্ধান পেয়েছে পুলিশ।

পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আরও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ছিনতাইকারীরা বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবকে সামনে রেখে মার্কেটে আসা ক্রেতাদের মোবাইল ও টাকা-পয়সা ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করেছে। তারা আরও বিভিন্ন ধরনের নতুুন নতুন কৌশল সম্পর্কেও তথ্য দিয়েছে পুলিশকে।

এরা সকলেই পেশাদার ছিনতাইকারী। ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে ছিনতাই করে। তারা মাসে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাই করে থাকে। বিভিন্ন স্থানে অপরাধ সংগঠনের পর দ্রুত পালানোর জন্য তারা আটককৃত মাইক্রোবাসটি ব্যবহার করত।

 

ঢাকা, ১৮ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।