একজন গানে অন্যজন আবৃত্তিতে


Published: 2020-05-01 20:31:13 BdST, Updated: 2020-05-31 09:37:01 BdST

শোবিজ লাইভ: এই মহামারিতে যে যার অবস্থান থেকে অবদান রেখে চলেছেন। করোনা ভাইরাস থেকে দেশবাসীকে নিরাপদে রাখার জন্য চলছে লকডাউন। শিল্পীরাও নিয়ম মেনে এ সময়ে বাসাতেই অবস্থান করছেন। কিন্তু দীর্ঘদিনের লকডাউনে প্রায় একইরকম রুটিনের মধ্যদিয়ে সময় কাটছে সবার। কেউ কেউ চেষ্টা করছেন ঘরে বসেই ভিন্ন কিছু করার। কিন্তু ঘরে বসে জীবনে কতটুকুই বা বৈচিত্র্য আনা যায়।

অভিনেত্রী শানারেই দেবী শানু ও সংগীতশিল্পী পুতুলের সাধারণত খুব বেশি দেখা হয় একুশে গ্রন্থমেলায়। কারণ এ মেলায় দু’জনেরই বই প্রকাশ হয়। এবারের একুশে গ্রন্থমেলাতেও তাদের দেখা হয়েছে বেশ কয়েকবার। মেলা শেষে ঠিক যখনি তারা নিজেদের কাজে ব্যস্ত হয়ে ওঠার জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলেন তখনই অর্থাৎ গেলো ৮ই মার্চ দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হয়। এরপর ধীরে ধীরে তা বাড়তে থাকে। পরবর্তীতে একসময় লকডাউনের ঘোষণা আসে।

গৃহবন্দি হতে হয় শানু ও পুতুলকেও। এরইমধ্যে পুতুলের প্রথম বিবাহবার্ষিকীও চলে আসে। কিন্তু স্বামী লন্ডনে থাকার কারণে জীবনের প্রথম বিবাহবার্ষিকীও আর উদযাপন করা হয়নি তাদের। গৃহবন্দি থাকলেও শিল্প চর্চার মধ্যদিয়েই সময় কাটছে শানু ও পুতুলের। গত ২৮শে এপ্রিল শানু তার নিজের লেখা ‘অধরা আমি’ শীর্ষক একটি কবিতা আবৃত্তি করে সবার উদ্দেশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছেন।

শানু বলেন, জানি একদিন আলো আসবেই। তবু এক অস্থির সময়ে ঘুরপাক খাচ্ছে জীবন, পৃথিবী লকডাউনে। আমিও বারবার কবিতায় মুখ লুকাই, একটু নিশ্বাসের জন্য। কবিতার ভূত মাথায় চাপলে, দারুণ বাঁচিয়ে রাখে। সেই কবিতা নিয়ে নতুন কিছু করার জন্য অনবরত অনুপ্রেরণার তাগাদা দিতে থাকলো একটা মানুষ, আমারও মাথায় নতুন আইডিয়ার ভূত চাপলো এই বন্দি সময়ে।

নাচের ছন্দের সঙ্গে নিজের কবিতা জড়িয়ে নেয়ার নতুন ভূতকে বাস্তবায়নও করে ফেললাম। এর সমস্ত দায়ভার তোমার শরীফ সুজন। আর স্বল্প পরিসরে ঘরের ভিতর এই ছোট্ট শুটিং আয়োজনে সহযোগিতার জন্য আমার পরিবারকেও ধন্যবাদ। এদিকে পুতুল এরইমধ্যে করোনা নিয়ে একটি গান গেয়েছেন।

মৃত্যু উপত্যকা উবে গিয়ে আসবে না কী জীবন গ্রাম শীর্ষক এ গানটি লিখেছেন পুতুল নিজেই, সুর করেছেনও তিনি। এরইমধ্যে অনলাইনে গানটি প্রকাশও হয়েছে। পুতুল বলেন, সত্যি বলতে কী সারা বছরইতো আমি গান এবং লেখালেখি নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাই। করোনার এই ঘরবন্দি সময়েও কিন্তু আমি থেমে নেই আমার কাজে।

করোনা নিয়ে গানটি যদি সাধারণ মানুষের সচেতনতায় কাজে লাগে তবে সেটাই হবে আমার স্বার্থকতা। আমার বিশ্বাস খুব শিগগিরই বিশ্ব করোনা মুক্ত হবে। আমরা সুন্দর এক পৃথিবীর অপেক্ষায় আছি। সুন্দর পৃথিবীতে আবারো আমাদের দেখা হবে ইনশাআল্লাহ। অন্যদিকে এরইমধ্যে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন থেকে প্রকাশিত লুৎফর হাসানের কবিতা এসো হে মানুষ এ কন্ঠ দিয়েছেন এ গায়িকা। তার মানে সববাই কাজ করছেন করোনা নিয়ে।

ঢাকা, ০১ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।