"নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে নেই ওয়ালটন"


Published: 2019-05-16 16:01:41 BdST, Updated: 2019-05-23 07:25:25 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: ওয়ালটনকে বিদায় জানিয়ে দেশীয় চলচ্চিত্রের তারকা নায়ক ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পথিকৃৎ ইলিয়াস কাঞ্চন এক সংবাদ সম্মেলনে জানান এখন থেকে তার সাথে ওয়ালটন গ্রুপ এবং পণ্যের কোন সম্পর্ক নেই।

২০০৫-২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি 'ওয়ালটন' গ্রুপের সাথে যুক্ত ছিলেন উল্লেখ্য করে তিনি বলেন, আমার ভক্তকূলসহ দেশবাসীর অনেকে মনে করতেন ওয়ালটনের সাথে আমার মালিকানাগত কোন বিষয় রয়েছে। অর্থ্যাৎ আমি ওয়ালটনের একজন মালিক। যে কারণে প্রায়ই আমার কাছে বিভিন্ন লোকজন চাকরির তদবিরসহ বিভিন্ন আবদার নিয়ে আসতেন, শুনতে হতো মালিকানার কথাটি। অবশ্য আমি তাদের বুঝিয়ে বলতাম। সে সময় হয়তো কারো কারো ভুল ভাঙতো। অথচ আমি ওয়ালটনের ব্র্যান্ড এ্যাম্বেসেডর ছিলাম।

মূলত ওয়ালটনের সাথে আমি যুক্ত হয়েছিলাম তাদের একটি কথায়। তারা বলেছিল 'ওয়ালটন মানে নিরাপদ সড়ক চাই', 'নিরাপদ সড়ক চাই মানে ওয়ালটন'। যে কারণে আমি তাদের কথায় অনুপ্রাণিত হই। তাছাড়া আমি দেশের বিভিন্ন স্থানে ওয়ালটনের শো রুম উদ্বোধন করতে গিয়ে শুধু শো রুম উদ্বোধন করেছি তা নয়, সেখানে একটি জনসমাবেশের আয়োজন করতো তারা। আমি জনসমাবেশে গিয়ে দেশীয় পণ্য ওয়ালটন ও নিরাপদ সড়ক সম্পর্কে বলতাম। দীর্ঘ পথচলায় মূলত আমার মূল উদ্দেশ্যই ছিল নিরাপদ সড়ক প্রতিষ্ঠায় সচেষ্ট থাকা এবং দেশীয় পণ্য ওয়ালটন ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়া। আমার মনে হয় ওয়ালটনকে ঘরে ঘরে পৌাঁছানোর জন্য আমি অবদান রাখতে পেরেছি।

এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আহবান জানাই কোন প্রতিষ্ঠান যদি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে সহযোগিতা করার জন্য এগিয়ে আসেন তাহলে দেশে সড়কে বিদ্যমান নানা সমস্যা নিরসনে এবং দেশে যে পরিমাণ চালক ঘাটতি আছে তাতে ভূমিকা রাখতে পারবেন।

এছাড়াও ইলিয়াস কাঞ্চন দুঃখ করে বলেন, একটি সামাজিক আন্দোলনের সাথে আজীবন থাকার ঘোষণা দিয়ে ওয়ালটন কি করে সরে আসে তা বোধগম্য নয়। আসলে আমি কোন প্রতিষ্ঠানের সাথে এভাবে জড়াতাম কিনা সেটা ভাবনার বিষয় ছিল।

কিন্তু ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ যখন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনকে পৃষ্টপোষকতা করবে বলেছিল এবং প্রতিষ্ঠানটি দেশীয় পণ্য উৎপাদন করছে তাই দেখে তাতে আমি বিনা বাক্য ব্যয়ে রাজী হয়ে যাই। অথচ তারা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিবে তেমন কোন ইঙ্গিত আমায় দেয়নি। একদিন হঠাৎ করেই দেখি তারা সরে গেছে। যা আমি মেনে নিতে নিতে পারছিনা। আমি পরিষ্কার ভাষায় বলছি যতদিন বাঁচি নিরাপদ সড়কের জন্য কাজ করে যাবো। কারও সাথে কোন বিবাদ নয়, পারস্পরিক স্বার্থ অক্ষুন্ন রেখে এগিয়ে যাবো। পরিশেষে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহবান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই'র যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ, লায়ন গনি মিয়া বাবুল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মিরাজুল মইন জয়, প্রচার সম্পাদক কেএম ওবায়দুর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য কামাল হোসেন খান, নজরুল ইসলাম ফয়সাল, আজীবন সদস্য জেবুন্নেসা, সাধারণ সদস্য আনজুমান আরা তন্নি, মোহসিন খান প্রমুখ।

 

ঢাকা, ১৬ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।