ফেইসবুকে শিক্ষকের ম্যাসেজে অতিষ্ঠ ছাত্রী, স্ট্যাটাসে তোলপাড়!


Published: 2020-02-11 01:51:12 BdST, Updated: 2020-04-08 15:58:59 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ নেত্রকোনার কেন্দুয়া সরকারি কলেজের অর্নাস ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী লিমা (ছদ্মনাম)। ইন্টারমিডিয়েট শেষ করেছেন নেত্রকোনা সরকারি মহিলা কলেজ থেকে। গত কদিন যাবত ফেইসবুকের ইনবক্সে ওই ছাত্রীকে বিরক্ত করেছেন রাশিদ আহমেদ তালুকদার নামে এক শিক্ষক।

তিনি নেত্রকোনা মহিলা কলেজের পদার্থ বিভাগের শিক্ষক। ওই ছাত্রীর ভাষ্যমতে, এই শিক্ষক মহিলা কলেজের আরো অনেক ছাত্রীকেও বিভিন্নভাবে ফেইসবুকের ইনবক্সে বিরক্ত করে আসছিল।

এদিকে শিক্ষকের একের পর এক আপত্তিকর প্রস্তাবে অতিষ্ট হয়ে অবশেষে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে তুলে ধরেছেন। এনিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ওই ছাত্রী তার স্ট্যাটাসে লিখেন। আমি জীবনে কখনোই কোন শিক্ষকদের অসম্মান করিনা। যদি ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট কোন শিক্ষকের আসে তবে প্রোফাইলটা দেখে একসেপ্ট করে নেই। শিক্ষকতা সম্মানের পেশা আমি এইটাই জানতাম। জানতাম বললে ভুল হবে আমি এখনো জানি আর মানি।

কতদিন আগে মহিলা কলেজের একজন স্যার ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট দেন আর আমি মহিলা কলেজ দেখে একসেপ্ট করি। যেহেতু আমি মহিলা কলেজের স্টুডেন্ট আর সেইসাথে এখন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট। রিকুয়েষ্ট একসেপ্ট করার পর থেকেই উনি নিজে থেকে মেসেজ দিতেন আমি ভদ্রতা রেখেই রিপ্লাই দিতাম।

তো উনি বললেন যে এই বইমেলায় নাকি উনার বই বের হবে। যাই হোক তিনি আমাকে আমাকে তার লিখা কিছু কবিতা শোনানোর জন্য আমার ফোন নাম্বার চান কিন্তু আমি দেইনি যার ফলশ্রুতিতে আমাকে শুনতে হলো আমি ডিসগাস্টিং আর যেহেতু উনার কথার রিপ্লেতে আমি একটু কড়া কথা বলি তাই তিনি আমাকে ন্যাশনাল এর স্টুডেন্ট বলে অনেকগুলো কথা শোনান।

যাই হোক আমার কথা হলো উনি নিজেই তো ন্যাশনাল এর শিক্ষক। তাছাড়া উনার এত যোগ্যতা যেহেতু সেহেতু তিনি কেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হননি? সেইতো আমাদের ন্যাশনাল এর গরু-ছাগলের পিছে ঘুরেই আজীবন চলতে হবে। মহিলা কলেজ আমাদের সফট কর্ণার। যেই কলেজে আকাশ স্যারের মত একজন অসাধারণ, অমায়িক এবং সত্যিকারের ভাল মানুষ আছেন। আর আজকে জানলাম ওই কলেজে শিক্ষক নামধারী কিছু অন্যরকম মানুষও আছেন।

উনার ছবিসহ কিছু লিখা স্ক্রিনশট দিলাম এতে আমাকে অনেকেই খারাপ ভাবতে পারেন এতে আমার কিছু করার নেই কারণ সমাজে যাই ঘটুক সব দোষ মেয়েদেরই হয় ওই যে কথায় আছে, যা কিছু হারায় গিন্নি বলেন কেষ্টা বেটাই চোর।

আমি জানি ফ্রেন্ডলিষ্টে বাংলা বিভাগে পড়াশোনা করেন এমন অনেকেই আছেন শুধু বাংলা বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী নয় সবার কাছেই আমার প্রশ্ন, আমি কি নাম্বার না দিয়ে ভুল করেছি? বাংলা বিভাগে পড়াশোনা করলেই কি নিজেকে সস্তা করে বাজারে তুলতে হয়?

ঢাকা, ১০ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।