বিদ্যালয়ে এসেই চেয়ারে বসে ঘুমান প্রধান শিক্ষক


Published: 2019-07-04 14:26:20 BdST, Updated: 2019-08-22 22:41:17 BdST

শেরপুর লাইভঃ শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বিদ্যালয়ে এসে চেয়ারে বসে ঘুমান প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। গত ৬ বছর ধরে চাকরী করা অবস্থায় প্রতিনিয়তই তিনি এভাবেই ঘুমিয়ে থাকেন বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসীন্দাদের। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার গৌরিপুর ইউনিয়নের হলদীবাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। ফলে এ বিদ্যালয়ে শিক্ষা ব্যবস্থা মুখ থুবরে পরেছে।
জানা গেছে, গত ৬ বছর পূর্বে রফিকুল ইসলাম এ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের স্থলাভিষিক্ত হন। তার বাড়ী উপজেলার পাগলার মুখ মূল্লাপাড়া গ্রামে হলেও তিনি থাকেন শেরপুরে। শেরপুর থেকে তিনি বিদ্যালয়ে যাতায়াত করে থাকেন।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আহম্মদ আলীসহ গ্রামবাসীরা জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসেন না। আবার আসলেও হাজীরা খাতায় সাক্ষর করে তিনি চলে যান। অভিযোগ রয়েছে শিক্ষক রফিকুল ইসলামের মাক্রোবাসের ব্যবসা করেন। রাতে তিনি নিজেই মাক্রোবাস চালান। এ কারণে বিদ্যালয়ে এসে তিনি চেয়ারে বসে ঘুমান।

এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও দূর্নীতি অভিযোগ। ১৯৩৮ সালে এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। অতীতে এ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ শতাধিক থাকলেও বর্তমানে এ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী রয়েছে ৭০/৮০ জন। তবে প্রধান শিক্ষকের দাবী কাগজে-কলমে শিক্ষার্থী রয়েছে ১৫০ জন। যা বাস্তবে নেই। এ বিদ্যালয়ে শিক্ষার মান ভালো না হওয়ায় অভিভাকরা তাদের সন্তানদের অন্য প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করছেন বলেন জানা গেছে।
এসব বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আহম্মদ আলী উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের সাথে কথা হলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয় অস্বীকার করে তিনি বলেন, আমি যখন লাইব্রেরীতে অবসর থাকি সে সময় ঘুমাই।

ঢাকা, ০৪ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ৪.কম)//আরএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।