তৃতীয় বর্ষেই বিয়ে ঠিক, অভিমানে প্রাণ দিলেন ছাত্রী!


Published: 2019-01-11 21:21:19 BdST, Updated: 2019-07-17 19:35:25 BdST

নোয়াখালী লাইভ: পড়াশোনা শেষ করে প্রতিষ্ঠিত হতে চেয়েছিল লিমা। সেভাবেই স্বপ্নগুলো বেড়ে উঠছিল তার। সবেমাত্র অনার্স তৃতীয় বর্ষে অধ্যয়ন করছিলেন তিনি। স্বপ্ন ছুঁয়ে দেখার আগেই তার অমতে বিয়ে ঠিক করেন বাবা-মা।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ভয়ংকর পথ বেছে নিয়েছেন ওই ছাত্রী। চলে গেছেন না ফেরার দেশে। নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় অনার্স ৩য় বর্ষের ওই ছাত্রী গলায় ধুতি পেছিঁয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

শুক্রবার উপজেলা চর আমান উল্যা ইউনিয়নের একটি বাড়ি থেকে ওই ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লিমা দাস সৈকত সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের ছাত্রী ছিলেন। লিটন চন্দ্র দাসের মেয়ে তিনি।

জানা গেছে, লিটন চন্দ্র দাসের মেয়ে লিমা দাসের ইচ্ছা ছিল পড়ালেখা শেষে চাকরি করে স্বনির্ভর হয়ে বিয়ে করবে। লিটন চন্দ্র দাস ও তার স্ত্রী মেয়ের বিয়ে ঠিক করেছিলেন। লিমা দাস বিষয়টি জানতে পেরে আত্মহত্যার ভয়ংকর পথ বেছে নেন। চরজব্বর থানার ওসি নিজাম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

 

ঢাকা, ১১ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।